ভেবে চিন্তে আইন প্রণয়ন করা উচিত


ওরা না জানে মহাপবিত্র কুরআন শরীফ ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ। আর না জানে নিজেদের ইতিহাস। মেয়েদের বালেগা বা প্রাপ্তা বয়স্ক হওয়ার ন্যূনতম বয়স হচ্ছে ৯ বছর। আর উর্ধ্বতম বয়স হচ্ছে ১৫ বছর। আর ছেলেদের বালেগ বা প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার সর্বোচ্চ সীমা হচ্ছে ১৫ বৎসর। আর ১৫ বছরের আগে যদি বালেগ হওয়ার আলামত বা চিহ্ন প্রকাশ পায় তাহলে উক্ত আলামত প্রকাশ হওয়ার সময় থেকে তাকে বালেগ বা প্রাপ্ত বয়স্ক হিসেবে গণ্য করতে হবে। অন্যথায় ১৫ বৎসর থেকে বালেগ বা প্রাপ্ত বযস্ক হিসেবে গণ্য করতে হবে। অর্থাৎ ছেলে ও মেয়ে উভয়ের ক্ষেত্রে প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার উর্ধ্বতম মুদ্দত সময় হচ্ছে ১৫ বৎসর। আর ১৫ বৎসরের পূর্বে বালেগ বা বালেগা হওয়ার আলামত প্রকাশ পেলে আলামত প্রকাশের সময় হতে বালেগ বা বালেগা হিসেবে গণ্য করতে হবে।
অথচ এই জ্বলজ্যান্ত সত্যকে উপক্ষো করেছে আমাদের দেশের মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়।
এরা বলছে, প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার জন্য ছেলেদের ক্ষেত্রে ২১ বৎসর হতে হবে এবং মেয়েদের জন্য হতে হবে ১৮ বৎসর। নাঊযুবিল্লাহ!
অথচ বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মাকে যখন তার পিতা বিবাহ করেন তখন তার মায়ের বয়স ১৮ বছরে উপনীত হয়নি। বরং ১৮ বছর থেকে অনেক কম বয়স ছিল।
কাজেই, ভেবে চিন্তে আইন প্রণয়ন করা উচিত। জ্ঞানীদের জন্য ইশারাই যথেষ্ট। সর্বোপরি কোনো মুসলমানের জন্য মহাপবিত্র কুরআন শরীফ ও মহাপবিত্র সুন্নাহ শরীফ বিরোধী আইন প্রণয়ন করা উচিত নয়।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে