৯৮ ভাগ মুসলমান ও রাষ্ট্রদ্বীন ইসলাম উনার দেশের সরকার প্রধান ওয়াদা করেছে- ‘পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের বিরোধী কোনো আইন পাস করবে না এবং উনাদের বিরোধী কোনো আইনও দেশে চলবে না।’


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- “মহান আল্লাহ পাক তিনি যা নাযিল করেছেন তা অর্থাৎ পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ অনুসরণ করো।” সুবহানাল্লাহ!
৯৮ ভাগ মুসলমান ও রাষ্ট্রদ্বীন ইসলাম উনার দেশের সরকার প্রধান ওয়াদা করেছে- ‘পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের বিরোধী কোনো আইন পাস করবে না এবং উনাদের বিরোধী কোনো আইনও দেশে চলবে না।’ তাই, সরকারের উচিত আসন্ন মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ উনার সম্মানার্থে- আইন করে দেশে শরয়ী পর্দা চালু করা, বাল্যবিবাহ বিরোধী আইন বাতিল করে বাল্যবিবাহকে সুন্নত হিসেবে স্বীকার করে নেয়া এবং ছবি, গান-বাজনা, টিভি, সিনেমা, খেলাধুলা, মূর্তি, মদ, জুয়া, সুদ, ঘুষ, সৌন্দর্য্যরে প্রতিযোগিতা, পতিতাবৃত্তিসহ সর্বপ্রকার হারাম ও শরীয়তবিরোধী কাজ আইন করে বন্ধ করে দেয়া।
এককথায়, সরকারের দায়িত্ব ও কর্তব্য হলো- খুব দ্রুত পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ মুতাবিক সংবিধান সংশোধন করা এবং সে অনুযায়ী দেশ পরিচালনা করা।
– ক্বওল শরীফ: সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম
যামানার লক্ষ্যস্থল ওলীআল্লাহ, যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্ইউস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যূল আউওয়াল, সুলত্বানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদে রসূল, মাওলানা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, দেশের সরকারপ্রধানের উচিত- ৯৮ ভাগ মুসলমান অধ্যুষিত দেশে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার সম্পর্কে যে ওয়াদা দেয়া হয় তা অক্ষরে অক্ষরে পালন করা। কারণ ওয়াদার খিলাফ করা মুসলমানের কাজ নয়। উল্লেখ্য, দেশের সরকারপ্রধান দেশের ৯৮ ভাগ জনগোষ্ঠী মুসলমান উনাদেরকে অনেকবার ওয়াদা দিয়েছে। যেমন- ‘মদীনা সনদ ও নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র বিদায় হজ্জ উনার ভাষণের নির্দেশনা অনুসারে দেশ পরিচালনা করা হবে; এ সরকার পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের বিরোধী কোনো আইন পাস করবে না; পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের বিরোধী কোনো কাজও করবে না’ ইত্যাদি ইত্যাদি বলে জনগণকে আশ্বস্ত করা হয়েছে। এ সরকার নারীনীতি সম্পর্কে পরিষ্কারভাবে বলেছে- আন্তর্জাতিক আইনের মধ্যে নারীনীতি সম্পর্কে পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনার বিরোধী কিছু থাকলে বাংলাদেশের ক্ষেত্রে তা প্রযোজ্য হবে না।

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, সরকারের উপরোক্ত বক্তব্য অনুযায়ী উচিত- আসন্ন মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ উনার সম্মানার্থে- আইন করে দেশে শরয়ী পর্দা চালু করা, বাল্যবিবাহ বিরোধী আইন বাতিল করে বাল্যবিবাহকে সুন্নত হিসেবে স্বীকার করে নেয়া এবং ছবি, গান-বাজনা, টিভি চ্যানেল, সিনেমা, খেলাধুলা, মূর্তি, ভাস্কর্য, মদ, জুয়া, সুদ, ঘুষ, সৌন্দর্য্যরে প্রতিযোগীতা, পতিতাবৃত্তিসহ সর্বপ্রকার হারাম ও শরীয়তবিরোধী কাজ আইন করে বন্ধ করে দেয়া।

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, মদীনা সনদ মহান আল্লাহ পাক উনার রুবুবিয়ত এবং মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার রিসালত উনাকে প্রকাশ করেই সম্পন্ন হয়। পাশাপাশি সব ক্ষেত্রে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সর্বময় কর্তৃত্ব ও প্রাধান্য স্বীকার করে তথা উনাকে সর্বময় প্রধান হিসেবে মেনেই মদীনা সনদ সম্পন্ন হয়। সেক্ষেত্রে সরকারপ্রধানের উচিত- সংবিধান থেকে ধর্মনিরপেক্ষতা তুলে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার হুকুম জারি করা এবং দেশে প্রচলিত ব্রিটিশ আইন তুলে দিয়ে সম্পূর্ণ শরঈ আইনের ভিত্তিতে আইন-আদালত পরিচালনা করা।

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, বিদায় হজ্জের খুতবা মুবারক অনুযায়ী দেশ পরিচালনা করতে হলে পরিপূর্ণ পবিত্র দ্বীন ইসলাম জারি করতে হবে। কারণ বিদায় হজ্জ উনার মধ্যে পবিত্র সূরা মায়িদা শরীফ উনার ৩নং পবিত্র আয়াত শরীফ নাযিল হয়; উক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ হলো- “আজ আমি তোমাদের পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনাকে কামিল বা পরিপূর্ণ করে দিলাম, তোমাদের প্রতি আমার নিয়ামত মুবারক তামাম বা পূর্ণ করে দিলাম এবং আমি তোমাদের পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার প্রতি সন্তুষ্ট হলাম।” সুবহানাল্লাহ! অতএব, সরকারের উচিত- এই পবিত্র আয়াত শরীফ অনুযায়ী প্রচলিত গণতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতাবাদ ইত্যাদি বাদ দিয়ে দেশকে পবিত্র দ্বীন ইসলাম অর্থাৎ খিলাফত আলা মিনহাজিন নুবুওওয়াহ অনুযায়ী পরিচালনা করা।

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ অর্থাৎ পবিত্র ওহী মুবারক দ্বারা যা নাযিলকৃত, তা অপরিবর্তনীয় আর সংবিধান হচ্ছে- মানবরচিত, যা পরিবর্তনযোগ্য। অতএব, ৯৮ ভাগ মুসলমানের দেশের সরকার যেহেতু অনেকবার ওয়াদা করেছে যে, ‘পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের বিরোধী কোনো আইন পাস হবে না’-
সেহেতু সরকারের দায়িত্ব ও কর্তব্য হলো- খুবদ্রুত পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের আলোকে বাংলাদেশের সংবিধান সংশোধন করা। অর্থাৎ সরকারের উচিত- আইন করে দেশে শরয়ী পর্দা চালু করা, বাল্যবিবাহ বিরোধী আইন বাতিল করে বাল্যবিবাহকে সুন্নত হিসেবে স্বীকার করে নেয়া এবং ছবি, গান-বাজনা, টিভি চ্যানেল, সিনেমা, খেলাধুলা, মূর্তি, ভাস্কর্য, মদ, জুয়া, সুদ, ঘুষ, সৌন্দর্য্যরে প্রতিযোগীতা, পতিতাবৃত্তিসহ সর্বপ্রকার হারাম ও শরীয়তবিরোধী কাজ আইন করে বন্ধ করে দিয়ে ওয়াদা পুরন করা। আর এবিষয়ে যেকোনো সহযোগীতা ও পরামর্শ চাইলে, আমরা সর্বাত্মকভাবে সে বিষয়ে সহযোগীতা ও পরামর্শ দিতে পারবো। ইনশাআল্লাহ!

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে