মহিলাদের সম্মানিত সুন্নতী লিবাস মুবারক, অলংকার ও সাজ-সজ্জা


মহিলাদের সম্মানিত সুন্নতী লিবাস মুবারক, অলংকার ও সাজ-সজ্জা

পবিত্র দ্বীন ইসলাম একটি পরিপূর্ণ জীবন ব্যবস্থা, যার মধ্যে পুরুষ-মহিলা উভয়ের জন্যই পবিত্র সুন্নতী লিবাস-পোশাকসহ মানব জীবনের সকল সমস্যার সুস্পষ্ট সমাধান দেয়া হয়েছে। অনেক আমলই মানুষ ইচ্ছায়-অনিচ্ছায় করে থাকে। উক্ত আমলসমূহের মধ্যে কিছু আমল রয়েছে মূলতঃ পবিত্র সুন্নতী নেক-আমল মুবারক। কিন্তু পবিত্র সুন্নত মুবারক পালণের নিয়তে উক্ত আমলগুলি আদায় না করার কারণে মহান আল্লাহ পাক ও উনার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের রিদ্বামন্দি-সন্তষ্টি এবং ছাওয়াব থেকেও বঞ্চিত হয়। ঐ সকল আমল মুবারক উনার মধ্যে একটি হলো মহিলাদের সম্মানিত সুন্নতী লিবাস মুবারক, অলংকার ও সাজ-সজ্জা সহ সংশ্লিষ্ট বিষয় সমূহ। উক্ত বিষয় সমূহ সম্পর্কে নিম্নে ধারাবাহিকভাবে আলোচনা করা হলোÑ পূর্ব প্রকাশিতের পর…পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে-
عَنْ حَضْرَتْ عَبْدِ اللهِ بْنِ مَسْعُودٍ رَضِىَ اللّٰهُ تَعَالٰى عَنْه عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ الْمَرْأَةُ عَوْرَةٌ فَإِذَا خَرَجَتِ اسْتَشْرَفَهَا الشَّيْطَانُ وَأَقْرَبُ مَا تَكُونُ مِنْ رَبِّهَا إِذَا هِيَ فِي قَعْرِ بَيْتِهَا-
অর্থ: হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসঊদ রদ্বিয়াল্লাহু তায়া’লা আনহু থেকে বর্ণিত: তিনি বলেন, মহিলাদের মাথা থেকে পা পর্যন্ত সমস্ত শরীর পর্দায় আবৃত থাকবে। কেননা, তারা যখন ঘর থেকে বের হয় তখন শয়তান তাদের দ্বারা পাপ কাজ সংঘটিত করার জন্য উকি ঝুকি মারতে থাকে। মহিলারা ততক্ষণ পর্যন্ত মহান আল্লাহ পাক উনার রহমাত মুবারক উনার অধিক নিকটবর্তী থাকেন, যতক্ষণ তারা ঘরের প্রকোষ্ঠে অবস্থান করেন। (মুসনাদে বাযযার-৫/৪২৮, মু’জাুল কাবীর লি-ত্ববারানী-৯/২৯৫, আল-মু’জামুল আওসাত-৩/১৮৯, মুছান্নাফ ইবনে আবী শাইবা- ছহীহ ইবনে খুজাইমা. তিরমিযী শরীফ)হজ্জের সময় ইহরাম অবস্থায় নিকাব পরিধান করা নিষেধ থাকলেও পরপুরুষ থেকে ইহরামের জন্য পরিহিত চাদর দ্বারা হাত ও মুখ আবৃত করা ফরয। যেমন এ বিষয়ে মহাসম্মানিত মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে-
 عَنْ حَضْرَتْ اُمّ الْمُؤْمِنِيْنَ الثَّالِثَةِ الصِّدِّيْقَةِ عَلَيْهَا السَّلَامُ قَالَتْ كَانَ الرُّكْبَانُ يَمُرُّونَ بِنَا وَنَحْنُ مَعَ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ مُحْرِمَاتٌ فَإِذَا حَاذَوْا بِنَا سَدَلَتْ إِحْدَانَا جِلْبَابَهَا مِنْ رَأْسِهَا عَلَى وَجْهِهَا فَإِذَا جَاوَزُونَا كَشَفْنَاهُ-
অর্থ: হযরত উম্মুল মুমিনীন সাইয়্যিদাতুনা আছ-ছালিছা সিদ্দীক্বাহ আলাইহাস সালাম উনার থেকে বর্ণিত: তিনি বলেন, অনেক কাফেলা আমাদের পাশ দিয়ে অতিক্রম করতেছিলেন। তখন আমরা নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে ইহরাম অবস্থায় ছিলাম। কাফেলা আমাদের কাছাকাছি হয়ে গেলে তখন আমাদের নারীরা মাথা থেকে চাদর টেনে নিজেদের মুখমন্ডল ঢেকে নিতেন। কাফেলা চলে গেলে আমারা আমাদের মুখ খুলে ফেলতাম। (আবূ দাউদ শরীফ, মুসনাদে আহমাদ, ইবনে মাজাহ শরীফ, মাছাবীহুস সুন্নাহ-২/২৮৪, শরহুস সুন্নাহ লিল-বাগাভী-৭/২৪০, সুনানুল কুবরা লিল-বাইহাক্বী-৫/৭৫, মা’রিফাতুস সুনানি ওয়াল আছার) মহাসম্মানিত মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে-
حَمَلَهَا وَرَاءَهُ وَجَعَلَ رِدَاءَهُ عَلَى ظَهْرِهَا وَوَجْهِهَا-
অর্থ: খায়বার বিজয়ের পর পবিত্র মদীনা শরীফ উনার দিকে প্রত্যাবর্তনের সময় মহাসম্মানিত মহাপবিত্র হাবীব নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনার বাহন মুবারকে উম্মুল মুমিনীন হযরত আশিরাহ আলাইহাস সালাম উনাকে পিছনে বসিয়ে উনার স্বীয় চাদর মুবারক পিঠের উপর দিয়ে ও মুখের উপর দিয়ে উনাকে ঢেকে নেন। (মুখতাছারু ছহীহিল ইমামিল বুখারী-৩/৫৩, ফী যিলালিল কুরআন, যাদুল মায়া’দ ফী-হাদয়ি খাইরিল ইবাদ-৩/২৯১, দালায়িলুন নবুওয়্যাহ, আত্ব-ত্ববাকাতুল কুবরা)মহাসম্মানিত মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে-ইফকের ওয়াক্বিয়া’ বর্ণনা করতে গিয়ে হযরত উম্মুল মুমিনীন সাইয়্যিদাতুনা আছ-ছালিছা ছিদ্দীক্বাহ আলাইহাস সালাম তিনি বলেন-
فَاسْتَيْقَظْتُ بِاسْتِرْجَاعِهِ حِينَ عَرَفَنِي فَخَمَّرْتُ وَجْهِي بِجِلْبَابِي-অর্থ: একজন ঘুমন্ত মানুষের শরীর দেখতে পেয়ে তিনি(ছফওয়ান ইবনে মুয়া’ত্ত্বাল রদ্বিয়াল্লাহু তায়া’লা আনহু) তিনি আমার দিকে এগিয়ে এলেন, তিনি পর্দার আয়াত শরীফ আবতীর্ণের পূর্বে আমাকে দেখে ছিলেন। ঘুম থেকে জাগ্রত হয়ে আমি আমার চাদর মুবারক দিয়ে চেহারা মুবারক ঢেকে নিলাম। (বুখারী শরীফ, মুসলিম শরীফ, নাসায়ী শরীফ, মুসনাদে আহমাদ, ফয়দ্বুল ক্বদীর-৭/১৫, শুয়াবুল ঈমান-৯/২৫৪, মুসনাদে আবূ ইয়া’লা আল মূছিলী-৮/৩২৫, মুসনাদে ইসহাক ইবনে রাহবিয়াহ-২/৫১৯, মু’জামুল কাবীর

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

Leave a Reply

[fbls]