যাদের ঈমান-আক্বীদা শুদ্ধ নয় তাদেরকে যাকাত দেয়া যাবে না


সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার মাসয়ালা হলো, যারা অমুসলিম অর্থাৎ যারা ঈমানদার নয়, তাদেরকে ফরয-ওয়াজিব ছদকা অর্থাৎ যাকাত, উশর ফিতরা, মান্নত, কাফফারা, কুরবানীর চামড়া বিক্রির টাকা ইত্যাদি কোনোটাই দেয়া জায়িয নেই। একইভাবে যাদের আক্বীদার মধ্যে কুফরী রয়েছে। অর্থাৎ যারা নিজেকে মুসলমান হিসেবে দাবি করে কিন্তু কুফরী আক্বীদা বা বিশ্বাসের কারণে, তারা প্রকৃতপক্ষে মুসলমানের অন্তর্ভুক্ত নয়। এরা ৭২ ফিরকা বা দলে বিভক্ত। এরা সকলেই জাহান্নামী। এদের সম্পর্কে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, আমার উম্মতের মধ্যে ৭৩টি ফিরকা। তার মধ্যে ৭২টি ফিরকা হবে জাহান্নামী; শুধুমাত্র একটি ফিরকা হবে নাজাতপ্রাপ্ত বা জান্নাতী। জিজ্ঞাসা করা হলো নাজাতপ্রাপ্ত ফিরকার অন্তর্ভুক্ত কারা? নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বললেন, আমি এবং আমার অনুসরনকারী হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা যে মত-পথ, আক্বীদা-আমল মুবারক উনাদের উপর রয়েছি উক্ত আদর্শ মুবারকের উপর যারা থাকবেন উনারাই হচ্ছেন নাজাতপ্রাপ্ত বা জান্নাতী ফিরকা। সুবহানাল্লাহ! (আবু দাউদ, তিরমিযী, মিশকাত)
এ পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার ব্যাখ্যায় পবিত্র হাদীছ শরফি উনার প্রসিদ্ধ কিতাব ‘মিশকাত শরীফ’ উনার ব্যাখ্যায় গ্রন্থ ‘মিরকাত শরীফ’ উনার মধ্যে রঈসুল মুহাদ্দিছীন ইমাম হযরত মুল্লা আলী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি লিখেছেন। উম্মতে ইজাবত অর্থাৎ কলেমা শরীফ পাঠকারীদের মধ্যে আক্বীদা ও আমলের ভিত্তিতে ৭৩টি দল হবে, তন্মধ্যে একটি দল হচ্ছে হক, নাজাতপ্রাপ্ত ও জান্নাতী। আর ৭২টি দল হচ্ছে বাতিল, পথভ্রষ্ট ও জাহান্নামী। এ ব্যাপারে আহলু সুন্নত ওয়াল জামায়াত উনাদের ইমাম, মুজতাহিদ ফক্বীহ উনারা সকলেই একমত। ৭২টি বাতিল ফিরকার অন্তর্ভুক্ত তারা হচ্ছে- (১) মু’তাজিলাহ ২০ দলে বিভক্ত, (২) শিয়া ২২ দলে বিভক্ত, (৩) খারিজী ২০ দলে বিভক্ত, (৪) মুরজিয়া ৫ দলে বিভক্ত, (৫) নাজ্জারিয়া ৩ দলে বিভক্ত, (৬) জাবারিয়্যাহ ১ দলে বিভক্ত, (৭) মুশাবিহা ১ দলে বিভক্ত।
উপরোক্ত ৭টি মূল দল তাদের শাখা-প্রশাখার অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে, পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার বর্ণিত ৭২টি জাহান্নামী বাতিল ফিরক্বা বা দল।
স্মরণীয় যে, বর্তমানে কাদিয়ানী, ওহাবী, সালাফী, জামাতী, দেওবন্দী ফিরকা বা দলের সাথে বাতিল, পথভ্রষ্ট বা জাহান্নামী ‘খারিজী’ ফিরকার আক্বীদা ও আমলের সাথে হুবহু মিল বা সাদৃশ্যতা রয়েছে। যার কারণে তাদের আক্বীদা ও শুদ্ধ নয়। ফলে তাদেরকে বা তাদের কোন প্রতিষ্ঠানের ওয়াজিব ছদকা দিলে তা আদায় হবে না।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

Leave a Reply

[fbls]