ফরাজী ভাই -blog


...


 


হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক মর্যাদা ও শ্রেষ্ঠত্বের পরিপূর্ণ মিছদাক হচ্ছেন উনার মহাসম্মানিত হযরত আহলু বাইত


মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাবীব, নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, আমরা মহাসম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম। আমাদের সাথে কাউকে তুলনা করা যাবে না। সুবহানাল্লাহ! খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার পরেই



জুমাদাল ঊলা শরীফ মাস উনার চাঁদ তালাশ করতে হবে আগামী ২৯শে রবীউছ ছানী শরীফ ১৪৪৩ হিজরী, ৬ই সাবি’ ১৩৮৯


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘আপনি বান্দা-বান্দী উনাদেরকে মহান আল্লাহ পাক উনার বিশেষ বিশেষ দিনগুলো স্মরণ করিয়ে দিন।’ সুবহানাল্লাহ! বাংলাদেশে পবিত্র জুমাদাল ঊলা শরীফ মাস উনার চাঁদ তালাশ করতে হবে আগামী ২৯শে রবীউছ ছানী শরীফ ১৪৪৩



সাত ব্যক্তির সমালোচনা করলে গীবত হয় না।


গীবত একটি অত্যন্ত নিন্দনীয় বদ স্বভাব যা মানুষকে ধ্বংসেরর দিকে টেনে নিয়ে যায়।যার জন্য মানুষের ঈমান, আমল ধ্বংস হয়ে যায়।এখন কথা হলো কার কার পিছনে সমালোচনা করলে গীবত হবে। আর কার কার পিছনে সমালোচনা করলে গীবত হবে না তা জেনে নেওয়া



অধিকাংশ লোকের অনুসরণ করা কতটুকু শরীয়তসম্মত?


অধিকাংশ লোকের অনুসরণ করা কতটুকু শরীয়তসম্মত? বর্তমানে প্রায়ই শুনা যায় অমুক অমুক মালানা, মুফতী, মুফাসসির, মুহাদ্দিস, ইমাম খতিব, বক্তারা ছবি তুলে, ভিডিও করে বেপর্দা হয় , গান শুনে ,সূদ ও ঘুষের লেনদেন করে । এমনকি দুনিয়ার অধিকাংশরাই এই কাজ করে ,



বিষয়ঃ মেয়েদের মুখমন্ডল এবং হাত খোলা রাখলে কি পর্দা হবে?


বিষয়ঃ মেয়েদের মুখমন্ডল এবং হাত খোলা রাখলে কি পর্দা হবে? প্রশ্ন: মেয়েদের পর্দা বিষয়ে বর্তমান সময়ে বিভিন্ন বক্তার নানান বক্তব্য শুনতে পাচ্ছি। কেউ বলেছে মুখমন্ডলসহ সমস্ত শরীর ঢাকা পর্দা আবার কেউ বলে মুখমন্ডল খোলা রাখলেও পর্দা হবে। আসলে পর্দার বিষয়ে ছহীহ



পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার গুরুত্বঃ


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বলা হয়েছে- عن حضرت العرباض بن سارية رضى الله تعالى عنه قال قام رسول الله صلى الله عليه وسلم فقال ايحسب احدكم متكئا على اريكته يظن ان الله لم يحرم شيئا الا ما فى هذا القران



এক নজরে সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বৎসর


এক নজরে সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বৎসর ভিত্তিক মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় জীবনী মুবারক যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, وَرَفَعْنَا لَكَ ذِكْرَكَ. অর্থ:



১২ই রবীউল আউওয়াল শরীফ ই সঠিক তারিখ


সহীহ ও নির্ভুল সনদে বর্ণিত রয়েছে عَنْ حَضْرَتْ عَفَّانَ رَحْـمَةُ اللهِ عَلَيْهِ عَنْ حَضْرَتْ سَلِيْمِ بْنِ حَيَّانَ رَحْـمَةُ اللهِ عَلَيْهِ عَنْ حَضْرَتْ سَعِيْدِ بْنِ مِينَا رَحْـمَةُ اللهِ عَلَيْهِ عَنْ حَضْرَتْ جَابِرِ بْنِ عَبْدِ اللهِ الْأَنْصَارِيّ وَحَضْرَتْ عَبْدِ اللهِ بْنِ عَبَّاسٍ رَضِىَ



সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মুবারক তাজদীদ – সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ তথা সকল ঈদের সেরা ঈদ, ঈদে মীলাদে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া


সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মুজাদ্দিদ, মুজাদ্দিদে আ’যম, ইমাম রাজারবাগ শরীফ উনার মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার মুবারক তাজদীদ আন নাযীরু, আন নাজমুছ ছাক্বিবু, আন নূরুম মুজাসসামু, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিলাদত শরীফ উনার দিনই হচ্ছে সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ,



সুমহান বরকতময় মহাপবিত্র ১৯শে শাওওয়াল শরীফ। সুবহানাল্লাহ! যেই বিশেষ দিনটি হলো আখাছ্ছুল খাছ হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘হে হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি তাদেরকে (উম্মাহকে) আমার বিশেষ বিশেষ দিনগুলো স্মরণ করিয়ে দিন।’ সুবহানাল্লাহ! আজ সুমহান বরকতময় মহাপবিত্র ১৯শে শাওওয়াল শরীফ। সুবহানাল্লাহ! যেই বিশেষ দিনটি হলো আখাছ্ছুল খাছ হযরত আহলু বাইত



পবিত্র শাওওয়াল শরীফ মাসে ৬টি রোযা রাখুন, অফুরন্ত নিয়ামত হাছিল করুন


পবিত্র রমাদ্বান শরীফের পরের মাস পবিত্র শাওওয়াল শরীফ। পবিত্র রমাদ্বান শরীফে পূর্ণ মাস রোযা পালন করা ফরজ, পবিত্র শাওওয়াল শরীফ মাসে ৬টি রোযা রাখা খাছ সুন্নত মুবারক এবং অফুরন্ত ফযীলত লাভের কারণ। এ রোজা পালনের মর্যাদা অনেক বড়, যা হাক্বীক্বী সন্তুষ্টি



হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি মুহব্বতের বিষয়টিই কেবল জাতি-দ্বীন নির্বিশেষে সার্বজনীন বলে বিবেচিত হতে পারে


“নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি শুধুমাত্র মহান আল্লাহ পাক তিনি নন, এছাড়া বাকি সব” এই ক্বওল শরীফ খানা উনার মর্ম যদি মুসলমানরা উপলব্ধি করতে পারত, সমস্ত কিছু বাদ দিয়ে এই একখানা ক্বওল শরীফ উনার চর্চায় মশগুল