জান্নাতি বাগান -blog


...


 


আগামী ২১শে ছালিছ ১৩৮৯ শামসী, ২০শে আগস্ট ২০২১ খৃঃ, ইয়াওমুল জুমুয়াহ পালিত হবে “মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র আশূরা শরীফ”। সুবহানাল্লাহ!


মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাবীব, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘তোমরা মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মুহররমুল হারাম শরীফ মাস উনাকে এবং উনার মধ্যস্থিত বরকতময় মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র পবিত্র আশূরা শরীফ উনাকে সম্মান করো।’ আগামী ২১শে



সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ আশার আলাইহাস সালাম উনার সংক্ষিপ্ত সাওয়ানেহ উমরী মুবারক


পরিচিতি মুবারক: সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ আশার আলাইহাস সালাম তিনি বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন বনু হিলাল গোত্রে, উনার সম্মানিত পিতা উনার নাম মুবারক হযরত হারিছ বিন হাযান আলাইহিস সালাম, সম্মানিতা মাতা উনার নাম মুবারক হযরত



লকডাউনের নামে বারবার কেন সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার প্রতি আঘাত হানা হচ্ছে?


লকডাউন আর বিধিনিষেধ দিয়ে বারবার সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার প্রতি আঘাত হানছে কাফির-মুশরিকদের পা চাটা গোলাম নাস্তিক, মুনাফিক্ব, উলামায়ে সূ এবং গোমরাহ শাসকরা। শুরু থেকেই এরা বিভিন্ন কৌশলে সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার বিভিন্ন বিষয় নষ্ট করে আসছে। যেমন: ১. পবিত্র মসজিদসমূহে



হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ১২ই শরীফ তাশরীফ মুবারক আনার কারণে এ সম্মানিত তারিখকে সাইয়্যিদু


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘তোমরা মহান আল্লাহ পাক উনার নিয়ামত মুবারক (নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে) স্মরণ করো।” সুবহানাল্লাহ! আজ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১২ই শাওওয়াল শরীফ। সুবহানাল্লাহ! মালিকুত তামাম, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর



কথিত ‘স্বাস্থ্যবিধি’র অজুহাতে মুসলমানদের বিরুদ্ধে বড় ধরণের চক্রান্ত চলছে


লকডাউনের নামে দ্বীন ইসলাম পালনে বিধি-নিষেধ কেন? * এখনকার দুনিয়ায় যাই ঘটুক না কেন, তার পেছনেরও পেছনে থাকে নানা রকম উদ্দেশ্য। সাধারণ মানুষ খুব কমই এগুলো উপলব্ধি করতে পারে। তবে একথা সত্য যে- ধোঁয়া দেখে বুঝা উচিত, সেখানে আগুনের অস্তিত্ব ছিলো



মহাপবিত্র ও মহাসম্মানিত বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করার কারণে এ মুবারক দিবসটি হচ্ছেন- সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইছনাইনিল আযীম শরীফ (সোমবার) পবিত্রতম বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন।” সুবহানাল্লাহ! আজ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ। সুবহানাল্লাহ! নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ



আসুন ইতিহাস পড়ি: বাংলাদেশের সাথে ভারতের কথিত ‘বন্ধুত্ব’ বিষয়ে ইতিহাস কি বলে?


(১) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতে সেনা অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে নিহত হওয়ার পর ক্ষমতায় বসে তারই মন্ত্রিসভার বাণ্যিজ্যমন্ত্রী খন্দকার মোশতাক আহমদ। বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের ১১ দিনের মাথায় ভারত সরকারও জানায়, তারা বাংলাদেশের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়াবে। মোশতাক সরকার



ম্মানিত শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে- প্রাণীর ছবি তোলা, আঁকা, রাখা ও ভিডিও করা সম্পূর্ণরূপে হারাম।


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘প্রত্যেক ছবি তুলনেওয়ালা ও তোলানেওয়ালা জাহান্নামী।’ নাউযুবিল্লাহ! সম্মানিত শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে- প্রাণীর ছবি তোলা, আঁকা, রাখা ও ভিডিও করা সম্পূর্ণরূপে হারাম। আর টিভি চ্যানেলের মূলই হচ্ছে ‘ছবি ও



শত্রুর প্রতি বিদ্বেষ-ই বাঁচিয়ে রাখে; এজন্য শত্রুরাই বন্ধুত্বের ফাঁদ পাতে


একাত্তরে বাঙালি মুসলমানরা পাকিস্তানী বাহিনীর বিরুদ্ধে বিজয় অর্জন করেছিল। এই বিজয় অর্জন সম্ভব হতো না, যদি না বাঙালি মুসলমানরা পশ্চিম পাকিস্তানী যালিম শাসকগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে বিদ্বেষ পোষণ করতো। এ প্রসঙ্গে একাত্তরে ‘চরমপত্র’ অনুষ্ঠানের পাঠক এমআর আখতার মুকুলের রচিত ‘গয়রহ’ নামক গ্রন্থের ১৫১-১৫২



অনেকেরই জানা নেই সঠিক বিষয়টি! আগুন হযরত কালীমুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার কোন ক্ষতি করেনি


সাইয়্যিদুনা হযরত মুসা কালীমুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার সম্পর্কে সবসময় জেনে এসেছি- তিনি উনার বাল্য অবস্থায় ফেরাউনকে থাপ্পড় দিয়েছিলেন। এতে ফেরাউন উনার ব্যাপারে সন্দেহ করে। উনাকে আগুনের একটি টুকরা ও একটি স্বর্ণের টুকরা দিয়ে পরীক্ষা করার চেষ্টা করে। কালীমুল্লাহ আলাইহিস সালাম তিনি



সুন্নত মুবারক পালনকারীদেরকে ৪টি বিশেষ বৈশিষ্ট্য প্রদান করা হয়


যিনি খলিক যিনি মালিক যিনি রব মহান আল্লাহ পাক তিনি সর্বাবস্থায় নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে অনুসরণ মুবারক করার আদেশ মুবারক করেছেন। আর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে অনুসরণ মুবারক করার



খাবারে লুকিয়ে থাকা হারাম উপাদান


রেনেট বা রেনিন (Rennet or Rennin): সদ্য হত্যাকরা প্রানীর পেট থেকে রেনেট এনজাইম সংগ্রহ করা হয় যা পনির বানানোর কাজে ব্যবহার করা হয়। তবে পাশ্চ্যাতে রেনেট সংগ্রহ করা হয় শুকোরের পেট থেকে। এটি হারাম । এ কারণে বিদেশী (মুসলিম দেশ ছাড়া)