Posts Tagged ‘শবে বরাত’

পবিত্র শবে বরাত-এর পক্ষে কিছু ছহীহ হাদীস শরীফ – ৩


হযরত আলী ইবনে আবী তালিব রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেনঃ রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ “যখন শা‘বানের মধ্যরাত্রি আসবে তখন তোমরা সে রাতের কিয়াম তথা রাতভর নামায পড়বে, আর সে দিনের রোযা রাখবে; কেননা সে দিন সুর্যাস্তের সাথে সাথে

পবিত্র শবে বরাত-এর পক্ষে কিছু ছহীহ হাদীস শরীফ – ২


হযরত আবু মূসা আল আশ’আরী রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ ‘আল্লাহ তা‘আলা শাবানের মধ্যরাত্রিতে আগমণ করে, মুশরিক ও ঝগড়ায় লিপ্ত ব্যক্তিদের ব্যতীত, তাঁর সমস্ত সৃষ্টিজগতকে ক্ষমা করে দেন। দলিলঃ হাদীসটি ইমাম ইবনে মাজাহ তার

পবিত্র শবে বরাত-এর পক্ষে কিছু ছহীহ হাদীস শরীফ – ১


  ১. আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বলেন: এক রাতে আমি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে খুঁজে না পেয়ে তাঁকে খুঁজতে বের হলাম, আমি তাকে বাকী গোরস্তানে পেলাম। তখন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাকে বললেন: ‘তুমি কি মনে কর, আল্লাহ ও

শবে বরাতের অন্যান্য নাম


পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, তাফসীর শরীফ ও ফিক্বহর কিতাবে বর্ণিত ‘পবিত্র শবে বরাত শরীফ’ এর অন্যান্য নাম মুবারকসমূহ :   পবিত্র হাদীছ শরীফ এর বিশ্ববিখ্যাত কিতাব মুবারক-এ এবং সর্বজনমান্য তাফসীর শরীফ ও ফিক্বহর কিতাবসমূহে উল্লেখকৃত পবিত্র শবে বরাত শরীফ

শবে বরাত সম্পর্কিত কিছু মূল্যবান হাদিস শরীফ।


  ১। মুআয ইবনে জাবাল রাদিয়াল্লাহু তাআলা আনহু থেকে বর্ণিত, নূরে মুজাসসাম, হাবীবাল্লাহ, হুজুর পাক সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, –মহান আল্লাহ তাআলা অর্ধ-শাবানের রাতে (শাবানের চৌদ্দ তারিখ দিবাগত রাতে) সৃষ্টির দিকে (রহমতের) দৃষ্টি দেন এবং মুশরিক ও বিদ্বেষ পোষণকারী ব্যতীত

শবে বরাত’ অস্বীকার করার অর্থ হলো কুরআন শরীফ ও হাদীছ শরীফকেই অস্বীকার করা


শবে বরাত’ অস্বীকার করার অর্থ হলো কুরআন শরীফ ও হাদীছ শরীফকেই অস্বীকার করা ১৪ই শা’বান দিবাগত রাতটি হচ্ছে শবে বরাত বা বরাত-এর রাত। এ সম্পর্কে সূরা দুখান-এর শুরুতে ইরশাদ হয়েছে; মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ করেন “নিশ্চয়ই আমি বরকতময় রজনীতে (শবে

শবে বরাত পালন করতে একটি হাদীসই যথেষ্ঠ।


শবে বরাত পালন করতে একটি হাদীসই যথেষ্ঠ। মুমিনের জন্য একটি দলিলই যথেষ্ঠ আর শয়তানের জন্য হাজার হাজার দলিল প্রয়োজন। তারপরেও শয়তানের দল মানবে কি না সন্দেহ আছে? পবিত্র পবিত্র হাদীছ শরীফে ইরশাদ মোবারক হয়েছে- عن حضرت على رضى الله تعالى عنه

লাইলাতুল বরাত – ১


পবিত্র শবে বরাত বা লাইলাতুল মুবারাকাহ বা লাইলাতুল নিছফি ফিন শাবান সম্পর্কে ধারাবাহিক্ক ভাবে আজ থেকে লিখব। আজ রইল প্রথম পর্ব। আজ থাকবে উৎপত্তি। ফার্সী শব অর্থ রাত্রি এবং বরাত অর্থ ভাগ্য বা মুক্তি। সুতরাং শবে বরাত মানে হল ভাগ্য রজনী

শবে বরাত ও এর দলীল ভিত্তিক প্রমাণ


১৪ই শা’বান দিবাগত রাতটি হচ্ছে পবিত্র শবে বরাত বা বরাতের রাত্র। কিন্তু অনেকে বলে থাকে কুরআন শরীফ ও হাদীছ শরীফ এর কোথাও শবে বরাত বলে কোনো শব্দ নেই। শবে বরাত বিরোধীদের এরূপ জিহালতপূর্ণ বক্তব্যের জবাবে বলতে হয় যে, শবে বরাত শব্দ

পবিত্র শবে বরাত উনার আমলের তরতীব সমূহ


পবিত্র বরাত শরীফ উনার রাতে জাগ্রত থেকে বিভিন্ন প্রকারের পবিত্রতম ইবাদত-বন্দেগী করার ব্যাপারে অসংখ্য পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মাধ্যমে উৎসাহ ও নির্দেশনা মুবারক দেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “এই পবিত্রতম বরাত উনার রাতের দু’রাকায়াত

শবে বরাত ও এর দলীল ভিত্তিক প্রমাণ


১৪ই শা’বান দিবাগত রাতটি হচ্ছে পবিত্র শবে বরাত বা বরাতের রাত্র। কিন্তু অনেকে বলে থাকে কুরআন শরীফ ও হাদীছ শরীফ এর কোথাও শবে বরাত বলে কোনো শব্দ নেই। শবে বরাত বিরোধীদের এরূপ জিহালতপূর্ণ বক্তব্যের জবাবে বলতে হয় যে, শবে বরাত শব্দ

শবে বরাত ও শরীয়ত ভিত্তিক প্রমাণ


১৪ই শা’বান দিবাগত রাতটি হচ্ছে পবিত্র শবে বরাত বা বরাতের রাত্র।কিন্তু অনেকে বলে থাকে কুরআন-হাদীছের কোথাও শবে বরাত শব্দ নেই। শবে বরাত বিরোধীদের এরূপ জিহালতপূর্ণ বক্তব্যের জবাবে বলতে হয় যে, শবে বরাত শব্দ দু’টি যেরূপ কুরআন ও হাদীছ শরীফের কোথাও নেই