পবিত্র সাইয়্যিদুল আইয়াদ শরীফ পালনকারীগণের হাশর-নশর হবে হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের সাথে


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার বিশিষ্ট ওলী হযরত ইমাম মারূফ কারখী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “যিনি মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ তথা পবিত্র সাইয়্যিদুল আইয়াদ শরীফ উপলক্ষে খাদ্য প্রস্তুত করবেন এবং মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানার্থে মুসলমান ভাইদের একত্রিত করবেন, বাতি জ্বালাবেন (আলোকের উদ্দেশ্যে), নতুন পোশাক পরিধান করবেন, ধূপ জ্বালাবেন, আতর গোলাপ মাখবেন ক্বিয়ামতের দিন মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার হাশর-নশর করবেন হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের প্রথম দলের সাথে এবং তিনি সুউচ্চ ইল্লীয়ীনে অবস্থান করবেন।” সুবহানাল্লাহ!
এখন ফিকিরের বিষয়, কত ফযীলতপূর্ণ, বরকতপূর্ণ ও সাকীনাপূর্ণ সুমহান পবিত্র মীলাদ শরীফ পাঠ করা, এর তাযীম-তাকরীম করা। হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের শান-মান মর্যাদা তো বলার অপেক্ষাই রাখে না। এখন একজন উম্মত যে পবিত্র মীলাদ শরীফ উনার তা’যীম করবে, সম্মান করবে হাশরের দিন তার অবস্থান হবে হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের সাথে। তাই জিন-ইনসানসহ সমস্ত কায়িনাতের জন্য পবিত্র সাইয়্যিদুল আইয়াদ শরীফ পালন করা ফরযে আইন।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

Leave a Reply

[fbls]