আমাদের এদেশের পণ্যে “ভেজিটেরিয়ান” লোগো ব্যবহার নিষিদ্ধ করতে হবে


বাংলাদেশে ৯৮ ভাগ মুসলমান অধুষ্যিত দেশ। তাই এখানে ইসলামী নিয়ম-নীতি প্রাধান্য পাবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু বাস্তবতা সম্পূর্ণ ভিন্ন। মনে হয় না কোনো মুসলমান দেশটি শাসন করছে। এখানে বিধর্মীদের তর্য-তরীক্বা, আচার-আচরণ, সংস্কৃতি ইত্যাদি প্রাধান্য বিস্তার করে আছে। তারই একটি বহিঃপ্রকাশ হচ্ছে বাংলাদেশী পণ্যে “ভেজিটেরিয়ান” লোগো ব্যবহার। নিরামিষভোজী বা ভেজিটেরিয়ান মূলত বিধর্মী-মুশরিকদের একটি গোষ্ঠী যারা প্রাণীজ জিনিস খায় না ও ব্যবহার করে না। কিন্তু পবিত্র দ্বীন ইসলামে এ ধরনের কোনো বিধি-নিষেধ নেই। তাহলে ৯৭ ভাগ মুসলমান অধ্যুষিত এদেশের পণ্যে “ভেজিটেরিয়ান” লোগো ব্যবহারের কি যৌক্তিকতা থাকতে পারে? নাকি তারা নিরামিষভোজিতার বিজাতীয় রীতি মুসলমানদের মধ্যে ঢুকানোর অপচেষ্টা করছে? তাই সরকারের দায়িত্ব হচ্ছে, অবিলম্বে দেশীয় পণ্যে “ভেজিটেরিয়ান” লোগো ব্যবহার নিষিদ্ধ করা এবং শরীয়া নিয়ম অনুযায়ী হালাল পন্থায় ও হালাল কাঁচামাল দ্বারা পণ্য উৎপাদিত হচ্ছে কিনা তার মান যাচাই করে “হালাল” লোগো প্রদানের ব্যবস্থা করা।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে