Posts Tagged ‘শরীয়ত’

মসজিদে চেয়ারে নামায পড়ে বেয়াদবরা! 


  সারা রাস্তায় হেঁটে হেঁটে এসে মসজিদে এসেই টুপ করে চেয়ারে বসেই নিজেকে কি জানি মনে করা হচ্ছে? এটা ভুলে যাওয়া চলবে না- এটা ক্ষমতা দেখানোর জায়গা নয়, এটা সমস্ত ক্ষমতার যিনি মালিক, যিনি যাকে ইচ্ছা ক্ষমতা দেন ও যার থেকে

গান-বাজনা করা ও শ্রবণ করা কবীরা গুনাহ


সম্মানিত শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে- গান-বাজনা করা ও শ্রবণ করা কবীরা গুনাহ। গান-বাজনার আসরে বসা ফাসিক্বী এবং গান-বাজনার স্বাদ গ্রহণ করা কুফরী। পবিত্র কুরআন শরীফ উনার একাধিক পবিত্র আয়াত শরীফ উনাদের দ্বারা এবং পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের দ্বারা গান-বাজনা করা ও শ্রবণ

পবিত্র ইসলামী শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে সর্বপ্রকার গান-বাজনা করা ও শোনা হারাম ও কবীরাহ গুনাহ


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “গান-বাজনা অন্তরে নিফাকী পয়দা করে।” পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে একাধিক পবিত্র আয়াত শরীফ রয়েছে এবং অসংখ্য পবিত্র হাদীছ শরীফ বর্ণিত রয়েছে- যদ্দারা প্রমাণিত হয় যে, সর্বপ্রকার গান-বাজনাই হারাম। কেউ কেউ বলে ইসলামী

অধিকাংশ লোকের অনুসরণ কিংবা যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলা কতটুকু শরীয়তসম্মত?


  মহান তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার বিভিন্ন জায়াগায় অধিকাংশ লোকের অনুসরণ করা থেকে বান্দাদের সতর্ক করেছেন। এখানে কয়েকটি পবিত্র আয়াত শরীফ উল্লেখ করা হলো- (১) “যদি তুমি দুনিয়ার অধিকাংশ লোকের অনুসরণ কর তবে তারা তোমাকে মহান আল্লাহ পাক উনার পথ

ফোন রিসিভ করার শরীয়তসম্মত পদ্ধতি


আমরা ফোন রিসিভ করার সময় বলি ‘হ্যালো’। কিন্তু আমরা জানি কি ফোনে ‘হ্যালো’ বলার প্রচলন কিভাবে হয়েছিল? ‘হ্যালো’ একটি মেয়ের নাম। মার্গারেট * ছিল টেলিফোনের আধুনিকায়নকারী গ্রাহামবেলের প্রেমিকা। গ্রাহাম বেল টেলিফোনের পরীক্ষা চালানোর জন্য তার প্রেমিকাকে ফোন দিয়ে তার নাম উচ্চারণ

শরীয়ত তথা পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের ফতওয়া হলো যেটা সবচেয়ে ভালো, পছন্দনীয় ও মূল্যবান সেটাই দান করতে হবে।


“শরীয়ত তথা পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের ফতওয়া হলো যেটা সবচেয়ে ভালো, পছন্দনীয় ও মূল্যবান সেটাই দান করতে হবে। পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার ৫টি স্তম্ভের মধ্যে যাকাত ৩য় বা মধ্যবর্তী স্তম্ভ যাকাত যা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কুরাআন শরীফ উনার

সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে গান-বাজনা হারাম


মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি তোমাদের জন্য যা কিছু (সম্মানিত দ্বীন ইসলাম, পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, পবিত্র শরীয়ত

লা’নত থেকে বাঁচতে হলে পর্দা করুন


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “দাইয়ুছ পবিত্র জান্নাত উনার মধ্যে প্রবেশ করতে পারবে না।” যে ব্যক্তি নিজে পর্দা করে না এবং তার অধীনস্থদের পর্দা করায় না- সে ব্যক্তিই দাইয়্যুছ। এ পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার থেকে বুঝা গেল যে,

শরীয়তে ঈদ কয়টি ?


কোন কোন জাহিল বলে থাকে যে, শরীয়তে ঈদ মাত্র ২টি- ১) ঈদুল ফিতর ও ২) ঈদুল আদ্বহা। মূলত: তাদের এ বক্তব্য শুধু অশুদ্ধই নয়, বরং কাট্টা কুফরীর অন্তর্ভূক্ত। কারণ শরীয়তে ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আদ্বহা এ দু’টি ঈদ ছাড়াও আরো ঈদের