রাতের তারা -blog


...


 


যাকাত অনাদায়ে হালাল উপার্জনও হারাম হয়ে যাচ্ছে!


আপনি সৎ ও পরহেযগার থাকতে চান। তাই সুদ-ঘুষ খান না, অন্যের হক্ব নষ্ট করেন না, অবৈধ পথে উপার্জন করেন না। কিন্তু এত কিছুর পরও আপনার উপার্জন হালাল হচ্ছে না, বরং আপনি হারাম খাচ্ছেন। আশ্চর্য হচ্ছেন এই কথা শুনে? আশ্চর্য হওয়ারই কথা।



নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘যে ব্যক্তি যে সম্প্রদায়ের সাথে মিল


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘যে ব্যক্তি যে সম্প্রদায়ের সাথে মিল রাখবে; সে ব্যক্তি সে সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত বলে গণ্য হবে।’ সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে মুসলমানদের জন্য কোনো অবস্থাতেই বিধর্মী কাফিরদের অনুসরণ-অনুকরণ করা



মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের বেমেছাল শ্রেষ্ঠত্ব মুবারক


যিনি খলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- وَلِلّٰهِ الْعِزَّةُ وَلِرَسُوْلِهٖ وَلِلْمُؤْمِنِيْنَ وَلٰكِنَّ الْمُنٰفِقِيْنَ لَا يَعْلَمُوْنَ অর্থ: “সমস্ত ইজ্জত তথা শান-মান, ফাযায়িল-ফযীলত, বুযূর্গী-সম্মান মুবারক একমাত্র যিনি খ¦ালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার জন্য, উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র



সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার ভিত্তি হচ্ছেন সম্মানিত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা


জামিউল আহাদীছ, জামউল জাওয়ামি’, জামিউল কবীর, কানযুল উম্মাল ইত্যাদি কিতাবসমূহে বর্ণিত রয়েছে- ইমামুল আউওয়াল মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত আলী র্কারামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি বর্ণনা করেন, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম



কাফির-মুশরিকদের অনুসরণের কারণেই মহান আল্লাহ পাক উনার গায়েবী মদদ থেকে বঞ্চিত মুসলিম


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “হে ঈমানদারগণ! তোমরা আমার শত্রু এবং তোমাদের শত্রুকে বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করো না।” (পবিত্র সূরা মুমতাহিনাহ শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ১) পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে কাফির-মুশরিকরা মুসলমানদের শত্রু একথা বারবার স্পষ্টভাবে জানিয়ে দেয়ার



একটি দলীলভিত্তিক পর্যালোচনা: ছোঁয়াচে রোগ সম্পর্কে পবিত্র দ্বীন ইসলাম কি বলে?


* ঈমানদারদের জন্য আক্বীদা হলো ছোঁয়াচে বলতে কোন রোগ নেই * ছোঁয়াচে রোগে বিশ্বাস করা জাহেলী যুগের বৈশিষ্ট্য * জাহিলী যুগের বদ আক্বীদা রোধ করার জন্য ‘ছোঁয়াচে বলে কোন রোগ নেই’ এই হাদীছ শরীফ উনার অবতারনা * কথিত ছোঁয়াচে নামক বিশ্বাস



মুসলমানরা কি এটা চিন্তা-ফিকির করে দেখেছে? কথিত স্বাস্থ্যবিধির নামে ঘুরেফিরে বারবার একমাত্র দ্বীন ইসলাম উনার প্রতিই আঘাত করা হচ্ছে


কাফিরদের প্রতি নাযিলকৃত করোনা নামক গযব প্রতিরোধের নামে বার বার সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার প্রতি আঘাত হানছে কাফির-মুশরিকদের পা চাটা গোলাম নাস্তিক, মুনাফিক্ব, উলামায়ে সূ এবং গোমরাহ শাসকরা। শুরু থেকেই এরা বিভিন্ন কৌশলে সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার বিভিন্ন বিষয় নষ্ট করে



সম্মানিত জিহাদ উনার বিরোধিতাকারীরা মুসলমান নয়


সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার আবশ্যকীয় বিধান সমূহের মধ্যে সম্মানিত জিহাদও একটি। সম্মানিত দ্বীন ইসলাম ও সম্মানিত মুসলমান উনাদের শত্রু হচ্ছে তাবৎ কাফির, মুশরিক ও মুনাফিকরা। অর্থাৎ ইহুদী, নাছারা, বৌদ্ধ, মজূসী ইত্যাদি ধর্মাবলম্বীরা। তারা সম্মানিত মুসলমান ও সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনাদের বিরোধিতা



মুসলমানদের অধিকার প্রতিষ্ঠিত করার অন্যতম উপায় শিক্ষানীতি তথা সিলেবাসের পরিবর্তন


রাশিয়ায় কমুনিস্টরা ক্ষমতা দখল করেই প্রথম যে কাজটি করেছিলো সেটি ছিলো- সম্পূর্ণ শিক্ষাব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন। কমুনিস্টরা নতুন শিক্ষাব্যবস্থা তৈরি করা পর্যন্ত বেশ কয়েকবছর তাদের সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে বন্ধ রাখে। এরপর তারা কমুনিজমকে শিক্ষার মূল পাঠ্য করে সেভাবেই পাঠ্যপুস্তকগুলো রচনা করে। কমুনিজমকে বাধ্যতামূলক



পবিত্র সুন্নত মুবারক জারী হওয়া মানেই বিদয়াত দূরীভূত হওয়া


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “ফিতনা-ফাসাদের যুগে যে একটি সুন্নত মুবারক উনাকে মাড়ির দাঁত দ্বারা শক্তভাবে আঁকড়িয়ে ধারণ করবে, সে একশত শহীদ উনাদের সওয়াব পাবে, কেমন শহীদ? বদর এবং উহুদের যুদ্ধে শরীক হওয়া শহীদ উনাদের ছওয়াব তথা মর্যাদা-মর্তবা



চিকিৎসা বিজ্ঞানের দৃষ্টিতেও বাল্যবিবাহ উপকারী; সমাজে অনৈতিকতা ছড়িয়ে দেয়াই বাল্যবিবাহ বিরোধীদের মূল লক্ষ্য


অল্প বয়সে বিবাহ ব্যাপারে পৃথিবীর সকল ধর্মের মানুষ এখন যেন দায়ভার সম্মানিত ইসলাম উনার উপর চাপিয়ে দেবার প্রতিযোগিতায় নেমেছে। আর এই অসুস্থ প্রচারণার শিকার হয়ে আজ এমনকি মুসলিমরাও এর বিরুদ্ধে বলতে শুরু করেছে অথবা নানাভাবে একে পাশ কাটিয়ে যেতে চাইছে। নাউযুবিল্লাহ!



জাহান্নামের ভয়াবহ আযাবের কথা কি ভুলে গেছেন?


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সম্মানিত মি’রাজ শরীফ উনার রাতে জাহান্নাম পরিদর্শনকালে জাহান্নামীদের এক দলকে দেখতে পেলেন তাদের মুখ রক্তে পরিপূর্ণ, তারা কঠিন আযাবে পতিত এবং কঠিন আযাবে আবদ্ধ। এরা হচ্ছে মহান আল্লাহ পাক উনার নামে