“হাযা হাবীবুল্লাহ মাতা ফী হুব্বিল্লাহ”


মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “সাবধান! নিশ্চয়ই যাঁরা মহান আল্লাহ পাক উনার ওলী উনাদের কোনো ভয় নেই এবং চিন্তা পেরেশানীও নেই।” সুবহানাল্লাহ! (পবিত্র সূরা ইউনুস শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ৬২)
অর্থাৎ যাঁরা মহান আল্লাহ পাক উনার ওলী উনাদের মুবারক তাওয়াল্লুক-নিসবত সম্পর্ক দায়িমীভাবে মহান আল্লাহ পাক উনার ও উনার হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের সাথে। ওলীআল্লাহ অর্থ কি? ওলীআল্লাহ অর্থ হচ্ছে, মহান আল্লাহ পাক উনার বন্ধু। মহান আল্লাহ পাক যিনি সমস্ত কিছুর খালিক্ব মালিক সমস্ত কিছুর সৃষ্টিকারী। উনার রহমত ছাড়া কোনো বান্দা ভালো কাজ করতে পারে না এবং উনার রহমত বিনে হারাম কাজ থেকে বেঁচে থাকাও সম্ভব নয়। তাহলে মহান আল্লাহ পাক উনার সাথে যাদের মুবারক নিসবত, তায়াল্লুক ও মুহব্বত রয়েছে তাদের কিভাবে চিন্তা পেরেশানী থাকতে পারে? মূলত উনারা মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব হয়ে থাকেন। সুবহানাল্লাহ!
যেমন সুলত্বানুল হিন্দ, গরীবে নেওয়াজ, হাবীবুল্লাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে মহান আল্লাহ পাক তিনি ‘হাবীবুল্লাহ’ লক্বব মুবারক হাদিয়া করেছেন। এটা কিন্তু সোজা কথা নয়। কারণ এই লক্বব মুবারক হচ্ছে যিনি সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার। তিনি বলেছেন ‘আমি মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব’। (মিশকাত শরীফ) অথচ সেই লক্বব মুবারকখানি মহান আল্লাহ পাক উনার লক্ষ্যস্থল ওলী- সুলত্বানুল হিন্দ, গরীবে নেওয়াজ হযরত খাজা ছাহিব রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে দান করেছেন। তিনি যখন পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করলেন তখন দেখা গেলো উনার কপাল মুবারকে কুদরতীভাবে সোনালী অক্ষরে ভেসে উঠলো “হাযা হাবীবুল্লাহ মাতা ফী হুব্বিল্লাহ।” অর্থাৎ তিনি মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব, মহান আল্লাহ পাক উনার মুবারক মুহব্বতে পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেছেন। সুবহানাল্লাহ!
কাজেই উনার মর্যাদা-মর্তবা বেমেছাল যা বলার অপেক্ষাই রাখে না। মহান আল্লাহ পাক তিনি স¦য়ং উনার পবিত্র বিছাল শরীফ উনার সময় উনার মর্যাদা ও মর্তবার প্রমাণ পেশ করলেন। সুবহানাল্লাহ!

khwaja_ajmer_sharif

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

Leave a Reply

[fbls]