Posts Tagged ‘বিবাহ’

সুন্নতী বাল্যবিবাহ কুফরকে মিটিয়ে দেয় এবং পরষ্পরের নিকট ‘অর্ধেক ঈমান’ জমা রাখে


মহান আল্লাহ পাক তিনি কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, وَمِنْ آيَاتِهِ أَنْ خَلَقَ لَكُم مِّنْ أَنفُسِكُمْ أَزْوَاجًا لِّتَسْكُنُوا إِلَيْهَا وَجَعَلَ بَيْنَكُم مَّوَدَّةً وَرَحْمَةً ۚ অর্থ: মহান আল্লাহ পাক উনার অন্যতম নিদর্শন মুবারকগুলোর মধ্যে ‘তিনি আহাল ও আহলিয়াকে একে অন্যের

তালাক কী ও তালাকের প্রকারভেদ


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে আরো বর্ণিত আছে- عن حضرت ابن عمر رضى الله تعالى عنه ان النبى صلى الله عليه وسلم قال ابغض الحلال الى الله الطلاق. অর্থ: হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উমর রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। নিশ্চয়ই সাইয়্যিদুল

তালাকদাতা ও তালাকপ্রার্থিনী উভয়ের প্রতি মহান আল্লাহ পাক তিনি অসন্তুষ্ট


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- يايها النبى اذا طلقتم النساء فطلقوهن لعدتهن واحصوا العدة واتقوا الله ربكم. অর্থ: হে নবী (ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি উম্মতকে বলুন) যখন তোমরা আহলিয়াদেরকে (স্ত্রীদেরকে) তালাক দিবে তখন তাদেরকে ইদ্দতের মধ্যে তালাক দিবে।

কথিত ভালোবাসা দিবসে মিডিয়ায় আন্তঃধর্ম বিবাহের প্রচার প্রসার এবং সম্মানিত ইসলাম উনাকে অবমাননা !!!!


হারাম থেকে হারামই জন্ম নেয়। যখন হারাম মিডিয়া আর হারাম বিশ্ব বেহায়া দিবস একসাথে, তখন গভীর চিন্তার বিষয় অবশ্যই। কাফির-মুশরিকদের প্রবর্তিত হারাম দিবস যখন আসে, তখন এদেশের কুফরীতে ভরা মিডিয়া অত্যন্ত সূক্ষ্মভাবে পবিত্র দ্বীন ইসলাম অবমাননা করে। মূলত, কাফির-মুশরিকদের টাকা খেয়ে

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও উম্মুল মু’মিনীন হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনাদের বিরোধিতা করতেই ব্রিটিশরা বাল্যবিবাহ বিরোধী আইন করে; যা মানা মুসলমানদের জন্য কাট্টা কুফরীর অন্তর্ভুক্ত


ব্রিটিশ সরকার উদ্দেশ্যমূলকভাবেই মেয়েদের বিয়ে বসা বা বিয়ে দেয়ার জন্য কমপক্ষে ১৮ বছর বয়স হওয়ার আইন বা শর্ত করে দেয় এবং ১৮ বছর বয়সের নিচে কোনো মেয়েকে বিয়ে দেয়া, বিয়ে করা বা কোনো মেয়ের জন্য বিয়ে বসা দ-নীয় অপরাধ বলে সাব্যস্ত

মুসলমান-হিন্দু দম্পত্তির ঘরে জন্ম নেয়া সন্তান হবে জারয, তিনি আইনমন্ত্রীকে মুরতাদ অ্যাখ্যায়িত করে বলেন, আইনমন্ত্রী ইসলামে নিষিদ্ধ এমন রীতিকে স্বীকৃতি দিয়ে মুরতাদে পরিণত হয়েছে। -কাজী মাওলানা এড. রুহুল আমীন


মুসলমান ও হিন্দু তাদের নিজ নিজ ধর্ম পালন করলেও এমন বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া ইসলামে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। এমন পরিবারে জন্মগ্রহণ করা শিশুটি হবে জারয সন্তান। গতকাল ইয়াওমুল খামীসি বা বৃহষ্পতিবার বাংলাদেশ কাজী সমিতির আহ্বানে অনুষ্ঠিত এক জরুরী বৈঠকে সভাপতির বক্তব্যে কাজী

প্রসঙ্গ: ২১/১৮ ফাঁদ, বিয়ের বয়স সীমার বাধ্যবাধকতা এবং কাফির গোষ্ঠির ষড়যন্ত্র


পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার সাথে সাথে বিয়ের অনুমোদন এবং উৎসাহ রয়েছে। অথচ বাংলাদেশে ২১/১৮  নামের ফাঁদ ফেলা হয়েছে। কিন্তু ইসলামে বিয়ের জন্য কোন বয়স সীমা নেই । যখন যে বিয়ের উপযু্ক্ত হয় তখনই বিয়ে করতে পারে। বাংলাদেশে তারা এ