শাক-সবজি খাওয়া খাছ সুন্নত মুবারক


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট অত্যন্ত প্রিয় ছিলো শাক-সবজি।


======================================

ভাত-তরকারিতো আমাদের বাঙ্গালি জাতির একটি ঐতিহ্য খাবার। আর তরকারির মধ্যেতো শাক-সবজি অবশ্যই থাকবে। শাক-সবজি আমাদের খাবারকে সুস্বাদু করে তোলে। শাক-সবজির কারনে আমরা আমাদের খাবারকে বিভিন্ন স্বাদে উপভোগ করে খেয়ে থাকি। আমাদের অসুস্থতার সময় ডাক্তার আমাদেরকে বেশি বেশি শাক-সবজি খেতে বলেন। শাক-সবজির মধ্যে যেই পরিমান পুষ্টি থাকে, সে পরিমাণ পুষ্টি অন্য কোন ফল-ফ্রুটে এককভাবে থাকে না। শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় খনিজ, ভিটামিন এ, ভিটামিন বি, ভিটামিন সি, ভিটামিন ডি এই সব কিছুরই উৎকৃষ্ট উৎস এই শাক-সবজি।

আর এই শাক-সবজি খাওয়াও খাছ সুন্নত মুবারক উনার অন্তর্ভূক্ত। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি শাক-সবজি অত্যন্ত পছন্দ করতেন এবং তিনি হযরত ছাহবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদেরকেও শাক-সবজি খাওয়ার জন্য আদেশ মুবারক করেছেন।

পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবরক হয়েছে-
عَنِ حضرت جَابِرَ بْنَ عَبْدِ اللَّهِ رَضِيَ اللَّهُ تعالى عَنْهُ زَعَمَ أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم قَالَ ‏”‏ مَنْ أَكَلَ ثُومًا أَوْ بَصَلاً فَلْيَعْتَزِلْنَا ـ أَوْ قَالَ ـ فَلْيَعْتَزِلْ مَسْجِدَنَا، وَلْيَقْعُدْ فِي بَيْتِهِ ‏”‏‏.‏ وَأَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم أُتِيَ بِقِدْرٍ فِيهِ خَضِرَاتٌ مِنْ بُقُولٍ، فَوَجَدَ لَهَا رِيحًا فَسَأَلَ فَأُخْبِرَ بِمَا فِيهَا مِنَ الْبُقُولِ فَقَالَ ‏”‏ قَرِّبُوهَا ‏”‏ إِلَى بَعْضِ أَصْحَابِهِ كَانَ مَعَهُ، فَلَمَّا رَآهُ كَرِهَ أَكْلَهَا قَالَ ‏”‏ كُلْ فَإِنِّي أُنَاجِي مَنْ لاَ تُنَاجِي ‏”‏‏.‏
অর্থঃ “হযরত জাবির ইবনে আবদুল্লাহ রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন,নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবরক করেন, যে ব্যক্তি রসুন বা পিঁয়াজ খায় সে যেন আমাদের থেকে দূরে থাকে অথবা তিনি ইরশাদ মুবারক করেছেন, সে যেন আমাদের মসজিদ থেকে দূরে থাকে এবং নিজ ঘরে বসে থাকে। (অর্থাৎ সে যেন মুখকে পরিস্কার এবং গন্ধমুক্ত করে মসজিদে আসে)

উক্ত সনদে আরো বর্ণিত আছে যে, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট একটি পাত্র আনা হলো যার মধ্যে শাক-সবজি ছিল। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি এর ঘ্রাণ পেলেন এবং এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করলেন, তখন উনাকে সে পাত্রে রক্ষিত শাক-সবজি সম্পর্কে জানানো হলো, তখন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি একজন হযরত ছাহাবি আবূ আইয়ূব রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুকে উদ্দেশ্য করে ইরশাদ মুবারক করলেন, উনার নিকট এগুলো পৌঁছে দাও। কিন্তু তিনি তা খেতে কিছুটা অস্বীকৃতি প্রকাশ করলেন, এ দেখে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বললেন- আপনি খান! কেননা আমি যাঁর সাথে গোপনে আলাপ করি উনার সাথে আপনি আলাপ করেন না (অর্থাৎ খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার সাথে আমার যে আলাপ-আলোচনা মুবারক হয়, সে বিষয়ে আপনারা জানেন না)”। (বুখারী শরীফ)
মাসয়ালা:- কাচাঁ পিয়াজ এবং রসুন খাওয়া মাকরূহ।

পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে আরো ইরশাদ মুবারক হয়েছে-
عَنْ حَضْرَتْ اَنَسٍ رَضِىَ الله تَـعَالـٰى عَنْهُ قَالَ كَانَ اَحَبُّ الطَّعَامِ اِلـٰى رَسُوْلِ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ الْبَـقْلَ
অর্থ: “হযরত আনাস রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট সর্বাধিক প্রিয় খাদ্য মুবারক ছিলেন শাক-সবজি, তরি-তরকারী।” সুবহানাল্লাহ! (আখলাকুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ২/১১৩)

Ñশাক-সবজির কিছু উপকারিতা-
উল্লেখ্য যে, শাক-সবজির উপকারিতা ব্যাপক। প্রতিটি শাক বা সবজির আলাদা আলাদা করে অনেক গুণাগুণ রয়েছে। তবে আমরা উল্লোখযোগ্য কিছু উপকারিতা তুলে ধরবো।
১. কোষ্ঠকাঠিন্য বা পেটের যেকোন সমস্যায় শাক-সবজি বেশ উপকারি।
২. রক্ত স্বল্পতায় ভোগা মানুষের জন্য বেশ উপযোগী এই শাক-সবজি।
৩. প্রাকৃতিকভাবে পেট পরিস্কার করে শাক-সবজি।
৪. নিয়মিত শাক-সবজি খেলে ত্বক ও চুলের ক্ষয় রোধ করে।
৫. শাক-সবজির মধ্যে রয়েছে ভিটামিন এ যা রাতকানা রোগ দূর করে।
৬. ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে শাক-সবজি।
৭. ডায়াবেটিক রুগীদের জন্য শাক-সবজি বেশ উপকারী।
৮. হার্টের জন্য ভাল শাক-সবজি।
৯. শাক-সবজি পেট পরিস্কার করে, রক্ত পরিস্কার করে, ক্ষুধা বাড়ায় এবং কৃমি নাশ করে।
১০. লিভার ভাল রাখে এবং কিডনিতে পাথর হলে শাক-সবজি খেলে তা ইস্তিন্জার (প্র¯্রাবের) সাথে বের হযে যায়।
১১. অর্শ রোগে শাক-সবজি বেশ উপকারী।
১২. শাক-সবজি হার্টের শক্তি বৃদ্ধি, পিত্তজ্বর, কৃমি সাড়ায় এবং শরীর ঠান্ডা রাখে। ওজন কমাতে ও কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। এমনকি ব্লাড সুগার কমাতেও সাহায্য করে শাক-সবজি।

ঢাকা রাজারবাগ দরবার শরীফ উনার মামদুহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা হযরত সুলত্বানুন নাছীর আলাইহিস সালাম তিনি এই সুন্নতী খাবার শাক-সবজিসহ প্রত্যেকটি সুন্নতী বিষয়গুলো কায়িনাতব্যাপী ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠা করেছেন আন্তর্জাতিক পবিত্র সুন্নত প্রচারকেন্দ্র।
তাই আমাদের সকলের দায়িত্ব-কর্তব্য হলো, আন্তর্জাতিক পবিত্র সুন্নত প্রচারকেন্দ্র থেকে প্রত্যেকটি সুন্নতী বিষয় সংগ্রহ করে মহান আল্লাহ পাক এবং নূরে মুাজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের সন্তুষ্টি মুবারক হাছিল করা।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

Leave a Reply

[fbls]