প্রসঙ্গঃ চেয়ারে নামায পড়া: সরকারি মৌলুভীরাই ফতওয়ার বিকৃতি করে


সরকারি মৌলুভীর কাছে ফতওয়া চাওয়া হলো- মসজিদে চেয়ার স্থাপন করে সেখানে অসুস্থ রোগী জামায়াতের সাথে নামায আদায় করতে পারবে কি-না। সরকারি মৌলুভী এমন নতুন মাসয়ালার সদুত্তর দিতে না পেরে হক্কানী আলিম উলামা উনাদের ফতওয়া নকল করে জানিয়ে দিলো- মসজিদে চেয়ারে বসে নামায আদায় করা জায়িয নেই। যাদের টাকা পয়সা ক্ষমতায় সরকারি মৌলুভী লালিত পালিত সেই দুনিয়াদার গং এমন ছহীহ ফতওয়ার বেজায় আপত্তি করলো। সরকারি মৌলুভী পড়লো মহাবিপদে। এদিকে তরকারি মৌলুভীরা যারা মসজিদ কমিটির যাবতীয় হারাম কাজকে হালাল করে সামান্য পয়সার বিনিময়ে তারা হৈ চৈ করে চিৎকার শুরু করলো আমাদের অমুক মুরব্বী তমুক মুরব্বী চেয়ারে বসে নামায পড়ে। কমিটির বিশেষ সদস্যরাও হালকা কোমর ব্যাথায় মসজিদে চেয়ারে বসে নামায পড়ে। অতএব, মসজিদে চেয়ার স্থাপন করা বর্তমান অসুখ-বিসুখের যামানায় জরুরী কর্তব্য। নাউজুবিল্লাহ!

প্রিয় পাঠক! বর্তমানে দেশে একটি অন্যতম আলোচিত বিষয় হলো- চেয়ারে বসে নামায পড়া সংক্রান্ত ফতওয়া। আসল কথা হলো- যে ব্যাক্তি সহজভাবে মাসনূন পদ্ধতিতে মসজিদে জামায়াত আদায় করতে অক্ষম সে ব্যক্তিকে শরীয়তে মা’জুর ধরা হয়। এমন ব্যক্তির জন্য মসজিদে নামায আদায় করতে যাওয়াটা ছাকিত হয়ে যায়। এরপরও এমন ব্যাক্তি যদি জোরপূর্বক মসজিদে চেয়ার স্থাপন করে হলেও নামায আদায় করতে চায়, তবে সেটা তার অসৎ উদ্দেশ্য হবে। তার অহঙ্কার দাম্ভিকতা মসজিদে প্রদর্শন করার অপচেষ্টা বলে গণ্য হবে। সর্বোপরি পবিত্র মসজিদে এমন বিদয়াত চালু করার অপরাধে ইমাম খতীবসহ মসজিদ কমিটির সকলে কঠিন গুনাহগার বলে সাব্যস্ত হবে।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে