মেঘমালা -blog


...


 


কিছু হারাম ও সন্দেহজনক উপাদান সমূহের পরিচিতি


বাইল সল্ট (পিত্তরস): এটি লিভারের নীচে অবস্থিত গল ব্লাডারের মধ্য থেকে নিঃসৃত হয়। অনেক সময় ফুড ইন্ডাস্ট্রীটিতে খাদ্যকে ইমালসিফিকেশন করতে বাইল সল্ট ব্যবহার করে থাকে। এক্ষেত্রে তাদের উৎস হচ্ছে প্রাণীর বাইল সল্ট। বাইল সল্ট হালাল উপায়ে যবেহ করা প্রানীরটা ব্যবহার করলেও



সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাইনাব বিনতে কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত সংক্ষিপ্ত জীবনী মুবারক


সম্মানিত পরিচিতি মুবারক: সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাইনাব বিনতে কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহাস সালাম তিনি হচ্ছেন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র সিব্ত্বতুন (নাতনী) আলাইহাস সালাম। সুবহানাল্লাহ! তিনি হচ্ছেন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর



হক্কানী-রব্বানী শায়খ বা মুর্শিদ ক্বিবলা উনার নিকট বাইয়াত গ্রহণ করে তরীক্বা অনুযায়ী যিকির করতঃ ক্বলবে যিকির জারী করা ফরয।


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “তোমরা ওই ব্যক্তিকে অনুসরণ করো না, যার ক্বলব বা অন্তর আমার যিকির থেকে গাফিল অর্থাৎ যার ক্বলবে আমার যিকির জারী নেই। সে নফসকে (শয়তানকে) অনুসরণ করে তাই তার কাজগুলো (আমলগুলো) সম্মানিত



গ্রিনিচের পরিবর্তে কাবা শরিফ থেকে ‘টাইম জোন’ নির্ধারণের দাবি। এই দাবী কতটুকু যুক্তিযুক্ত আসুন দেখি….


যদি আমরা কাবা শরিফের গুরুত্ব অনুধাবন করতে পারি, তাহলে আমরা জিএমটি (GMT) কে কেন পরিবর্তন করে কেএমটি (KMT- Kaaba Mean Time) ব্যবহার করা উচিত তার গুরুত্ব অনুধাবন করতে পারবো। #ইসলামিক_ব্যাখ্যা: আসুন দেখি মুসলমানদের জন্য কাবা শরিফ উনার গুরুত্ব কতটুকু!!! সূরা আল-ইমরানের



কাফের-মুশরেকদের সাথে অসাম্প্রদায়িক সম্পর্ক তৈরির নামে মুসলমানদের ‘মুসলমানিত্ব’ বিনষ্ট করার জন্যই কথিত ‘ইন্টারফেইথ ডায়লগ’ থিওরী আনা হয়েছে। দ্বীন ইসলাম


আন্তঃধর্মীয় সম্মেলন বা ‘ইন্টারফেইথ ডায়ালগ’ বর্তমান সময়ের একশ্রেণীর ইসলামপন্থী দাবিদারদের নিকট খুব আকর্ষণীয় বিষয়। তারা নানাবিধ চটকদার প্রচারণা চালায় যে, ইহুদি-নাসারাদের সাথে একত্রে বসে ঐসব সম্মেলন করে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে মুসলমানদের সম্মান বৃদ্ধি হচ্ছে, কাফির মুশরিকদের সাথে বন্ধুত্ব ও শান্তি প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে,



টিকা নিয়ে ষড়যন্ত্র: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) নিজেই যখন বিতর্কিত


‘বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)কে সবাই ওষুধের মান নির্ণায়ক হিসেবে মনে করে। কিন্তু ‘হু’র কার্যক্রমই বিশ্বজুড়ে বিতর্কিত। সংস্থাটি মূলত পশ্চিমাদের সাম্রাজ্যবাদ বিস্তারে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হয়। ১৯৮৭ সালে মার্কিন হেলথ ফেডারেশনের এক কনফারেন্সে বিষয়টিকে উন্মুক্ত করে বক্তারা বলেছিল, “আফ্রিকাকে এইডস দিয়ে ধ্বংস



জিহাদ থেকেও বেশি ফযীলতপূর্ণ হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের খিদমত মুবারক


পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “হে আমার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি (উম্মতদেরকে) বলুন, আমি তোমাদের নিকট কোনো প্রতিদান চাই না। আর তোমাদের পক্ষে তা দেয়াও সম্ভব নয়।



পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাস উনার প্রথম ১০ দিনের ইবাদত অশেষ ফযীলত লাভের মহান উপলক্ষ্য


আরবী পবিত্র যিলক্বদ শরীফ মাস উনার পরই শুরু হবে পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাস। আর এ পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাসটি অত্যন্ত ফযীলতপূর্ণ একটি মাস। এ মাসের প্রথম দশদিন হলো বান্দা-বান্দির জন্য অশেষ নিয়ামত তথা অজস্র রহমত, বরকত, সাকিনা লাভের মহান এক উপলক্ষ্য।



নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অনুসরণই সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার অনুসরণ


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- اِنَّ هٰذَا الْعِلْمَ دِيْنٌ অর্থ: “নিশ্চয়ই ইলিমই হচ্ছেন সম্মানিত দ্বীন ইসলাম।” আর ইলিম বলতে পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের ইলিমকে বুঝানো হয়েছে। যেমন পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক



হারাম ছবি তুলে ও বেপর্দার কারণে নিষেধ না করা হলেও করোনা ও ছোঁয়াচের অজুহাতে পবিত্র হজ্জ ঠিকই বন্ধ করা


যদি বলা হয় হজ্জ করা হারাম; তাহলে কি মানবেন? কখনোই মানবেন না। আর যদি বলা হয় ছবি তোলা, ভিডিও করা হারাম, বেপর্দা হওয়া হারাম তাহলে মানতে চান না কেন? পবিত্র হজ্ব সমগ্র মুসলিম উম্মাহর ঐক্য, সংহতি ও সাম্যের প্রতীক। পবিত্র দ্বীন



বিদয়াত ছেড়ে পবিত্র সুন্নত পালনে অভ্যস্ত করতে প্রতিষ্ঠা হয়েছে ‘আন্তর্জাতিক পবিত্র সুন্নত মুবারক প্রচার কেন্দ্র’


শুরুতেই তিনটি নছীহত মুবারক স্মরণ রাখা প্রয়োজন- (১) পবিত্র সুন্নত মুবারক পালন করা ফরয। (২) পবিত্র সুন্নত মুবারক তরক করা ফাসিকী আর (৩) পবিত্র সুন্নত মুবারক ইহানত করা কুফরী। উপরোক্ত বিষয় থেকে ১ম বিষয়ের উপর আমলে অভ্যস্ত করা এবং পরের ২টি



অনুসরণীয় ৪ মাযহাবের ফতওয়া মুতাবিক- নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশকারী, কটাক্ষকারীদেরকে


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্পর্কে, উনার সম্মানিত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম অর্থাৎ উনার সম্মানিত আব্বা-আম্মা আলাইহিমাস সালাম উনাদের সম্পর্কে, উনার সম্মানিতা আওয়াজে মুত্বহহারাত হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের সম্পর্কে এবং উনার সম্মানিত আওলাদ