পবিত্র সুন্নতী পোশাক বনাম আরবীয় পোশাক


অনেকক্ষেত্রে ওহাবী-সালাফীসহ বিভিন্ন বাতিল আক্বীদার অন্তর্ভুক্তরা দাবি করে থাকে- “সুন্নতী পোশাক হচ্ছে আরবীয় পোশাক। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যে পোশাক পরেছেন, সেই একই পোশাক তো আবু জেহেল-আবু লাহাবও পরেছে।” নাউযুবিল্লাহ!
মূলত, বাতিল আক্বীদাভুক্তদের এ ধরনের বক্তব্য উদ্দেশ্যমূলকভাবে বিভ্রান্তি ছড়ানোর উদ্দেশ্যে করা হয়; যেন মুসলমান উনারা পবিত্র সুন্নত আমল থেকে দূরে সরে যায়।
এখানে জানার বিষয় হচ্ছে, হযরত আদম ছফিউল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার থেকে শুরু করে প্রত্যেক নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের পোশাক মুবারক হচ্ছে লম্বা কোর্তা, লুঙ্গি, পাগড়ী, রুমাল অর্থাৎ সুন্নতী পোশাক। সর্বশেষ এবং সর্বশ্রেষ্ঠ নবী নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অনুসরণ করতেই সমস্ত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনারা ঐ সুন্নত মুবারক পালন করতেন। সুবহানাল্লাহ!
মূলত, আবু জেহেল বা আবুল লাহাবসহ মক্কার কুরাইশরা মূর্তিপূজা করলেও নিজেদেরকে হযরত ইবরাহীম আলাইহিস সালাম তথা মিল্লাতে ইবরাহীম উনার অনুসারী বলে দাবি করতো। এ কারণেই তারা পবিত্র কা’বা ঘর উনাকে মানতো এবং তাওয়াফ করতো।
যেহেতু হযরত ইবরাহীম আলাইহিস সালাম তিনি নিজেই সুন্নতী পোশাক পরিধান করেছেন, তাই উনাকে অনুসরণ করেই ওই সময়কার কুরাইশরা (যেমন: আবু লাহাব, আবু জেহেল ইত্যাদিরা) সুন্নতী পোশাক পরিধান করতো। অর্থাৎ সুন্নতী পোশাক মানে আবু জেহেল/আবু লাহাবের পোশাক নয়, বরং আবু জেহেল/আবু লাহাবরাই সুন্নতী পোশাক অনুকরণ করতো। তাই পবিত্র সুন্নতী পোশাক মুবারক নিয়ে বাতিলপন্থীদের বিভ্রান্তি কিছুতেই গ্রহণযোগ্য হবে না।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

Leave a Reply

[fbls]