অতৃপ্ত -blog


...


 


এক নজরে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরহ্ আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত পরিচিতি মুবারক


  মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরহ্ আলাইহাস সালাম তিনি হচ্ছেন মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের মধ্যে বিশেষ ব্যক্তিত্বা মুবারক। সুবহানাল্লাহ! তিনি শুধু যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি নন এবং নূরে



খাছ সুন্নতি টুপি মুবারক উনার বর্ণনা


টুপি ব্যবহার করা নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত সুন্নত মুবারক। কেউ কেউ মাথায় টুপি পরিধানকরাকে গুরুত্ব দেয় না, যার কারণে টুপি মাথায় না দিয়েই অর্থাৎ খালি মাথায় নামায আদায় করে। কিন্তু মাসয়ালা হচ্ছে, কেউ যদি



আশূরা শরীফ উনার রোযার ফযীলত


হযরত আবূ হুরায়রা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বর্ণনা করেন, আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাস উনার রোযার পর মহান আল্লাহ পাক উনার মাস পবিত্র মুহররমুল হারাম শরীফ উনার



পবিত্র কুরবানী এবং মুসলমানদের অধিকার


যিনি খলিক্ব, যিনি মালিক, যিনি রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- وَلَا تَنسَ نَصِيبَكَ مِنَ الدُّنْيَا অর্থ: দুনিয়াতে তুমি তোমার অধিকার ভুলে যেওনা। (পবিত্র সূরা ক্বছাছ শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ৭৭) দুনিয়াতে নিজেদের অধিকার গুলো ভুলে যাওয়া যাবেনা বরং



প্রকৃত ঈমানদার কখনো এক ভুল বারবার করে না


পবিত্র বদরের জিহাদে আব্দুল উজ্জা নামক এক মুনাফিক ধরা পড়লো। এ মুনাফিকের কাজ ছিলো সারা দিন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক শান উনার মানহানী করে কুৎসা রটনা করা এবং সেগুলো দিয়ে গান-বাজনা বানিয়ে প্রচার করা।



ওহাবী সালাফি মতবাদ এবং মওদুদী ইসলাম প্রচারকারী এনটিভি’র লাইসেন্স বাতিল করার দাবীতে ওলামা লীগের সংবাদ সম্মেলন


আল্লাহ সর্বশক্তিমান জয় বাংলা-জয় বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ আওয়ামী ওলামা লীগ ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউ, ঢাকা। ক্যাসিনো দুর্নীতি দমনসহ প্রধানমন্ত্রীর সব কর্মসূচীতে ওলামা লীগ আমৃত্যু থাকার পাশাপাশি সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালনে সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতার দাবীসহ * জামাত-শিবির, মৌলবাদ, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থানকারী রাজারবাগ শরীফের



নাফরমানী ও গোলামী


বিশ্বখ্যাত পর্যটক ইবনে বতুতা এই বাংলার প্রাচুর্যতা দেখে বলেছিলেন- ‘জান্নাতের দরজা’। এই ‘জান্নাতের দরজা’কে করায়ত্ত করার জন্য কাফিরদের ছিলো ব্যাপক খায়েশ। কিন্তু এদেশের মুসলমানদের ঈমানী জোশ আর জযবার কাছে তারা পরাস্ত হয়েছে। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। এক সময় মুসলমানরা মহান আল্লাহ



দুনিয়ার আকর্ষণ থেকে বাঁচতে হলে…


মরিতে চাহি না আমি এই সুন্দর ভুবনে। কবি এখানে পৃথিবীকে সুন্দর বলে নাই, সুন্দর বলেছে পৃথিবীর কতিপয় বন্তুকে। যার প্রতি মানুষের রয়েছে দারুণ আকর্ষণ। এই আকর্ষণ স্বয়ং খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনিই মানুষকে দান করেছেন। এ সবের উল্লেখ রয়েছে



পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন করা ফরয 


  যিনি খালিক্ব যিনি মালিক যিনি রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, يَا أَيُّهَا النَّاسُ قَدْ جَاءَتْكُمْ مَّوْعِظَةٌ مِّنْ رَّبِّكُمْ وَشِفَاءٌ لِّمَا فِي الصُّدُوْرِ وَهُدًى وَرَحْمَةٌ لِّلْمُؤْمِنِينَ ﴿٥٧﴾ قُلْ بِفَضْلِ اللَّـهِ وَبِرَحْمَتِهِ فَبِذَٰلِكَ فَلْيَفْرَحُوْا هُوَ خَيْرٌ مِّـمَّا يَـجْمَعُونَ ﴿٥٨﴾



সাইয়্যিদাতুন নিসা, উম্মু আবীহা হযরত যাহরা আলাইহাসসালাম উনার মুবারক বিলাদত শরীফ ২০ জুমাদাল উখরা শরীফ স্মরনে


আরবী মাসসমূহের ষষ্ঠ মাস হচ্ছে “জুমাদাল উখরা।” ‘জুমাদা’ শব্দটি মুয়ান্নাছ (স্ত্রী লিঙ্গ) তার অর্থ ‘জমাট পানি’ বা ‘বরফ।’ সে হিসেবে তার পরে “উখরা” শব্দটিও ‘আখির’ শব্দ থেকে মুয়ান্নাছ এবং এর অর্থ শেষ। অধিকাংশ মতে আনুষ্ঠানিক নুবুওওয়াত প্রকাশের প্রায় তিন বৎসর পূর্বে



কাফিররা তাদের বাতিল ধর্ম টিকিয়ে রাখার জন্য তাদের জান-মাল খরচ করে। মুসলমানগণ তাদের ঈমান-আমল হিফাযতের জন্য কি করা উচিত


কাফির-মুশরিক, ইহুদী-নাছারা সমস্ত বিধর্মীরা তাদের বাতিল ধর্ম টিকিয়ে রাখার জন্য তাদের জান-মাল খরচ করে। প্রত্যেক কাফিরদের দেশে মুসলমান উনাদের ঈমান-আমল নষ্ট করার জন্য সরকারিভাবে অর্থ বরাদ্দ করে। অথচ মুসলমানদের জন্য আফসুস! মুসলমানরা তাদের ঈমান-আমল, পবিত্র দ্বীন ইসলাম হিফাযতে কোনো টাকা পয়সা



“কোনো ফিলিস্তিনি শিশু কন্যার হাতে যদি একটি কাঁচিও দেখা যায় তবে তাকে হত্যা করতে হবে!” ‘কাফিররা মুসলমানদের শত্রু’- এই


মুসলমানদের সতর্ক করে কাফিরদের সম্পর্কে মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেছেন যে, ‘তোমরা (মুসলমানরা) তোমাদের সবচেয়ে বড় শত্রু হিসেবে পাবে প্রথমতঃ ইহুদীদেরকে অতঃপর মুশরিকদেরকে।’ (পবিত্র সূরা মায়িদা শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ৮২) যুগ যুগ ধরে