প্রসঙ্গ: বাল্যবিবাহ সুন্নত “নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হূযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি পবিত্র ওহী মুবারক ব্যতীত নিজ থেকে কোন কথা মুবারক বলেন না এবং কোন কাজও করেন না”


সম্মানিত পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের মধ্যে বর্ণিত রয়েছে, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হূযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছা হযরত ছিদ্দীকা আলাইহাস সালাম উনার যখন নিসবাতুল আযীম শরীফ (সম্মানিত শাদী মুবারক) সম্পন্ন হয় তখন উনার বয়স মুবারক ছিল ৬ বছর। (সুবহানাল্লাহ) সুতরাং এই সম্মানিত পবিত্র আয়াত শরীফ ও সম্মানিত পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের মাধ্যমে বুঝা যাচ্ছে, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহান আল্লাহ পাক উনার নির্দেশ মুবারকে উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছা হযরত ছিদ্দীকা আলাইহাস সালাম উনার সাথে নিসবাতুল আযীম শরীফ সম্পন্ন করেছেন। সুবহানাল্লাহ!
অতএব, বর্তমানে যারা বাল্যবিবাহের বিরোধীতা করছে তারা মূলত মহান আল্লাহ পাক উনার সম্মানিত আদেশ মুবারক এবং নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হূযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত আমল মুবারক উনাদেরই বিরোধীতা করছে। নাউযুবিল্লাহ! নাউযুবিল্লাহ! নাউযুবিল্লাহ!
আর যারা উনাদের বিরোধীতা করবে তাদের পরিনাম সম্পর্কে মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র সূরা নিসা শরীফ উনার ১৪ নং আয়াত শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “যারা মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের বিরোধীতা করবে বা নাফরমানী করবে তাদেরকে জাহান্নামে প্রবেশ করানো হবে। তারা সেখানে অনন্তকাল থাকবে। তাদের জন্য রয়েছে লাঞ্ছনাদায়ক শাস্তি।” (নাউযুবিল্লাহ)
এই সম্মানিত পবিত্র আয়াত শরীফ উনার দ্বারা স্পষ্টভাবে প্রমাণিত হচ্ছে যে, যারা খাছ সুন্নতী বাল্যবিবাহের বিরোধীতা করবে তারা জাহান্নামী। (নাউযুবিল্লাহ)

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে