Posts Tagged ‘মুহব্বত’

সাইয়্যদিাতুনা হযরত দাদী হুযুর ক্ববিলা আলাইহাস সালাম উনাকে মুহব্বত করা নাযাত লাভের কারণ


আজ মহমিান্বতি ২৫শে শাওওয়াল শরীফ। সুবহানাল্লাহ! আজ উম্মু মুজাদ্দিদে আ’যম, আওলাদে রসূল, হাবীবাতুল্লাহ সাইয়্যদিাতুনা, মহাসম্মানতিা হযরত দাদী হুযূর ক্ববিলা আলাইহাস সালাম উনার সুমহান পবত্রি বছিালী শান মুবারক প্রকাশ দবিস। যিনি মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ র্মুশদি ক্ববিলা সাইয়্যদিুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ

মহাসম্মানিত আহলে বাইত শরীফ উনাদেরকে মুহব্বত করার প্রতিদানসমূহ 


সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, রহমাতুল্লিল আলামীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নূরানী, পূত-পবিত্র আহলু বাইত শরীফ অর্থাৎ উনার সম্মানিত আব্বা-আম্মা আলাইহিমাস সালাম, হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম এবং সম্মানিত আওলাদ আলাইহিমুস সালাম, আলাইহিন্নাস সালাম

ইমামুল আউওয়াল মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে যে ব্যক্তি মুহব্বত করবে সে ব্যক্তি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে পবিত্র জান্নাতে থাকবে


সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি বর্ণনা করেন। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি একদা সাইয়্যিদু শাবাবি আহলিল জান্নাহ সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছানী মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এবং সাইয়্যিদু শাবাবি আহলিল জান্নাহ

মুহব্বত করাই হচ্ছে ঈমান


সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, শাফেউল মুজনেবীন, রহমাতুল্লিল আলামীন, হাবীবুল্লাহ হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হচ্ছেন সমস্ত কায়িনাত বা সৃষ্টি জগতের মূল উৎস। তিনি আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন উনার সকল নিয়ামতের উৎস। উনার সন্তুষ্টি ব্যতিত আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টি কখনোই

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি স্বয়ং খোদা তায়ালা নন, তবে তিনি খোদা তায়ালা থেকে জুদাও নন


পবিত্র হাদীছে কুদসী শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত হয়েছে- যিনি খলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন তিনি ইরশাদ মুবারক করেন يا حبيبى انا وانت وما سواك خلقت لاجلك قال رسول الله صلى الله عليه وسلم يا رب انت وما انا

মুহব্বত


সাইয়্যিদুনা ইমামুল আউওয়াল মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে যে ব্যক্তি মুহব্বত করবে সে ব্যক্তি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে পবিত্র জান্নাতে থাকবে—- সাইয়্যিদুনা হযরত আলী ইবনে আবূ ত্বালিব আলাইহিস সালাম তিনি

রজব মাস তওবা করার জন্য


হাদীছ শরীফে বর্ণিত রয়েছে, “রজব মাস মন্দ কর্মসমূহ পরিহারের জন্য, শা’বান মাস নেক কাজ এবং ওয়াদা-অঙ্গীকার পূরণের জন্য আর রমযান মাস সত্য সঙ্কল্প এবং বাতিনী পরিচ্ছন্নতার জন্য। রজব মাস তওবা করার জন্য, শা’বান মাস মুহব্বতের জন্য, রমযান মাস নৈকট্য অর্জনের জন্য।

মানুষের নফস সাফল্যের পথে একটি বাধা ॥ নিজেকে বিলীন না করতে পারলে নফসের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া অসম্ভব


  মানুষ সাধারণত নিজের দোষ-ত্রুটি লুকিয়ে রাখে এবং অন্যের দোষ খুঁজে বেড়ায়। বিষয়টি ফিকিরের। মানুষ যদি এই পক্ষপাতদুষ্ট আচরণের কারণ বুঝতে পারে, তাহলে সম্ভবত চেষ্টা করে এই ত্রুটি থেকে মুক্তি পেতে পারে। মানুষ আসলে নিজকে সবচেয়ে বেশি ভালোবাসে। এই মুহব্বতই মানুষের

সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ উম্মু আবীহা সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার মুহব্বত ঈমান।


সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ উম্মু আবীহা সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের অন্যতম এবং হযরত আওলাদে রসূলগণ উনাদের মূল ব্যক্তিত্ব। সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ উম্মু আবীহা সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার মুহব্বত ঈমান।

উনাদেরকে দেখে নবী আলাইহিমুস সালামগণ ও শহীদগণ আশ্চর্যানিত হবেন।


“হযরত মুয়ায ইবনে জাবাল রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু হতে বর্ণিত তিনি বলেন, আমি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উনাকে বলতে শুনেছি, তিনি বলেন, মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেছেন, যারা আমার সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে পরস্পরকে মুহব্বত করে, আমার সন্তুষ্টির

মুহব্বতের সাথে সম্মানিত নিকাহিল আযীম শরীফ পালন করি ।


এই সেই সম্মানিত ২২ শে জুমাদাল ঊলা শরীফ । যেদিন নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সঙ্গে উম্মুল মু’মিনীন হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার মুবারক শাদী অনুষ্ঠিত হয়। সুবহানাল্লাহ । সবার উচিত এই দিনে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ

আসুন কোরআন শরীফ, হাদীশ শরীফের আলোকে সুন্নত আমল উনার ফযিলত ও  গুরুত্ব জেনে নেই ।


মহান আল্লাহ্ পাক তাঁর কালাম পাকে ইরশাদ করেন, قُلْ إِنْ كُنتُمْ تُحِبُّوْنَ اللهَ فَاتَّبِعُوْنِىْ يُحْبِبْكُمُ اللهُ وَيَغْفِرْ لَكُمْ ذُنُوبَكُمْ وَاللهُ غَفُوْرٌ رَّحِيْمٌ অর্থঃ- “হে হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি বলুন যদি তোমরা আল্লাহ্ পাক-এর মুহব্বত (সন্তুষ্টি) পেতে চাও তাহলে আমার