ক্বদমবুছী ও দস্তবুছী সম্পর্কে জানুন


ক্বদমবুছী যার অর্থ পা চুম্বন করা। ক্বদম ও বুছী এ দুটিকে একত্রে বলা হয় ক্বদমবুছী। ক্বদম অর্থ পা এটা আরবী শব্দ আর বুছী অর্থ চুম্বন করা এটা ফার্সী শব্দ। ক্বদমবুছী পুরো শব্দটির অর্থ হলো পা চুম্বন করা। দস্তবুছী যার অর্থ হাত চুম্বন করা। দস্ত ও বুছী এ দুটিকে একত্রে বলা হয় দস্তবুছী। দস্ত অর্থ হাত। এটাও ফার্সী শব্দ আর বুছী অর্থ চুম্বন করা এটা ফার্সী শব্দ।
আজকাল দেখা যায়, অনেকে বলে থাকে যে, ক্বদমবুছী ও দস্তবুছী করা নাজায়িয। আসলে ক্বদমবুছী ও দস্তবুছী করা জায়িয এবং সুন্নতে ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম। এ সম্পর্কে ‘মিশকাত শরীফ’ ও ‘আবু দাউদ শরীফ’-এ রয়েছে যে, “হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা বলেন, যখন আমরা মদীনা শরীফ-এ আসতাম তখন সাওয়ারী হতে তাড়াতাড়ি অবতরণ করে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার হাত মুবারক এবং পা মুবারকে বুছা দিতাম অর্থাৎ চুম্বন করতাম।”
এ সম্পর্কে আরো অনেক নির্ভরযোগ্য কিতাবে উল্লেখ রয়েছে যেমন- ‘ফতহুল বারী’-এর ১১ জিলদ ৫৭ নম্বর পৃষ্ঠায় উল্লেখ আছে যে, “হযরত যায়িদ ইবনে ছাবিত রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি হযরত মালিক ইবনে আনাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার হাত মুবারকে বুছা দিয়েছেন। অপর বর্ণনায় আছে, হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি হযরত আব্বাস আলাইহিস সালাম উনার হাত ও পা মুবারক-এ বুছা দিয়েছেন অর্থাৎ চুম্বন করেছেন।”
অতএব, বুঝা গেলো যে, ক্বদমবুছী ও দস্তবুছী উভয়টাই করা সুন্নত। হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের সুন্নত অর্থাৎ উনাদের অনুসরণ। উনাদের অনুসরণের মধ্যেই রয়েছে বড় নিয়ামত।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে