আসল সন্ত্রাসী কারা? মুসলমান না কাফিররা?


১. হিটলার ১ কোটি ১০ লক্ষ মানুষকে হত্যা করেছিলো। সে কিন্তু মুসলিম ছিলো না, ছিলো খ্রিস্টান।

২. জোসেফ স্টালিন ২ কোটি মানুষকে হত্যা করেছিলো। সেও মুসলমান ছিলো না। নাস্তিক দাবি করতো।
৩. মাওসেতুং ১.৪-২ কোটি মানুষকে হত্যা করেছিলো। সেও মুসলমান ছিলো না। নাস্তিক দাবি করতো।
৪. মুসলিনি (ইতালিয়ান ফ্যাসিস্ট) ৪ লাখ হত্যা করেছিলো, সেও মুসলমান ছিলো না।
৫. জর্জ ডাব্লিউ বুশ ইরাক ও আফগানিস্তানে ১৫ লক্ষ নারী-শিশু হত্যা করেছে, সেও মুসলিম নয়, খ্রিস্টান ছিলো।
৬. গুজরাটের কসাই নরেন্দ্র মোদি লক্ষ লক্ষ মানুষকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে । সেও মুসলিম নয় হিন্দু।
৭. ফিলিস্তিনে ১৯৪৮ সাল থেকে অসংখ্য মুসলমানকে হত্যা করেছে ইসরাইলিরা, যারা ইহুদী ধর্মাবলম্বী।
৮. বর্তমানে মায়ানমারে রোহিঙ্গাদের উপর চলছে নির্মম গণহত্যা গণধর্ষন, নিপিড়ন। এগুলো কিন্তু মুসলমানরা করছে না, করছে বৌদ্ধরা।
দেখা যাচ্ছে, সারা বিশ্বে সকল বড় বড় গণহত্যার জন্য দায়ী হচ্ছে কাফির মুশরিক তথা ইহুদী হিন্দু খ্রিস্টান, বৌদ্ধ ও নাস্তিকরা। তাহলে কাফিররা কোন যুক্তিতে মুসলমানদের সন্ত্রাসী বলে ডেকে থাকে?
মূলত, প্রকৃত সন্ত্রাসী হচ্ছে কাফিররাই। তারাই নিজেদের সন্ত্রাসী পরিচয় আড়াল করার জন্য মুসলমানদেরকে সন্ত্রাসী বলে অপবাদ দেয়। প্রত্যেক মুসলমানের উচিত কাফিরদের এ ধরনের অপ্রচাররের শক্ত জবাব দেয়া।
মহান আল্লাহ পাক তিনি সকল মুসলমানকে এই অপপ্রচারের শক্ত জবাব দেয়ার তাওফীক দান করুন। আমীন!

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে