পবিত্র রমজান মাসের সম্মানার্থে স্কুল কলেজ গুলো বন্ধ রাখুন!


কথা বলছিলাম প্রবাসী এক ছাত্রের সাথে। জানতে চাইলাম ভিনদেশে পড়া লেখা করার সময় কি সমস্যা হয়? সে ছেলেটি কয়েকটি বিষয় উপস্থাপন করল তার মধ্যে আমি আজকে একটি মাত্র বিষয় উল্লেখ করব।

কথা প্রসঙ্গে আমি তার কাছে জানতে চেয়ে ছিলাম, মুসলমান হিসেবে সে দেশে পড়া লিখা করায় তার কি সমস্যা পড়তে হয়? সে কয়েকটি বিষয় আলোকপাত করল কিন্তু এর মাঝে একটি সূক্ষ্ম বিষয় তার অনুধাবনে এসেছে তা হল। ভিনদেশে মুসলমানদের ঈদের সময় আসলে তাদের স্কুল কলেজ গুলোতে পরীক্ষা শুরু হয়ে যায়। আর এ কারণে তারা ঈদের সময় হাসিখুশি করতে পারে না।

সেটি হতেই পারে একটি বিধর্মী রাষ্ট্রে পড়া লিখা করতে গেলে তারা মুসলমানদের সুযোগ সুবিধা গুলোর প্রতি খেয়াল করবে না। কিন্তু আমাদের দেশের দিকে খেয়াল করুন আজ থেকে ১৫-২০ বছর আগেও রমজান মাস আসলে আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো বন্ধ থাকত। যা ছিল ইবাদত বন্দেগীতে সহায়ক। রোজার মধ্যে যদি স্কুল কলেজ খোলা থাকে অথবা পরীক্ষা পার্বণ থাকে তাহলে অনেক ছাত্রদের পক্ষে রোজা নামাজ করতে কষ্ট হয়।
হাদিস শরীফে আছে রোজার সময় অধীনস্থদের কাজ কমিয়ে দিলে কাল কিয়ামতের ময়দানে আল্লাহ্ পাক তার গুনাহ কমিয়ে দিবেন। পবিত্র রমজান মাসের ইবাদত বন্দেগী সাধারণ অন্য সময় হতে ৭০ গুন বেশী সোয়াব। এ সময় একটি নফল নামাজে ফরজ নামাজের সমান সোয়াব হাসিল হয়। এসময় আল্লাহ্ পাক শয়তানকে বেধে রাখেন বলে এসময় ইবাদত বন্দেগীতে মানুষ মনোযোগী হয়।
তাই মুসলিম দেশের আমরা পবিত্র রমজান মাসের সম্মানার্থে কি পারি না আমাদের স্কুল কলেজ গুলো বন্ধ রাখতে?Peperomia

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে