মানুষ -blog


...


 


পবিত্র ১১ই যিলক্বদ শরীফ দিনটিও ‘আইয়্যামিল্লাহ’ উনার অন্তর্ভুক্ত অর্থাৎ পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ


ايام الله (আইয়্যামিল্লাহ) অর্থ মহান আল্লাহ পাক উনার দিনসমূহ। এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার কালাম পাক উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, وَذَكِّرْهُم بِأَيَّامِ اللَّـهِ ۚ إِنَّ فِي ذَٰلِكَ لَآيَاتٍ لِّكُلِّ صَبَّارٍ شَكُورٍ অর্থ: “তাদেরকে মহান আল্লাহ পাক উনার দিনসমূহের



সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খতামুন নাবিইয়ীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সীমাহীন ফযীলত, মর্যাদা-মর্তবা


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘(হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!) আমি আপনার সম্মানিত যিকির বা মর্যাদাকে সমুন্নত করেছি।’ সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খতামুন নাবিইয়ীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সীমাহীন ফযীলত,



ভেঙে যাচ্ছে সমাজ, ভেঙে যাচ্ছে পরিবার, নেপথ্যে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন


প্রচলিত সমাজের মতে, মানুষের মৌলিক চাহিদা হলো- অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা ও চিকিৎসা। কিন্তু দ্বীন ইসলামে আরও একটি মৌলিক চাহিদা আছে, সেটা হলো- বিবাহ। কিন্তু মানুষের অন্যতম এই মৌলিক চাহিদাকে বাদ দিয়েছে চক্রান্তকারী ইসলবিরোধীগোষ্ঠীরা। কারন তারা যেমন নিজেরাও ব্যভিচার ও বেহায়াপনার



হাঁচি মহান আল্লাহ পাক উনার পক্ষ হতে রহমত স্বরূপ এবং সুন্নত উনার অন্তর্ভুক্ত। তাই হাঁচিকে অবজ্ঞা করা হারাম ও


সাধারণভাবে হাঁচি হলো শ্বাসযন্ত্রের অনেকগুলো প্রতিরক্ষা কবচের একটি। শরীরের জন্য অনাকাঙ্খিত কোন বস্তুকণা বা জৈব কলা, যখন আমাদের শ্বাসযন্ত্রের উপরিভাগে ঢুকে পড়ে, তখন তা বের করে দেবার জন্য শ্বাসযন্ত্র অত্যন্ত সমন্বিত প্রক্রিয়ায় বিপুল পরিমাণে বাতাস ফুসফুসে ঢুকিয়ে তা প্রবল বেগে বের



সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে- পবিত্র তারাবীহ নামায উনার গুরুত্ব ও ফযীলত


পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাসের ফযীলত ও গুরুত্ব পবিত্র তারাবীহ্ নামায উনার সম্পর্ক যেহেতু পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাস উনার সাথে, সেহেতু পবিত্র তারাবীহ্ নামায উনার গুরুত্ব, ফাযায়েল ও আহ্কাম বুঝতে হলে আমাদেরকে সর্বপ্রথম পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাস উনার গুরুত্ব, তাৎপর্য ও ফাযায়েল



৫টি প্রশ্নের জাওয়াব না দেয়া পর্যন্ত হাশরের ময়দানে কেউ তার পা নড়াতে পারবে না


ফক্বীহুল উম্মত হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বর্ণনা করেন। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ক্বিয়ামতের দিন পাঁচটি প্রশ্নের জাওয়াব না দেয়া পর্যন্ত কেউ এক পা নড়াতে পারবে না। (১) তার



সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল মু’মিনীন আল আল হাদিয়া আশার আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত সাওয়ানেহ উমরী মুবারক


পরিচিতি মুবারক: সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল মু’মিনীন আল হাদিয়াহ আশার আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত নাম মুবারক হচ্ছেন হযরত উম্মে হাবীবা বিনতে আবি সুফিয়ান আলাইহাস সালাম। তিনি কুরাইশ গোত্রের উমাইয়া শাখার অন্তর্ভূক্ত। হযরত হাবীবাহ রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা উনার মেয়ের নাম,



সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছালিছ আলাইহিস সালাম উনার সংক্ষিপ্ত পবিত্র সাওয়ানেহ উমরী মুবারক


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার আখাছছুল খাছ মনোনীত ব্যক্তিত্বগণ উনাদের মধ্যে ইমামুছ ছালিছ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম তিনি অন্যতম। বলার অপেক্ষা রাখে না যে, সাইয়্যিদুশ শুহাদা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ



নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পক্ষ থেকে সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম উনার


মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, عَن حَضْرَتْ بُرَيْدَةَ رَضِىَ اللهُ تَعَالـٰى عَنْهُ قَالَ فَلَمَّا كَانَ لَيْلَةُ الْبِنَاءِ قَالَ يَا حَضْرَتْ عَلِيُّ كرم الله وجهه عَلَيْهِ السَّلَامُ لاَ تُحْدِثْ شَيْئًا حَتَّى تَلْقَانِي فَدَعَا النَّبِيُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ



সৌন্দর্যবর্ধন বা যে কোনো প্রয়োজনে পবিত্র মসজিদ ভাঙ্গা বা স্থানান্তর করা সম্পূর্ণরূপে হারাম, কবীরা গুনাহ ও কুফরী। নাউযুবিল্লাহ!


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, আপনি তো অবশ্যই জানেন যে, আমি আছহাবে ফীল বা আবরাহার কি অবস্থা করেছি! সম্মানিত শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে- রাস্তা উন্নয়ন, নদী সংরক্ষণ, মেট্রোরেল, ফ্লাইওভার নির্মাণ, সৌন্দর্যবর্ধন বা যে কোনো প্রয়োজনে পবিত্র মসজিদ ভাঙ্গা বা স্থানান্তর



পবিত্র রজবুল হারাম শরীফ মাস উনার মধ্যে রোযা রাখার ফযীলত


হযরত আনাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “যে ব্যক্তি হারাম মাসে (যিলক্বদ, যিলহজ্জ, মুর্হরম ও রজব) তিন (৩) দিন রোযা রাখবে, তার জন্য নয় (৯)



পবিত্র রজবুল হারাম মাসে ইবাদতের পুরস্কার


হিজরী পঞ্চম শতাব্দীর মুজাদ্দিদ, হুজ্জাতুল ইসলাম হযরত ইমাম গাযযালী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি উনার সুপ্রসিদ্ধ ‘মুকাশাফাতুল কুলূব’ কিতাবে বর্ণনা করেন, “এক মহিলা রজব মাসে প্রতিদিন বাইতুল মুকাদ্দাস শরীফ-এ গিয়ে বারো হাজারবার সূরা ইখলাছ পাঠ করতেন। উনার আদত ছিল, রজব মাসে তিনি নিয়মিত