যুফার -blog


***********সত্য প্রকাশে আমরা জানবাজ তরুন*****************


 


প্রকাণ্ড কিছু দেখলেই অবনত হওয়া বিধর্মীদের বদ খাছলত


সাধারণ মানুষের স্বাভাবিক প্রশ্ন- এতবড় মালানা-মুফতে সাহেব এই কাজ করলো, তাইলে এটা কিভাবে ভুল হতে পারে? বাজারে মালানা মুফতী নামধারী অনেক প্রকাণ্ড প্রকাণ্ড গুমরাহ ও বিভ্রান্ত লোক আছে যাদের হাজার হাজার ভক্ত আছে, আছে বিভিন্ন মিডিয়ায় নামধাম(!), আছে ক্যনভাসারদের মতো বাকপটুতা;



ঈদগাহে নামায নিষিদ্ধ করার অধিকার কারও নেই


ঈদগাহে নামায আদায় করা খাছ সুন্নত মুবারক। কিন্তু বর্তমানে একটি গোষ্ঠী মুসলমানদেরকে দ্বীন ইসলাম পালনে নানা ভাবে বাধা দিচ্ছে। সম্প্রতি ঈদগাড়ে নামায পড়া যাবে না, বলে সরকারী আমলারা জানিয়েছে। নাউযুবিল্লাহ! কোন দেশের সরকার বা প্রশাসন কখনোই কোনভাবেই মহান আল্লাহ পাক উনার



মহান আল্লাহ পাক উনার জন্য দান করলে তা বহু গুনে বৃদ্ধি পায়


খলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার হাবীব , নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের রিযামন্দি সন্তুষ্টি মুবারক লাভের অন্যতম মাধ্যম হচ্ছেন খলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার রাস্তায় দান ছদকা করা । ইবাদত



পবিত্র যাকাত আদায় করা যেরূপ ফরয; তদ্রুপ সঠিক স্থানে পবিত্র যাকাত পৌঁছানোও ফরয এবং পবিত্র যাকাত কবুল হওয়ার কারণ।


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘তোমরা নেকী ও পরহেযগারীতে পরস্পর পরস্পরকে সাহায্য-সহযোগিতা করো। পাপ ও শত্রুতার মধ্যে সাহায্য-সহযোগিতা করো না।’ পবিত্র যাকাত আদায় করা যেরূপ ফরয; তদ্রুপ সঠিক স্থানে পবিত্র যাকাত পৌঁছানোও ফরয এবং পবিত্র যাকাত কবুল হওয়ার কারণ।



মহান বরকতময় পবিত্র ২৮শে রজবুল হারাম শরীফ। সুবহানাল্লাহ! সিবত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, আমার হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করো আমাকে মুহব্বত করার কারনে।’ সুবহানাল্লাহ! আজ সুমহান বরকতময় পবিত্র ২৮শে রজবুল হারাম শরীফ। সুবহানাল্লাহ! সিবত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি



হাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১২ই রজবুল হারাম শরীফ। সুবহানাল্লাহ! মালিকুত তামাম, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘তোমরা মহান আল্লাহ পাক উনার নিয়ামত মুবারক (নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে) স্মরণ করো।” সুবহানাল্লাহ! আজ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১২ই রজবুল হারাম শরীফ। সুবহানাল্লাহ! মালিকুত তামাম, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ



পবিত্র রাজারবাগ দরবার শরীফ উনার মাঝে পবিত্র ১লা রজব রাতে মুনাজাত করাটা কতোই না সুনছীব


মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “তোমরা দোয়া তথা মুনাজাতের মাধ্যমে আমার কাছে চাও, আমি তোমাদের চাহিদাকে পূর্ণ করবো।” সুবহানাল্লাহ! আর মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক



নিজেদের যাকাত-ফিতরা নিজেরাই বিতরণ করাটা শরীয়তসম্মত নয়


মাসয়ালাটি শুনে নতুন মনে হতে পারে কিন্তু এটাই সত্য ও সঠিক মাসয়ালা যে, নিজের যাকাত ফিতরা নিজেরাই বিতরণ করাটা শরীয়ত সম্মত নয়। কেবল যাকাত-ফিতরার ক্ষেত্রেই নয় অনেক মাসয়ালাই মানুষ মনগড়াভাবে এবং সম্মানিত শরীয়ত উনার খিলাফ আমল করে থাকে। যেমন বাজার থেকে



আজওয়াদুন নাস, আশজা’য়ুন নাস, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বেমেছাল সাখাওয়াতী বা দানশীলতা মুবারক


খলিক মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার যেমন অসংখ্য-অগণিত ছিফত মুবারক রয়েছেন, ঠিক একইভাবে উনার মহাসম্মানিত মাহবূব হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনারও অসংখ্য-অগণিত ছিফত মুবারক রয়েছেন। সুবহানাল্লাহ! উনার অসংখ্য ছিফত মুবারক উনাদের মধ্যে একখানা মহাসম্মানিত



উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আছ ছানিয়াহ্ আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত সংক্ষিপ্ত জীবনী মুবারক


সম্মানিত পরিচিতি মুবারক: যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- اَلنَّبِـىُّ اَوْلـٰى بِالْمُؤْمِنِيْنَ مِنْ اَنْفُسِهِمْ وَاَزْوَاجُهۤٗ اُمَّهٰتُهُمْ. অর্থ: নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হচ্ছেন মু’মিন উনাদের নিকট উনাদের জানের চেয়ে অধিক প্রিয়,



যাদের ক্বলব বা অন্তরে যিকির জারি নেই তারা উলামায়ে হক্ব নয়, বরং তারা চরম পর্যায়ের ফাসিকও উলামায়ে সূ’। নাউযুবিল্লাহ!


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “তোমরা ওই ব্যক্তিকে অনুসরণ করো না, যার ক্বলব বা অন্তর আমার যিকির থেকে গাফিল অর্থাৎ যার ক্বলবে আমার যিকির জারী নেই। সে নফসকে (শয়তানকে) অনুসরণ করে তাই তার কাজগুলো (আমলগুলো) সম্মানিত শরীয়ত উনার খিলাফ।



কুল-কায়িনাতের সকলের জন্য দায়িত্ব-কর্তব্য হচ্ছে- মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১২ই শরীফ উনাকে মহাপবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ হিসেবে উদযাপন করা। সুবহানাল্লাহ!


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘মহান আল্লাহ পাক উনার নিদর্শন সম্বলিত দিবসগুলিকে স্মরণ করিয়ে দিন সমস্ত কায়িনাতকে। সুবহানাল্লাহ! আজ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১২ই মুহররমুল হারাম শরীফ। সুবহানাল্লাহ! নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যেহেতু “মহাসম্মানিত