ছবি ছাড়া সহজেই বিশ্বমানের কার্যকরী সম্মানিত ইসলামী শরীয়তসম্মত পাসপোর্ট ও আইডি কার্ড তৈরি করা সম্ভব।


মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাবীব, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘ছবি আঁকনেওয়ালা ও আঁকানেওয়ালা, তুলনেওয়ালা ও তোলানেওয়ালা প্রত্যেকেই জাহান্নামী।’ নাউযুবিল্লাহ!
বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বায়োমেট্রিক পদ্ধতি ব্যবহার করে বা ফিঙ্গারপ্রিন্টের মাধ্যমে ছবিবিহীন পাসপোর্ট ও আইডি কার্ড তৈরি হচ্ছে। অর্থাৎ ছবি ছাড়া সহজেই বিশ্বমানের কার্যকরী সম্মানিত ইসলামী শরীয়তসম্মত পাসপোর্ট ও আইডি কার্ড তৈরি করা সম্ভব।
তাই মুসলিম শাসকদের জন্য ফরয হচ্ছে- হারাম ছবি পরিহার করে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সম্বলিত পাসপোর্ট ও আইডি কার্ড তৈরী করা ও তা তৈরিতে এবং সমগ্র মুসলিম বিশ্বে প্রচলনে সর্বাত্মক সহায়তা করা।
ক্বায়িম-মাক্বামে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ক্বওল শরীফ:
খলীফাতুল্লাহ, খলীফাতু রসূলিল্লাহ, ছাহিবু সাইয়্যিদিল আ’ইয়াদ শরীফ, আস সাফফাহ, আল জাব্বারিউল আউওয়াল, আল ক্বউইউল আউওয়াল, হাবীবুল্লাহ, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মাওলানা মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা হযরত সুলত্বানুন নাছীর ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন, ‘তোমরা নেকী ও পরহেযগারীতে সহায়তা করো।’ আর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাবীব, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘ছবি আঁকনেওয়ালা ও আঁকানেওয়ালা, তুলনেওয়ালা ও তোলানেওয়ালা প্রত্যেকেই জাহান্নামী।’ বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বায়োমেট্রিক পদ্ধতি ব্যবহার করে বা ফিঙ্গার প্রিন্টের মাধ্যমে ছবিবিহীন পাসপোর্ট ও আইডি কার্ড তৈরি হচ্ছে। ছবি ছাড়া সহজেই বিশ্বমানের কার্যকরী সম্মানিত ইসলামী শরীয়তসম্মত পাসপোর্ট ও আইডি কার্ড তৈরি করা সম্ভব। মুসলিম শাসকদের উচিত ছবি পরিহার করে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সম্বলিত পাসপোর্ট ও আইডি কার্ড তৈরি করা ও তা তৈরিতে এবং সমগ্র মুসলিম বিশ্বে প্রচলনে সর্বাত্মক সহায়তা করা।
হারাম ছবি সম্বলিত পাসপোর্ট ও আইডি কার্ড ব্যবহারে বিশ্বের মুসলমানদের বাধ্য করার প্রতিবাদে নসীহত মুবারক প্রদানকালে তিনি এসব ক্বওল শরীফ উল্লেখ বলেন।

আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, সাইয়্যিদুনা হযরত সুলত্বানুন নাছীর ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন, কাফিররা কল্যাণকর সকল কিছুই গ্রহণ করেছে, করছে মুসলমানদের কাছ থেকে। কিন্তু তারা মুসলমানদের গৌরবমাখা বিষয়গুলো পরিকল্পিতভাবে চুপিয়ে রাখে। নাউযুবিল্লাহ! মুসলমান খলীফা উনারা পূর্বে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রে ফিঙ্গারপ্রিন্ট পদ্ধতি ব্যবহার করতেন। এমনকি এই ভারত উপমহাদেশেও প্রথম ফিঙ্গারপ্রিন্ট বিশারদ ছিলেন একজন মুসলিম। বর্তমানে এই নিয়ে উল্লেখযোগ্য গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে- অপরাধ সনাক্ত করার ক্ষেত্রে ফিঙ্গারপ্রিন্টের কোনো বিকল্প নেই। দিন দিন ছবির ব্যবহারের উপর একটি নেতিবাচক অবস্থা সৃষ্টি হচ্ছে। ছবি ডিজিটাল পদ্ধতিতে পরিবর্তন করা, ছবি প্রতিস্থাপন করা- এসব একটি সাধারণ বিষয়ে পরিণতি হয়েছে। তাছাড়া মূল বিষয় হচ্ছে- সম্মানিত শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে ছবি তোলা ও তোলানো সম্পূর্ণরূপে হারাম ও কবীরা গুনাহ!

আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, সাইয়্যিদুনা হযরত সুলত্বানুন নাছীর ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন, ছবির ব্যবহারে ছুরতান বা বাহ্যিকভাবে উপকার দেখলেও প্রকৃতপক্ষে কোনো উপকার নেই; বরং রয়েছে গুনাহ আর অশান্তি। কাজেই ছবি পরিপূর্ণভাবে পরিহার করতে হবে। কেননা সর্বপ্রকার ছবি তোলা, আঁকা, রাখা সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে হারাম। সুতরাং ৯৮ ভাগ মুসলমান অধ্যুষিত এই বাংলাদেশসহ সকল মুসলিম দেশে ছবি ব্যতীত শুধু ফিঙ্গারপ্রিন্ট সম্বলিত পাসপোর্ট ও আইডি কার্ডের ব্যবহার চালু করতে হবে যা ফরয।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

One Comment

Leave a Reply

[fbls]
  1. al-adil says:

    এটা সকল ঈমানদারগণের প্রাণের দাবী।