Posts Tagged ‘পীর’

মুজাদ্দিদে আ’যম সাইয়্যিদুনা রাজারবাগ শরীফ উনার মহাসম্মানিত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার নিকট বাইয়াত হওয়ার আবশ্যকতা


আমরা জানি, হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা যিনি সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, রহমাতুল্লিল আলামীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট বাইয়াত গ্রহণ করে ঈমানদার হয়েছেন, মুসলমান হয়েছেন, হিদায়েত লাভ করেছেন, ছাহাবী হয়েছেন।

হক্কানী-রব্বানী শায়েখ বা মুর্শিদ ক্বিবলা উনার নিকট বাইয়াত গ্রহণ করা ফরয হওয়ার প্রমাণ 


  মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআনুল কারীম উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, أَطِيْعُوا اللهَ وَأَطِيْعُوا الرَّسُوْلَ وَأُولِي الْأَمْرِ مِنْكُمْ অর্থ: “তোমরা মহান আল্লাহ পাক উনাকে ও উনার রসূল নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদেরকে অনুকরণ কর

সচ্চরিত্রবান মুরীদই শায়েখ বা মুর্শিদ ক্বিবলা উনার সর্বাধিক নৈকট্যশীল ও সন্তুষ্টিপ্রাপ্ত


হুসনুল খুলক বা সচ্চরিত্রবান হওয়ার জন্য সালিক বা মুরীদকে অরা’ উনার মাক্বাম ত্বয় বা হাছিল করা প্রয়োজন। কেননা ورع (অরা’) উনার মাক্বাম ত্বয় বা হাছিল করতে পারলে মুর্শিদ ক্বিবলা উনার খিদমত মুবারকে আঞ্জাম দেয়া সহজ ও সম্ভব হবে। সাথে সাথে উনার

“আস সাফফাহ” লক্বব বা উপাধী ব্যবহার করা প্রসঙ্গে মিথ্যাবাদীদের জবাব


“আস সাফফাহ” মুবারক লক্ববের প্রায় ৩০ প্রকার অর্থ বিভিন্ন অভিধানে উল্লেখ আছে। মিথ্যা প্রোপাগান্ডাকারীরা উক্ত ৩০ প্রকারের অন্য অর্থগুলো উদ্দেশ্যে প্রোনদিত ভাবে আড়াল করে গেছে। কিন্তু সে আড়াল করলে কি হবে তার মিথ্যার মুখোশ উম্মোচন করার লক্ষ্যে ইনশাআল্লাহ এই লক্বব মুবারকের

হক্বানী-রব্বানী মুর্শিদ উনার হাতে বাইয়াত হওয়া ফরয


মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “আমি জিন ও মানুষ জাতিকে একমাত্র আমার ইবাদত করার জন্য তৈরি করেছি।” (পবিত্র সূরা যারিয়াত শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ- ৫৬) অর্থাৎ আমার মা’রিফত, মুহব্বত, সন্তুষ্টি, রেযামন্দি মুবারক অর্জন করার জন্যই তৈরি

খাছ পর্দা করলে নেক সন্তান পাওয়া যায়, এর এক চরম উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত দেখুন


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘হে মহিলাগণ! আপনারা পর্দার সাথে নিজ ঘরে অবস্থান করুন। অর্থাৎ বেপর্দা হবেন না।’ নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘মহিলাগণ পর্দায় থাকবে। কারণ তারা যখন বের হয়

স্মরণে ১৯ শে রবিউছ ছানী শরীফ। সাইয়্যিদাতুনা হযরত নিবরাসাতুল উমাম আলাইহাস সালাম উনার কিছু মুবারক কারামত


মহিমান্বিত, নূরান্বিত, আলোকিত, উদ্ভাসিত, আনন্দিত, আন্দোলিত, হাস্যোজ্জ্বল, আড়ন্বরপূর্ণ, বেমেছাল শান-শওকত-জৌলুসযুক্ত এবং রহমত-বরকত-সাক্বীনাপূর্ণ এক মহান দিবস ১৯শে রবীউছ ছানী শরীফ। সর্বকালের সর্বযুগের সর্বশ্রেষ্ঠ মুজাদ্দিদ, মুজাদ্দিদে আ’যম, হাবীবে আ’যম, ফারূকে আ’যম, গাউছুল আ’যম, সাইয়্যিদুল আউলিয়া, খলীফাতুল্লাহ, খলীফাতু রসূলিল্লাহ, হাবীবুল্লাহ, আওলাদে রসূল রাজারবাগ শরীফ-এর

গাউছুল আ’যম, সাইয়্যিদুল আউলিয়া হযরত বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার মুবারক জীবনী এবং আমাদের শিক্ষা


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘যার ক্বলবে আমার যিকির জারি নেই; সে নফসের অনুসরণ করে এবং তার আমলগুলো হয় পবিত্র ইসলামী শরীয়ত উনার খিলাফ।’ গাউছুল আ’যম, সাইয়্যিদুল আউলিয়া হযরত বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার ক্বলব মুবারক উনার মধ্যে পবিত্র

গাউছুল আ’যম হযরত বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি কঠিন পরিস্থিতিতেও সত্য কথা বলেছেন এবং দায়িমীভাবে হক্ব উনার উপর ইস্তিকামত ছিলেন


সাইয়্যিদুল আউলিয়া, গাউছুল আ’যম হযরত বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি ছিলেন সেই যামানায় মহান আল্লাহ পাক উনার খাছ লক্ষ্যস্থল। উনার পবিত্র বিলাদত শরীফ থেকে পবিত্র বিছাল শরীফ পর্যন্ত পুরো হায়াত মুবারকেই মুসলমানদের জন্য রয়েছে অনেক ইবরত ও নছীহত। গাউছুল আ’যম, সাইয়্যিদুল

আগামী ১১ই রবিউছ ছানী শরীফ গাউছুল আ’যম, হযরত বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার বিছাল শরীফ


নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ করেন, ‘নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক তিনি এ উম্মতের হিদায়েতের জন্য প্রত্যেক হিজরী শতকের শুরুতে একজন মুজাদ্দিদ পাঠাবেন। যিনি দ্বীনের তাজদীদ করবেন।’ গাউছুল আ’যম, সাইয়্যিদুল আউলিয়া হযরত বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি

রাজারবাগ শরীফঃ যুগশ্রেষ্ঠ ওলী-আল্লাহর দরবার শরীফ (৫)


 রাজারবাগ দরবার শরীফে নাকি মহিলারা যাতায়াত করে। তাহলে রাজারবাগের পীর সাহেব আলাইহিস সালাম কি মহিলাদের সাথে দেখা-সাক্ষাৎ করেন? – প্রথমেই বলছি, ইসলামটা হচ্ছে পুরুষ ও মহিলা সকলের জন্য নির্ধারিত। এখন ফরজ ইলম পুরুষকেও হাছিল করতে হবে, মহিলাদেরও হাছিল করতে হবে।

হক্কানী শায়েখ উনার কাছে বাইয়াত হওয়া ফরয


একজন হক্কানী শায়েখ তথা ওলী আল্লাহ উনার নিকট বাইয়াত হয়ে জিকির-ফিকির করে ইছলাহ হাছিল করা প্রত্যেক মুসলমান নর-নারীর জন্য ফরয। নিচে কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা-কিয়াস এর দৃষ্টিতে আলোচনা করা হলোঃ ১। মহান আল্লাহ পাক তিনি কুরআন শরীফ-এ ইরশাদ করেন, “নিশ্চয়ই