পবিত্র আশুরা উনার অন্যতম একটি নছিহত


পবিত্র আশুরা উপলক্ষে দু‘টি রোজা রাখা সুন্নত। যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি যে ব্যক্তি পবিত্র মুহররম মাসকে সম্মান করবেন, তা’যীম-তাকরীম করবেন এবং পবিত্র আশুরা উপলক্ষে রোজা রাখবেন তাঁদের জন্য অনেক নিয়ামত মওজুদ রেখেছেন। মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খতামুন নাবিয়্যিন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘তোমরা পবিত্র মুর্হরম মাস উনাকে তথা পবিত্র আশূরা শরীফ উনাকে সম্মান কর। যে ঈমানদার ব্যক্তি পবিত্র মুর্হরম মাস উনাকে তথা উনার মধ্যস্থিত পবিত্র আশূরা শরীফ উনাকে সম্মান করবেন, মহান আল্লাহ পাক তিনি তাকে জান্নাত দ্বারা সম্মানিত করবেন এবং জাহান্নাম থেকে মুক্তি দান করবেন, সুবহানাল্লাহ! পবিত্র আশূরা উপলক্ষে দু‘টি রোজা রাখতে হয়, কারণ আশূরা উপলক্ষে ইহুদীরা রোজা রেখে থাকে। তারা একটা রোজা রাখে। আর মুসলমান যারা উনাদেরকে আদেশ করা হয়েছে ইহুদীদের বিপরীত করার জন্য অর্থাৎ দু‘টি রোজা রাখার জন্য। এখানে নছীহত হাসিল করতে হবে যে নেক আমল করার ব্যাপারেও ইহুদীদের খেলাপ করতে হবে। তার অর্থ হচ্ছে মুসলমানদের আমল, আখলাক, সিরত-সুরত, পোশাক-পরিচ্ছদ কোন দিক থেকেই কাফির-মুশরেকদের সাথে মিল রাখা যাবে না এবং সবকিছুই মহাসম্মানিত সুন্নত মোতাবিক হতে হবে।
যামানার লক্ষস্থল ওলীআল্লাহ, ইমামে আ’যম, গাউছুল আ’যম মুহ্ইউস্ সুন্নাহ, মুজাদ্দিদে আ’যম, আহলে বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ঢাকা রাজারবাগ শরীফ উনার মামদুহ্ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম সেই বিষয়টাই অনন্তকালব্যাপী জারীকৃত সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ মাহফিল উনার মাধ্যমে সেই তা’লীম দিয়ে যাচ্ছেন। আমাদের সবাইকে কবুল করুন। আমীন!

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

Leave a Reply

[fbls]