আহমদ হুসাইন -blog


...


 


শাক-সবজি খাওয়া খাছ সুন্নত মুবারক


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট অত্যন্ত প্রিয় ছিলো শাক-সবজি। ====================================== ভাত-তরকারিতো আমাদের বাঙ্গালি জাতির একটি ঐতিহ্য খাবার। আর তরকারির মধ্যেতো শাক-সবজি অবশ্যই থাকবে। শাক-সবজি আমাদের খাবারকে সুস্বাদু করে তোলে। শাক-সবজির কারনে আমরা আমাদের খাবারকে বিভিন্ন



দস্তরখানায় খাবার খাওয়া খাছ সুন্নত মুবারক ও ফযীলত মুবারক সম্পর্কে


দস্তরখানায় খাবার খাওয়া খাছ সুন্নত মুবারক বরকতপূর্ণ সুন্নতী আমল: খাবারের সময় দস্তরখানা ব্যবহার করার ফযীলত। ****************************** মুসলমান হিসেবে পবিত্র সুন্নত মুবারক পালন করা সর্বক্ষেত্রে ফরয। আর খাওয়ার সময় সম্মানিত সুন্নত মুবারক পালন করতে হলে দস্তরখানা একটি অপরিহার্য বিষয়। চামড়ার যে বিশেষ



কারামতে ও শানে উম্মুল উমাম আলাইহাস সালাম ৬ষ্ঠ পর্ব


যিনি কঠিন অবস্থাতেও মহান আল্লাহ পাক এবং উনার হাবীব নূরে মুজাসসাম ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের মুহব্বতে গরক্ব ঘটনাটি ইয়াওমুল ইছনাইনিল আ’যীম শরীফ, ১৪৪০হিজরী ১৪ই রমাদ্বান শরীফ উনার। সেদিন তালিমী মজলিসে আলোচনাকালে অন্য দিনের তুলনায় সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল উমাম আলাইহাস সালাম



মোছ রাখার ব্যাপারে শরয়ী বিধান


মোছ রাখার ব্যাপারে শরয়ী বিধান ********************** মোছ বা গোফ ছোট ছোট করে ভ্রুর ন্যায় রাখতে হবে। মোছ অধিক লম্বা রাখা যেরূপ নাজায়িয তদ্রূপ সম্পূর্ণ চেছে ফেলাও নাজায়িয। গ্রহণযোগ্য মতে মোছ চেছে ফেলা বা মুণ্ডন করা মাকরূহ তাহরীমী ও বিদয়াতে সাইয়্যিয়াহ, কারো



ফরয নামাযের পর হাত তুলে মুনাজাত করা সুন্নত মুবারক


ফরজ নামাজের পর ইমাম মুক্তাদি সম্মিলিত ভাবে হাত তুলে দোয়া/মুনাজাত করার স্পষ্ট দলীল সমূহ বিশ্লেষণ : উপরোক্ত বিষয়টা নিয়ে একশ্রেনীর লোক অনেক ফিৎনা করে। অনেক সময় বিভিন্ন মসজিদে দেখা যায় ইমাম হাত তুলে সম্মিলিত মুনাজাত করছে অথচ এরা হাত শক্ত করে



♦ মুহম্মদিয়া জামিয়া শরীফ মাদরাসা ♦


ভর্তি বিজ্ঞপ্তি❗️ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি❗️ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি❗ ♦>>>> মুহম্মদিয়া জামিয়া শরীফ মাদরাসা <<<<♦ 💞এতদ্বারা সকলের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, মুহম্মদিয়া জামিয়া শরীফ মাদরাসা উনার ১৪৪৪ হিজরী শিক্ষাবর্ষে ছফফুল আত্বফাল থেকে মুকাম্মিল হাদীছ, তাফসীর, ফিকাহ, আদিব শ্রেণী সহ মক্তব ও হিফজ বিভাগে



ডান কাত হয়ে ঘুমানো খাছ সুন্নত মুবারক


ডান কাত হয়ে ঘুমানো সুন্নত উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি রাতের শেষ দিকে এগার রাকাত নামায আদায় করতেন। তারপর যখন সুবহে সা’দিক



কবর খনন করার মহাসম্মানিত সুন্নতী তারতীব


>>>>>> কবর খনন করার মহাসম্মানিত সুন্নতী তারতীব-১ <<<<<<< আমাদের দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিভিন্ন পদ্ধতিতে কবর খননের প্রচলন রয়েছে। কিন্তু অনেকেরই কবর খননের সঠিক ও মহাসম্মানিত সুন্নতী তারতীব সম্পর্কে জানা নেই। কিভাবে এবং কতুটুকু কবর খনন করতে হয় তা আমরা অনেকেই জানি



পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাস উনার “প্রথম দশ দিন-রাত” উনাদের মহাসম্মানিত সুন্নতী আমল মুবারক ও সীমাহীন ফযীলত মুবারক-১


পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাস উনার “প্রথম দশ দিন-রাত” উনাদের মহাসম্মানিত সুন্নতী আমল মুবারক ও সীমাহীন ফযীলত মুবারক-১ বছরের ১২ মাসের মধ্যে সব মাস মহান আল্লাহ পাক উনার কাছে সমান মর্যাদার অধিকারী হলেও চারটি মাসের বিশেষ মর্যাদা ও ফযীলত রয়েছে। মর্যাদাপূর্ণ চার



পবিত্র ঈদুল আদ্বহা উনার নামায আদায় করার সুন্নতী ওয়াক্ত


সকাল বেলা সূর্য পূর্ণভাবে উদিত হবার পর থেকে (অর্থাৎ মাকরূহ ওয়াক্ত শেষ হবার পর থেকে অথবা সূর্য উদয়ের শুরু থেকে ঘড়ির মিনিট অনুযায়ী ২৩ মিনিট পর) পবিত্র ঈদ উনার নামাযের ওয়াক্ত শুরু হয়। আর যাহওয়াতুল কুবরা বা যাওয়াল অথবা শরয়ী অর্ধদিন



পবিত্র ঈদুল আদ্বহা উনার নামায আদায় করার মহাসম্মানিত সুন্নতী তারতীব মুবারক


পবিত্র ঈদের নামাযের পদ্ধতি স্বাভাবিক নামাযের মতো নয়। যেমনঃ ঈদের দুই রাকায়াত নামাযের কোনো আযান, ইক্বামাত নেই। এতে অতিরিক্ত ছয়টি তাকবীর রয়েছে। সেগুলো আদায়ের নির্দিষ্ট নিয়ম রয়েছে। নিম্নে সেই নিয়মগুলো তুলে ধরা হলো : পবিত্র ঈদের নামায আদায় করার পদ্ধতি পবিত্র



পবিত্র ঈদুল আদ্বহা উনার দিনের পবিত্র সুন্নত


পবিত্র ঈদুল আদ্বহা উনার দিনের পবিত্র সুন্নত হলো (১) খুব ভোরে ঘুম থেকে উঠা, (২) গোসল করা, (৩) মিস্ওয়াক করা, (৪) সামর্থ অনুযায়ী নতুন পোশাক পরিধান করা, (৫) আতর ব্যবহার করা, (৬) মহল্লার মসজিদে গিয়ে ফজরের নামায পড়া, (৭) ঈদগাহে হেঁটে