Posts Tagged ‘হিন্দু’

বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের কৃত্রিম ‘আভিজাত্য’


পৃথিবীতে যেসব বংশ অভিজাত বংশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছে, তাদের পূর্বপুরুষদের মধ্যে কোন না কোন বীরপুরুষ কিংবা স্বাধীনতাকামী রাজার সন্ধান মেলে। যে রাজা বা বীরপুরুষ কোন গোষ্ঠীর নেতৃত্ব দিয়েছে, কিংবা তাদের স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধ করেছে। কিন্তু বাঙালি হিন্দুর ইতিহাসে কখনোই তাদের

হেক্বারতিদের কথিত আন্দোলন ছিল সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত: সাঁথিয়ার ঘটনায় হিন্দুদের পক্ষাবলম্বনই তার প্রমাণ


সম্প্রতি সাঁথিয়ায় যে ঘটনা ঘটে গিয়েছে, সে ঘটনাকে বিকৃত করে কুচক্রী মিডিয়া একতরফাভাবে মুসলমানদের ঘাড়ে দোষ চাপাচ্ছে। প্রতিবাদকারীদের হেয় করতে ‘উগ্র মুসলমান’, ‘দুর্বৃত্ত’ এ ধরনের শব্দও অবলীলায় ব্যবহার করছে এসব হিন্দুপন্থী মিডিয়া। কিন্তু শাহবাগ ইস্যুকে কেন্দ্র করে দেশে অরাজকতা সৃষ্টি করা

উগ্র হিন্দুদের ভয়াবহতা। কেইস স্টাডি: শুভাশিষ রায়


আগের পর্বে উল্লেখ করেছি, এদেশে বেশকিছু ডাক্তার এবং মেডিকেল স্টুডেন্ট ইসলামবিদ্বেষী অপকর্মে লিপ্ত। তাদের একজন হলো শুভাশিষ রায়। ‘আমি হিন্দু’ নামক উগ্র হিন্দুত্ববাদী ফেইসবুক পেজে দিনাজপুর মেডিকেলের ছাত্র শুভাশিষের একটি বক্তব্য পড়লেই বুঝতে পারবেন যে, এদেশের হিন্দু ডাক্তাররা এদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম

মুসলমানদের উপর আঘাত হেনে নিজেদের ঘরবাড়ি-মন্দিরে হামলা অগ্নিসংযোগ করা হিন্দুদের একটি চক্রান্ত (১)


সরকারের ভারত তাঁবেদারিতা আর হিন্দুপ্রীতির সুবাদে এদেশের ২ ভাগেরও কম সংখ্যক হিন্দু ৯৭ ভাগ মুসলমানদের উপর নানাভাবে আঘাত হেনে কৌশলে নিজেদের ফায়দা লুটে যাচ্ছে। প্রায়শই হিন্দুরা পবিত্র ইসলাম উনাকে কটূক্তি করে মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানছে, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মুসলমান

পাবনায় কটূক্তিকারীর একমাত্র শাস্তি মৃত্যুদন্ড কার্যকর না করলে দেশের শতকরা ৯৭ ভাগ মুসলমান বিক্ষোভে ফেটে পড়বে


গত রোববার পাবনায় রাজিব সাহা নামে এক মৌলবাদী, গোঁড়া হিন্দু ছাত্র তার ফেসবুক আইডিতে পবিত্র কুরআন শরীফ উনার ৩৩ নম্বর পবিত্র সূরা আল আহযাব শরীফ উনার ৫১ নম্বর পবিত্র আয়াত শরীফ বিকৃত করে এবং মুসলমানগণ উনাদের ঈমান আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম,

বাতিল ফিরক্বার অন্তর্ভুক্ত বলেই ওহাবী, খারিজী, হেফাজতীরা পবিত্র ইসলাম অবমাননায় কোনো প্রতিবাদ করে না


গোঁড়া, সাম্প্রদায়িক হিন্দুরা মুসলমান দেশে থেকে মুসলমানদেরই পবিত্র ধর্মের অবমাননা করে, কটূক্তি করে। অথচ এদেশে আলেম দাবিদার ওহাবী-খারিজীর সংখ্যা কম নয়। ব্যাঙের ছাতার মতো পাড়ায় মহল্লায় সব জায়গায় কওমী খারিজী মাদরাসা। সারা দেশে প্রতিবছর পঞ্চাশ হাজার আলেম বের হয় বলে তারা

যে সকল সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবী, রাজনীতিবিদ, মানবাধিকার কর্মী হিন্দুদের অপকর্মের স্বপক্ষে বলে তারা জাত হিন্দু


বাংলাদেশে হিন্দুরা ফেসবুকে, ব্লগে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার বিপক্ষে একের পর এক কটূক্তি করে যাচ্ছে। যখন সাধারণ মুসলমান অবগত হয়ে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেন তখন দেখা যায় অনেক হিন্দুদের দালাল নানাভাবে ঘটনা বানিয়ে রটনা করতে থাকে। হিন্দুদের স¦পক্ষে নানা কথা বলে, প্রতিবাদ

প্রশাসনে ২% হিন্দুদের কল্পনাতীত আধিক্য, যা বড়ই দুশ্চিন্তার বিষয়। নিচের তালিকা দেখলে নিশ্চয়ই আপনি ঘুমাতে পারবেন না


সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশে হিন্দুদের উগ্রপন্থী কর্মকাণ্ড সীমাহীন পর্যায়ে পৌছেছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে মুসলিম মেয়েদের রেপ করা, নওমুসলিমদের হত্যা করা, মুসলমানদের ধর্মীয় বিষয় নিয়ে প্রকাশ্যে কটূক্তি করা ইত্যাদি এখন হিন্দুদের কাছে মামুলী ব্যাপার। “প্রায় ৯৫ শতাংশ মুসলমানের দেশে, মাত্র ২-৩ শতাংশ হিন্দু এত দুঃসাহস

প্রসঙ্গ পাবনা: ফেইসবুকে এদেশের হিন্দুদের ইসলামবিদ্বেষী কার্যক্রম দিবালোকের ন্যায় সত্য ও বিস্তৃত, তা কোনো গুজব নয় (১)


পাবনার সাঁথিয়ার ঘটনা নিয়ে সরকার ও মিডিয়ার হিন্দুয়ানী কান্না অসহ্য পর্যায়ে গিয়ে ঠেকেছে। আওয়ামী ও বাম দালাল মিডিয়াগোষ্ঠী নাস্তিক ব্লগার থাবা ওরফে রাজীবের ন্যায় হিন্দুদের ইসলামবিদ্বেষী অপকর্মকে গুজব (!) দাবি করে তা ধামাচাপা দিয়ে নির্লজ্জভাবে মুসলিম সম্প্রদায়কে একতরফাভাবে দোষী সাজানোর অপচেষ্টা

গণতান্ত্রিক সরকার কতটা ইসলামবিদ্বেষী! প্রধানমন্ত্রীর কটূক্তিকারীকে জেলে প্রেরণ করা হলো, আর পাবনায় পবিত্র দ্বীন ইসলাম নিয়ে কটূক্তিকারীকে করা হচ্ছে জামাই আদর


গত ২২ আগস্ট ২০১৩ ঈসায়ী তারিখে প্রধানমন্ত্রী ও তার পরিবারের সদস্যদের ফেসবুকে কটূক্তি করার অভিযোগে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষককে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত এবং তাকে চাকরিচ্যুতও করা হয়েছে। শিক্ষক ওহিদুজ্জামান ফেসবুকে স্ট্যাটাসে লিখেন, “প্রধানমন্ত্রীর ছেলে পাবলিক এডমিনিস্ট্রেশনে পড়ালেখা শেষ করে কয়েকটি পাওয়ার পয়েন্ট

মুসলমান উনাদের ধর্মীয় অনুভূতি বিদীর্ণ করা হচ্ছে বারবার, তবুও কেন সবাই নির্বিকার?


সাম্প্রতিক পাবনার সাঁথিয়ার ঘটনা নিয়ে সরকার ও মিডিয়ার হিন্দুয়ানী কান্না অসহ্য পর্যায়ে পৌঁছেছে। মুসলমান উনাদের ধর্মীয় অনুভূতিকে সম্পূর্ণ অগ্রাহ্য করে- কোন হিন্দুর কোন মন্দির কোথায় ভাঙ্গা হয়েছে, সেটা অনেক বড় করে দেখানো হচ্ছে। সাঁথিয়ায় যা ঘটেছে: ১) সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন,

যবন, ম্লেচ্ছ, অস্পৃশ্য হিন্দুদের তথাকথিত “গণশ্রাদ্ধ” হিন্দুধর্ম বিরোধী বিধান


স্বাধীনতার ৪২ বছর পরে হঠাৎ করে যবন, ম্লেচ্ছ, অস্পৃশ্য হিন্দুদের দেশপ্রেম জাগ্রত হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধে আত্মাহুতিদানকারী (!!) ‍হিন্দুদের পারলৌকিক ক্রিয়া সম্পন্ন করবে বলে ঘোষণা দিয়ে ‘গণশ্রাদ্ধ ৭১’ নামের একটি অদ্ভুত অনুষ্ঠান আয়োজনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে । অথচ হিন্দুধর্ম মতে ‘গণশ্রাদ্ধ’ বলতে কোন