Posts Tagged ‘নাস্তিক’

ভয়ঙ্কর ইসলামবিদ্বেষী ব্লগার ‘সানিউর’ : সে নূরে মুজাসসাম,হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক শান উনার খিলাফ বক্তব্য দিয়েছে ॥ কাজেই সরকারের উচিত অবিলম্বে এই কথিত ব্লগারের বিরুদ্ধে উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহণ করা।


গত ইয়াওমুল খামীসি বা বৃহস্পতিবার (৭ই মার্চ, ২০১৩ ঈ) দিবাগত রাতে মিরপুর পল্লবীতে পূরবী সিনেমা হলের কাছে অস্ত্রধারীরা কুপিয়ে জখম করে সানিউর রহমান নামক এক কথিত ব্লগারকে (অনলাইন এক্টিভিস্ট)। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পুলিশ পাহারায় চিকিৎসা নিয়ে এই তরুণ বর্তমানে নাখালপাড়ার

নাস্তিকতার উম্মাদনা এবং সরকারের বোদোধয়


দীর্ঘদিন থেকে অনলাইনে বিশেষ করে ব্লগ ও ফেইস বুকে গুটি কয়েক নাস্তিক ছানা আল্লাহ পাক এবং নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূরপাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিরুদ্ধে , উম্মুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম  এবং দ্বীন ইসলাম উনার বিরুদ্ধে চরম কটুক্তি এবং বিদ্বেষ ছড়িয়ে

নাস্তিকদের উদ্দেশ্যে ২টি মহামূল্যবান ঘটনা


ঘটনা ১ ইমামুস সাদিছ হযরত ইমাম জাফর ছাদিক আলাইহিস সালাম ও এক নাস্তিক নাবিক  হযরত ইমাম জাফর ছাদিক আলাইহিস সালাম উনার বিতর্ক হয়েছিলো এক নাস্তিক নাবিকের সাথে। সে নাবিক বলতো যে আল্লাহ পাক বলতে কিছু নেই (মাজাল্লাহ)! হযরত ইমাম জাফর ছাদিক

নাস্তিকী উন্মাদ


মাখলুকাতের মাথার মণি নূর নবী হযরত, আল্লাহ স্বয়ং আশিক উনার সত্য যে আলবত। সেই সে রসূলী জাত পাক নিয়ে করছে কটাক্ষ, ধৃষ্টতা হায় দেখায় এদেশে ইবলিসী পক্ষ। ওই সাতানব্বই ভাগ বাংলাদেশীরা সকলে মুসলমান, তবু নাকের ডগায় নাস্তিকেরা নাচতেছে ময়দান। তারা ইন্টারনেটেই

জনকণ্ঠ, প্রথম আলো ও কালের কণ্ঠসহ বিডি নিউজ সংবাদ মাধ্যমগুলো পবিত্র দ্বীন ইসলাম ও মুসলিম উনাদের ঘোর বিদ্বেষী কাট্টা নাস্তিক রাজিবকে মুসলমান বানাতে ইতিহাসের সর্বনিকৃষ্ট মিথ্যাচারিতার আশ্রয় নিচ্ছে কাদের স্বার্থে?


সম্প্রতি সময়ের সবচেয়ে সমালোচিত নাস্তিক ব্লগার থাবা বাবা ওরফে রাজিবকে নিয়ে অনেক বাকবিতন্ডা শুরু হয়েছে। তার শেষ কোথায় হবে তা সময়ই বলে দিবে আশা করছি। নূরানীচাপা ডট ওয়ার্ডপ্রেস ডটকম (nuranichapa.wordpress.com) নামে এটি একটি ব্যক্তিগত ব্লগ। যেখানে সবকটি লেখাই ছিল রাজিবের। পবিত্র

নাস্তিকতা কি শুধুই নাস্তিকতা? নাকি ইসলাম বিরোধীতা? এবং প্রাসঙ্গিক কিছু কথা


নাস্তিকতা বলতে সাধারন ভাবে যা বুঝায় তা হলো, আল্লাহ পাক উনার মুবারক অস্তিত্ত্বে অস্বীকার করা। কিন্তু বর্তমানে আমরা দেখতে পাই, যে বা যারা নিজেদের নাস্তিক বলে দাবী করে তারা তাদের লেখা লেখির মধ্যে শুধু ইসলাম বিদ্বেষ ঢেলে দেয়। শুধু কি তাই?

নাস্তিকগংরা লা-জওয়াব!!!


ঘটনাটা প্রায় ১৩শ বছর আগের। কিছু নব্য নাস্তিকের উদ্ভব ঘটেছিল। যত সব উদ্ভট যুক্তি দিয়ে সৃষ্টিকর্তাকে অস্বীকার করতে চায়। অনেকে তাদের কে বুঝানোর চেষ্টা করছিলো। কিন্তু নির্বোধদের একই কথা দৃশ্যমান ব্যতীত অদৃশ্যে বিশ্বাস করা তাদের পক্ষে অসম্ভব। তবে উপযুক্ত প্রমান উপস্থাপন

প্রসঙ্গ: এক নাস্তিকের কাফন, জানাযা এবং দাফন


সম্প্রতি মার্কা মারা এক নাস্তিক মারা গেছে। যদি  ও জীবিত থাকা অবস্থায় নিজেকে  মুসলিম পরিচয় দিতে কুন্ঠাবোধ করতো, ধর্মীয় বিষয়গুলোকে অবজ্ঞা করতো, সুযোগে বিদ্বেষ ও প্রকাশ করতো। অথচ তার  মৃত্যুর পরে ইসলামিক রীতিতে তাকে কাফন,দাফন,জানাযা দেয়া হলো।(নাউযুবিল্লাহ) যারা এ পুরো সংশ্লিষ্ট

সামহোয়্যার ব্লগের পালিত কুকুর নাস্তিক আসিফকে মুগুর দেয়ার ব্যবস্থা করা হোক


সামহোয়্যার  ইন ব্লগ , প্রথম বাংলা ব্লগ। ইন্টারনেটে বাংলা চর্চার পেছনে তারা কিছু কাজ করলে ও  বাক স্বাধীনতা  ও প্রগতির নামে  ইসলাম ধর্মের বিরোধীতায় পৃষ্ঠপোষকতা করছে ষোল আনা। অন্য ধর্ম সম্পর্কে সত্য দলীল নির্ভর লিখা লিখলে লেখককে ব্যান খাওয়া সহ  অনেক

হযরত ইমামে আ’যম রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার সাথে এক নাস্তিক পন্ডিতের বিতর্ক


একবার আল্লাহ পাক উনার অস্তিত্বে অস্বীকারকারী এক নাস্তিকের সাথে আমাদের হানাফি মাযহাবের যিনি ইমাম হযরত ইমামে আ’যম আবু হানিফা রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার মুনাজেরা হয়েছিল। মুনাজেরার বিষয় ছিল পৃথিবীর কোর সৃষ্টিকর্ত আছে কিনা। এতবড় ইমাম উনার সাথে এ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে মুনাজেরা দেখার

ইসলাম বিদ্বেষ এবং নাস্তিকতার পুরস্কার পাচ্ছে কুলাঙ্গার ব্লগার আসিফ মহিউদ্দীন


সোশ্যাল ক্যাম্পেইনিজমে একমাত্র বাংলা ব্লগ প্রতিনিধি হিসেবে আছে কুলাঙ্গার নাস্তিক এবং চরম  ইসলাম বিদ্বষী, সমাজতন্ত্রীদের বুদ্ধিজীবি, কুখ্যাত ব্লগার আসিফ মহিউদ্দীন। ব্লগসহ সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে নাস্তিকতার ক্যানভাসার হিসেবে কুখ্যাতি অর্জনের পুরস্কার স্বরূপ সে এ সুযোগ পাচ্ছে। আবার নাস্তিকটা নাকি ওখানে ২য় স্থানে

কলিকাতার পোড়খাওয়া হিন্দুরাই কি নাস্তিক সেজে বাংলাদেশী মুসলমানদের উপর ঝাল ঝাড়তে আসে?


বিষয়টি হঠাৎ করে মাথায় খেলে গেল। ব্লগস্ফিয়ারে নাস্তিকরা কেবল ইসলামেরই বিরোধিতা করে কেন? এর উত্তর নাস্তিকদের রেডি করা আছে। তা হলো যেখানে যে ধর্মের ব্যাপ্তি সেখানে সে ধর্মের বিরোধিতা বেশি হয়। ইন্ডিয়ায় নাস্তিকরা হিন্দুধর্মের চৌদ্দগুষ্ঠি উদ্ধার করে হিন্দুদের তটস্থ রাখে। অবশ্য