কুমিল্লাবাসী -blog


...


 


গণতন্ত্রের সংখ্যাগরিষ্ঠ তত্ত্বই রাষ্ট্রদ্বীন ইসলাম অস্বীকার করতে পারে না। কারণ দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষই রাষ্ট্রদ্বীন ইসলাম চায়। প্রমাণ চাইলে সরকার


গণতন্ত্রের মূল সূত্রটা সবারই জানা। ৫১ আর ৪৯। যেদিকে ৫১ সেটা নির্ধিদ্বায় মেনে নেয়ার কথা গণতন্ত্রীদের। তাহলেতো সব হিসাব-নিকাশই সহজ হয়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু বাস্তবতা কি বলে? বিশেষ করে বাংলাদেশের সরকারসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলো যেভাবে গণতন্ত্রের প্রতি নিজেদের আনুগত্যতা হরদম আওড়িয়ে



যে কারণে মহাসম্মানিত সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত


মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র, হাবীব নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাপবিত্র ওজূদ পাক মুবারক এবং মহাপবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ উপলক্ষে খুশি মুবারক প্রকাশ করা তথা মহাসম্মানিত সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন করা সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত। এর প্রথম কারণ



ঘটনা থেকে শিক্ষা: ‘উত্তম ধারণা হচ্ছে উত্তম ইবাদত’


নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘কোনো মুসলমান ভাইকে তুচ্ছ জ্ঞান করা মহাপাপ।’ (কিমিয়ায়ে সা’য়াদাত) তিনি আরো ইরশাদ মুবারক করেন, ‘উত্তম ধারনা হচ্ছে উত্তম ইবাদত।’ সুবহানাল্লাহ! একজন দরবেশ লোক বহু ইবাদত করেছে বলে নিজেকে



মুসলমানদেরকে মসজিদে যেতে নিরুৎসাহিত করছে, কাতারে ফাঁক ফাঁক করে দাঁড়াতে বলে, মুসল্লি সীমিত করতে বলে তাদের জন্য- পবিত্র কুরআন


যে বা যারা কথিত ছোঁয়াচে রোগ নামক শিরকী বিশ্বাসে বিশ্বাসী হয়ে মুসলমানদেরকে মসজিদে যেতে নিরুৎসাহিত করছে, কাতারে ফাঁক ফাঁক করে দাঁড়াতে বলে, মুসল্লি সীমিত করতে বলে তাদের জন্য- পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ অর্থ্যাৎ সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত মুতাবিক রয়েছে



খাছ সুন্নতী বাল্যবিবাহ বন্ধে প্রশাসনের অতি-তৎপরতা মুসলিম সমাজে গণ বিস্ফোরণ সৃষ্টি করতে পারে


পত্র-পত্রিকা বিশেষ করে ইহুদী-নাছারাদের দোসর অনলাইন পত্রিকাগুলো বাল্যবিবাহ ভেঙ্গে দেয়ার খবর নিয়ে খুব লাফলাফি করে। নাউযুবিল্লাহ মিন যালিক! তারা বাল্যবিবাহের সংশ্লিষ্টদের এই শরীয়তসম্মত বিয়ে সম্পাদন নিয়ে জেল-জরিমানা করানোর পক্ষে খুব লেখালেখি করে। এহেন ঘৃণ্য কান্ডের মাধ্যমে কেউ না হোক ইহুদী-নাছারা তো



সরকার চাইলেও কিছু পত্রিকা ও সাংবাদিকগুলোই সঠিক পথে বাধার কারণ


বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন নামক শরীয়ত বিরোধী কুফরী আইনটি নিয়ে খোজ-খবরটি নিয়ে জানা যায়- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ নির্দেশে ও মহিলা-শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্টদের অভিমতে ১৮ বছরের নিচের মেয়েদের জন্য বিশেষ কারণে বিবাহ গ্রহণযোগ্য করার যৌক্তিকতা গ্রহণযোগ্য হবে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর এই অনুশাসনের



আসন্ন পবিত্র সাইয়্যিদুশ শুহুরিল আযম শরীফ মহাপবিত্র রবীউল আউওয়াল শরীফ উপলক্ষে- বাংলাদেশের সরকারের জন্য যা করণীয়


ঈমানদার ব্যক্তির জন্য পবিত্র কুরআন শরীফ এবং পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের ভিত্তিতে যিনি সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, রহমাতুল্লিল আলামীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্পর্কে যেসব আক্বীদা বা সুধারণা পোষণ করতে হবে তন্মধ্যে একটি হচ্ছে যে,



জিহাদ হতে পশ্চাদপসরণ হতে স্বয়ং আল্লাহপাক তিনি নিষেধ করে দিয়েছেন


যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, يَاأَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِذَا لَقِيتُمُ الَّذِينَ كَفَرُوا زَحْفًا فَلَا تُوَلُّوهُمُ الْأَدْبَارَ অর্থ: “হে ঈমানদারগণ, আপনারা যখন কাফিরদের বিরুদ্ধে জিহাদে মুখোমুখী হবেন, তখন আপনারা পশ্চাদপসরণ করবেন না।” (সম্মানিত ও পবিত্র সূরা



নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত হযরত আবনা আলাইহিমুস সালাম উনাদের সীরাত মুবারক


নাম মুবারক বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ বিছালী শান মুবারক প্রকাশ পবিত্র রওজা শরীফ দুনিয়াবী হায়াত মুবারক সন তারিখ বার সময় সন তারিখ বার সময় ইবনু রসূল আন নূরুল আউওয়াল সাইয়্যিদুনা হযরত ক্বাসিম আলাইহিস সালাম আনুষ্ঠানিকভাবে সম্মানিত নুবুওওয়াত মুবারক প্রকাশের প্রায় সাড়ে



পবিত্র মীলাদ শরীফ পাঠকালে সালাম পেশ করার তরতীব 


পবিত্র মীলাদ শরীফ পাঠকালে সালাম দাঁড়িয়েই দিতে হবে। এটাই মহান আল্লাহ পাক উনার নির্দেশ মুবারক এবং মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নির্দেশ মুবারক। যেমন: পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- إِنَّ اللهَ وَمَلَائِكَتَه يُصَلُّوْنَ



অনুসরণীয় চার মাযহাব উনাদের ফতওয়া মুতাবিক সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, রহমাতুল্লিল আলামীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্পর্কে, উনার সম্মানিত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম অর্থাৎ উনার সম্মানিত আব্বা-আম্মা আলাইহিমাস সালাম উনাদের সম্পর্কে, উনার সম্মানিতা আওয়াজে মুত্বহহারাত হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের সম্পর্কে এবং উনার সম্মানিত আওলাদ



সুন্নত মুবারক উনার অনুসরণ সম্মানিত হিদায়েত লাভের কারণ


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- رِضْوَانٌ مِّنَ اللهِ اَكْبَرُ. অর্থ: “মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টি মুবারকই সবচেয়ে বড়।” (পবিত্র সূরা তওবা শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ নং ৭২) মহান আল্লাহ পাক তিনি আরো ইরশাদ মুবারক করেন- وَاللهُ وَرَسُوْلُه اَحَقُّ