মুজাদ্দিদে আ’যম সাইয়্যিদুনা রাজারবাগ শরীফ উনার মহাসম্মানিত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার নিকট বাইয়াত হওয়ার আবশ্যকতা


আমরা জানি, হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা যিনি সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, রহমাতুল্লিল আলামীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট বাইয়াত গ্রহণ করে ঈমানদার হয়েছেন, মুসলমান হয়েছেন, হিদায়েত লাভ করেছেন, ছাহাবী হয়েছেন। কিন্তু পরবর্তী উম্মতের জন্য বাইয়াতের বিধান কি রহিত হয়ে গেছে? নাকি আমাদের বাপ-দাদারা মুসলমান সেই সূত্রেই আমরা মুসলমান হয়েছি বলেই আমাদের জন্য বাইয়াত গ্রহণের প্রয়োজন নেই। এ ফতওয়া কে আমাদেরকে শুনালো? এ ফতওয়া আসলে কি ঠিক? সে বিষয় সম্পর্কে আমাদের জানা আবশ্যক নয় কি?
যদি আবশ্যক হয়, তাহলে তো হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম পুরুষ-মহিলা সকলেই যেমনিভাবে বাইয়াত গ্রহণ করে হিদায়েত গ্রহণ করেছেন ও সন্তুষ্টি মুবারক হাছিল করেছেন, ঠিক তেমনিভাবে আমাদেরকেও বাইয়াত গ্রহণ করে হাক্বীক্বী ঈমানদার মু’মিন হওয়ার জন্য কোশেশ করতে হবে এবং হাক্বীক্বী মু’মিন হতে হবে এবং পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ বা হাদীছ শরীফ উনাদের আদেশ নিষেধ মেনে চলতে হবে অর্থাৎ হিদায়েত গ্রহণ ও সন্তুষ্টি মুবারক হাছিল করতে হবে।
এখন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি আমাদের মাঝে নেই, তিনি সম্মানি বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করতঃ রওযা শরীফে অবস্থান মুবারক করছেন। তাহলে উনার অনুপস্থিতে কার নিকট বাইয়াত হতে হবে? এ প্রশ্নের জাওয়াব মূলত যিনি খ¦ালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনিই উনার সম্মানিত কালাম পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করে জানিয়ে দিয়েছেন।
মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-
وَاتَّبِعْ سَبِيْلَ مَنْ اَنَابَ اِلَيَّ ۚ
অর্থ: “যিনি আমার দিকে রুজূ হয়েছেন অর্থাৎ যিনি আল্লাহওয়ালা হয়েছেন উনার পথ অনুসরণ করে চলো।”
উম্মুল কুরআন পবিত্র সূরা ফাতিহা শরীফ উনার মধ্যে নিয়ামতপ্রাপ্ত বান্দা উনাদের পথে চলার জন্য নির্দেশ করা হয়েছে। আর পবিত্র সূরা নিসা শরীফ উনার ৬৯নং পবিত্র আয়াত শরীফ মধ্যে উক্ত নিয়ামতপ্রাপ্ত বান্দা উনাদের সম্পর্কে উল্লেখ রয়েছে যে, উনারা হচ্ছেন নবী, ছিদ্দীক্ব, শহীদ ও ছালিহ। অর্থাৎ নবী হচ্ছেন এক স্তর এবং আগের স্তর। ছিদ্দীক্ব, শহীদ, ছালিহ হচ্ছেন ওলীআল্লাহ উনাদের স্তর এবং পরের স্তর।
হযরত নবী আলাইহিমুস সালাম উনাদের যামানা শেষ হয়ে গেছে বা অতিবাহিত হয়ে গেছে। এখন ওলীআল্লাহ উনাদের যামানা তা অব্যাহত রয়েছে।
অতএব, একজন প্রকৃত আল্লাহওয়ালা বা ওলীআল্লাহ যিনি নূরে মুজাসাসম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পরিপূর্ণ ক্বায়িম-মাক্বাম, উনার সম্মানিত সুন্নত ও সম্মানিত আদর্শ মুবারক উনার পূর্ণ পাবন্দ এবং যিনি শিরক-কুফর, বিদআত-বেশরা, হারাম-নাজায়িয, ফিসক-ফুজুরী যাবতীয় গুনাহখতা থেকে পবিত্র এমন একজন কামিল শায়েখ বা মুর্শিদ উনার নিকট বাইয়াত হতে হবে। আর উক্ত বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন কামিল শায়েখ ও মুর্শিদ ক্বিবলা হচ্ছেন মুজাদ্দিদে আ’যম সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফ উনার সম্মানিত হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি। সুবহানাল্লাহ!

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

Leave a Reply

[fbls]