বোস্তামী আলম -blog


...


 


মাতৃভাষাকে মুহব্বত করা পবিত্র সুন্নত মুবারক উনার অন্তর্ভুক্ত। সুবহানাল্লাহ!


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- ‘আমি প্রত্যেক হযরত নবী ও হযরত রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে ক্বওমের ভাষা দিয়ে প্রেরণ করেছি।’ সুবহানাল্লাহ! প্রত্যেক হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে নিজ নিজ মাতৃভাষায় প্রেরণ করা হয়েছে। তাই মাতৃভাষাকে মুহব্বত করা পবিত্র সুন্নত



অশ্লীল চিত্র দেখা ও তৈরিতে যারা শীর্ষে…


একটি কুচক্রী মহল মিথ্যা ও বানোয়াটি তথ্য দিয়ে অপপ্রচার করে থাকে- পর্নো নাকি মুসলিম রাষ্ট্রগুলো দেখে। নাউযুবিল্লাহ মিন যালিক! অথচ তারা এটা নিয়ে বিশ্বস্ত ও সঠিক পরিসংখ্যানভিত্তিক কোনো রেফারেন্স দিতে পারে না। মূলত তারা নিজেদের অপকর্ম ঢাকতে ও মুসলিমদের হেয় করতেই



শিক্ষানীতি নিয়ে কাফির-নাস্তিকদের ধূর্ততা, বিপরীতে মুসলমানদের নির্বুদ্ধিতা


শিশুদেরকে জাতি গঠনের কারিগর বলা হয়। জাতির এই কর্ণধাররা যতই সুস্থ ও স্বাভাবিকভাবে বিকশিত হতে পারবে ততই জাতির জন্য কল্যাণকর। এই বিকশিত হওয়ার প্রক্রিয়া হচ্ছে শিক্ষাব্যবস্থা। শিক্ষাব্যবস্থা ইসলামী হলে শিশুটি ইসলামী মানসিকতাসম্পন্ন হয়ে বেড়ে উঠবে। আর যদি শিক্ষানীতি নাস্তিক্যবাদী হয়, তাহলে



আপনার সন্তানের কারণে আপনাকে যেন জাহান্নামে যেতে না হয়…


আপনার সন্তানকে আপনি পড়ালেখা শেখার জন্য স্কুল-কলেজে পাঠাচ্ছেন। কিন্তু সেখানে তার পাঠ্যবইগুলোতে আপত্তিকর, ইসলামবিরোধী, বিধর্মী-বিজাতীয় লেখনী সর্বোপরি ইসলাম ও মুসলিম বিরুদ্ধ, সাংঘর্ষিক লেখা দিয়েই ঠেসে দেয়া হয়েছে স্কুল-কলেজের পাঠ্যবইগুলোকে। পাঠক! এই লেখাটির শিরোনামটি এইভাবে দেয়ার কারণ হলো- আপনি হয়তো নিজে নিজে



কথিত ‘ধর্মনিরপেক্ষতার’ খপ্পরে যখন বাংলাদেশের পাঠ্যপুস্তক…


বর্তমানে আমাদের দেশের পাঠ্যবইগুলোর বিশেষ কিছু বৈশিষ্ট্য হলো- -বইগুলোতে হিন্দু কবি-সাহিত্যিকদের লেখা কবিতা, গল্প, রচনাকে গুরুত্বসহকারে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে -তাছাড়া অহিন্দু যেসব লেখক রয়েছে তারাও কেউ নাস্তিক, কেউ নাট্যকার-অভিনেতা, কেউ ছবি-মূর্তির শিল্পী। অর্থাৎ যারা ইসলামবিমুখ তাদের লেখাকেই সিলেবাসে গুরুত্ব সহকারে অন্তর্ভুক্ত



এই কুফরী শিক্ষানীতি পরিবর্তনে সরকারকে বাধ্য করতে হবে


রাশিয়ায় কমুনিস্টরা ক্ষমতা দখল করেই প্রথম যে কাজটি করেছিলো সেটি ছিলো- সম্পূর্ণ শিক্ষাব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন। কমুনিস্টরা নতুন শিক্ষাব্যবস্থা তৈরি করা পর্যন্ত বেশ কয়েকবছর তাদের সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে বন্ধ রাখে। এরপর তারা কমুনিজমকে শিক্ষার মূল পাঠ্য করে সেভাবেই পাঠ্যপুস্তকগুলো রচনা করে। কমুনিজমকে বাধ্যতামূলক



সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনারাই উম্মুল কায়িনাত


সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, রহমাতুল্লিল আলামীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হচ্ছেন আবুল কায়িনাত আর তিনি যে সকল পূত-পবিত্রা সম্মানিতা মহিলা উনাদের সাথে নিসবতে আযীম মুবারক স্থাপন করেন উনারাই হচ্ছেন উম্মুল কায়িনাত। সুবহানাল্লাহ! স্মরণীয় যে, সমস্ত



মহাসম্মানিত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সম্পর্কে কিরূপ আক্বীদা পোষণ করতে হবে


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “যে ব্যক্তি হাক্বীক্বী মুত্তাক্বী হবেন আমি (মহান আল্লাহ পাক) তাকে গাইরুল্লাহ থেকে বের হওয়ার সমস্ত রাস্তা দেখিয়ে দিব এবং এমন রিযিক দান করব যা সে কল্পনাও করতে পারবে না। সুবহানাল্লাহ! এই পবিত্র আয়াত শরীফ



আজ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১২ই ছফর শরীফ। সুবহানাল্লাহ! নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যেহেতু


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘মহান আল্লাহ পাক উনার নিদর্শন সম্বলিত দিবসগুলিকে স্মরণ করিয়ে দিন সমস্ত কায়িনাতকে। সুবহানাল্লাহ! আজ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১২ই ছফর শরীফ। সুবহানাল্লাহ! নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যেহেতু “মহাসম্মানিত ও



মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি কায়িনাতবাসীকে সর্বশ্রেষ্ঠ এবং সর্বোত্তম বিষয় মুবারকসমূহ তা’লীম মুবারক দান করছেন


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার, উনার মহাসম্মানিত হযরত আব্বা-আম্মা আলাইহিমাস সালাম উনাদের, মহাসম্মানিত হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের এবং মহাসম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের অর্থাৎ উনাদের প্রত্যেকের বেমেছাল সম্মানিত শান মুবারক সম্পর্কে



সংবিধান অনুযায়ীই সরকার বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন কিছুতেই করতে পারে না


‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন’-এ বলা হয়েছে বাল্যবিবাহ যারা করবেন, সেই বিয়ে যারা পরিচালনা করবেন অথবা তা আয়োজনে সম্পৃক্ত থাকবেন, তারা সবাই দ-ের আওতায় পড়বেন। নাউযুবিল্লাহ মিন যালিক! এই আইন মুসলিম এই দেশে ইসলামের প্রতি প্রকাশ্য বিরোধিতা করা শুধু নয়, সংবিধানের ধারার সাথেও



পবিত্র আশুরা শরীফ উনার মাঝে মুসলমানদের জন্য খাছভাবে দোয়া করুন আর কাফিরদের জন্য কঠিন বদদোয়া করুন


পবিত্র আশুরা শরীফ উনার রাতে প্রত্যেকটি দোয়াই খাছভাবে ক্ববুল করা হবে। সুবহানাল্লাহ! আর এজন্য মুসলমানদের মুক্তির জন্য এবং বিপদ থেকে হিফায়েতর জন্য বিশেষ দোয়া করা মুসলমানদের কর্তব্য। আর সেসকল সন্ত্রাসী কাফির মুশরিকদের বিরুদ্ধে কঠিন বদদোয়া করা এখন ঈমানের দাবী। বর্তমান সময়ে