মাসউদুর রহমান -blog


...


 


আজ সুমহান ও বরকতময় মহাপবিত্র ৬ই যিলহজ্জ শরীফ। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুত তাসি’ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘আমার সেই উম্মতের জন্য আমার শাফায়াত মুবারক ওয়াজিব, যে উম্মত আমার হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করেন।’ সুবহানাল্লাহ! আজ সুমহান ও বরকতময় মহাপবিত্র ৬ই যিলহজ্জ



সুমহান মহাপবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাস উনার মহাসম্মানিত আইয়্যামুল্লাহ শরীফ উনাদের অন্তর্ভূক্ত। সুবহানাল্লাহ!


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘মহান আল্লাহ পাক উনার নিদর্শন সম্বলিত দিবসগুলিকে স্মরণ করিয়ে দিন সমস্ত কায়িনাতকে। নিশ্চয়ই এর মধ্যে ধৈর্যশীল ও শোকরগোজার বান্দা-বান্দী উনাদের জন্য ইবরত ও নছীহত রয়েছে।’ সুবহানাল্লাহ! সুমহান মহাপবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাস উনার ২, ৬,



সবাই টিভি দেখা বন্ধ করে দিলেইতো এই হারামীপনা বন্ধ হয়ে যায়


মুসলমানগণ আজ নিজেদের অনেক দুর্বল ও অসহায় মনে করে। হীনম্মন্যতায় ভোগে। কিন্তু আসলে ব্যাপারটি কখনোই এরকম হওয়ার কথা ছিলো না। মুসলমান আজ কোন অন্যায়, অত্যাচারের বিরুদ্ধে বলতে কার্পণ্য করে, হারাম-নাজায়িজ কাজের প্রতিবাদ করতে চায় না। কিন্তু মুসলমানরা যদি প্রতিবাদ স্বরূপ নিজেরাই



মহান আল্লাহ পাক উনার উপর পূর্ণ আস্থা এবং বিশ্বাস রাখা ফরয; তাই সরকারকে সংবিধানে বিষয়টি অবশ্যই পুনঃস্থাপন করতে হবে


বর্তমান নির্বাচনের পূর্বে বাংলাদেশের শতকরা ৯৮ ভাগ মুসলমানদের নিকট ওয়াদা করেছিল- তারা ক্ষমতায় আসলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করবে এবং পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের বিরোধী কোনো আইন পাস হবে না। এই বিষয়টির সহজ সরল ব্যাখ্যা হচ্ছে- পবিত্র কুরআন শরীফ,



ছবিবিহীন পবিত্র হজ্জ পালন করার ব্যবস্থা করা সকল মুসলিম দেশের সরকারের দায়িত্ব ও কর্তব্য


অঙ্কন করা ও ছবি তোলা ইসলামবিরোধী কাজ। যে ব্যক্তি ছবি তোলে বা তোলায় সে ব্যক্তি চরম ফাসিক। ছবি তোলা এবং পর্দা লঙ্ঘন করা খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার ও উনার রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর



দ্বীন ইসলাম থেকে সরিয়ে দিতেই আজগুবি বেহুদা দিবসের প্রচলন!


অন্যের ঘরের পিঠার ঘ্রাণ বেশি। একটা প্রচলিত কথা। কথাটির মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হলো, নিজের যা আছে তাতে সে খুশি নয় কিংবা অন্যের যা আছে সেটাকেই বেশি উৎকৃষ্ট মনে করা। এটাকে হীনম্মন্যতা কিংবা এধরনের মানসিকতার অধিকারীকে মানসিক বিকারগ্রস্তও বলা যায়। দুঃখজনক হলেও



সামাজিক দায়িত্ব বনাম ঈমানী দায়িত্ব !!


শুধু কেবল রাজধানী ঢাকা বা অন্যান্য, জেলা শহরগুলোতেই নয়, এখন প্রায় প্রতিটি গ্রামেই ছোটবড় বিভিন্ন রকম সমিতি, সংগঠন দেখা যায়। যেমন- ….যুব কল্যাণ সমিতি, …. সামাজিক সংস্কৃতি পরিষদ, …. সমাজ কল্যাণ সমিতি -এরকম আরো নানারকম নামের সংগঠন এখন চোখে পড়ার মতো



তিনি “ইছনাইনিল আযীম শরীফ” (সোমবার) মহাপবিত্র ও মহাসম্মানিত বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করার কারণে এ মুবারক দিবসটি হচ্ছেন- সাইয়্যিদু


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইছনাইনিল আযীম শরীফ (সোমবার) পবিত্রতম বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন।” সুবহানাল্লাহ! নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি “ইছনাইনিল আযীম



মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র আইয়্যামুল্লাহ শরীফ পালন করা সকলের জন্য ফরযে আইন


যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক وَذَكِّرْهُمْ بِاَيَّامِ اللهِ اِنَّ فِـىْ ذٰلِكَ لَاٰيٰتٍ لِّكُلِّ صَبَّارٍ شَكُوْرٍ অর্থ: “আর আপনি তাদেরকে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র আইয়্যামুল্লাহ শরীফ তথা মহান আল্লাহ পাক উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বিশেষ বিশেষ দিন মুবারক



আন্তর্জাতিক পবিত্র সুন্নত মুবারক প্রচার কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন মহাসম্মানিত পবিত্র সুন্নত মুবারকসমূহ কালামুল্লাহ শরীফ উনার অনুরূপ বরং


মহাসম্মানিত হাবীব নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে পবিত্র কালামুল্ল্হা শরীফ হাদিয়া মুবারক করার সাথে সাথে অনূরূপ তথা মহাপবিত্র সুন্নত মুবারকও হাদিয়া মুবারক করা হয়েছে বরং মহাসম্মানিত সুন্নত মুবারক কালামুল্লাহ শরীফ থেকেও বেশী গুরুত্বপূর্ণ বলা হয়েছে। সুবহানাল্লাহ!



চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের নামে মুসলমানদের থেকে ছিনিয়ে নেয়া সম্পত্তি ফেরত দিতে হবে


ব্রিটিশরা এই উপমহাদেশে আসার পূর্বে ৯৯ ভাগ জমির মালিক ছিল মুসলমানগণ। মুসলমান উনাদের আরদালি ছিল সমস্ত বিধর্মীরা। বিধর্মীদের ইসলামী লিবাস ও ফার্সী ভাষা শিক্ষা ছিল বাধ্যতামূলক। যা পরিধান করে চাকরি-ব্যবসা বাণিজ্য করতে হত। ব্রিটিশরা যখন উপমহাদেশে মুসলিম শাসক ক্ষমতা ছিনিয়ে নিলো



রাস্তায় মিছিল-মিটিং হয়, কিন্তু কুরবানীর পশুর হাট ও পশু জবাই করতে বাধা কেন?


আমরা মুসলমান। মুসলমান অর্থই হলো মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার হাবীব সাইয়্যিদুল মুরসালীন ইমামুল মুরসালীন খাতামুন্্ নাবিয়্যীন নূরে মুজাস্সাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের প্রতি আনুগত্যের সহিত আত্মসমর্পণ করা। আর মহান আল্লাহ পাক তিনি এবং উনার হাবীব