তাজদীদ -blog


...


 


পবিত্র জুমাদাল উখরা শরীফ মাস উনার বরকতময় ২৯ তারিখ। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু ছানিয়া লি-ইমামিল আউওয়াল আলাইহিমাস সালাম উনার


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘আমার সেই উম্মতের জন্য আমার শাফায়াত মুবারক ওয়াজিব, যে উম্মত আমার হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করেন।’ সুবহানাল্লাহ! আজ পবিত্র জুমাদাল উখরা শরীফ মাস উনার



এরপরও ওইসব ‘অমুসলিমরা’ কি করে নিজেদের ‘সভ্য’ দাবি করে?


কানাডা: ১ বছরেই এ দেশে সম্ভ্রমহরণের রিপোর্টেড কেসের সংখ্যা ২৫ লাখের বেশি। যা মোট রেপ কেসের মাত্র ৬ ভাগ। এদেশের প্রতি ৩ জন নারীর মধ্যে ১ জন নারী যৌন হয়রানির শিকার হয় কিন্তু মাত্র ৬ শতাংশ রিপোর্ট করা হয়। জার্মানি: এখানে



‘মুক্তবুদ্ধি’ চর্চার নামে নীরবে নাস্তিক্যবাদের বাজারজাতকরণ চলছে


ব্রিটিশরা বাংলার ভূখণ্ড ছেড়ে চলে গেলেও তাদের মিশন বাস্তবায়নে নীরবে বিরামহীন কাজ করে যাচ্ছে। তাদের বিস্তারকৃত অসংখ্য নীলনকশার মধ্যে একটি জঘন্যতম ষড়যন্ত্র হচ্ছে বাঙালি মুসলমানদের চেতনায় নাস্তিক্যবাদের বীজ বপন। আর একাজটি করার জন্যই তারা বেছে নিয়েছে কট্টর ইসলামবিদ্বেষী কিছু অমুসলিম ব্লগার,



বাল্যবিবাহের বিরোধিতাকারীরা পবিত্র আয়াত শরীফ অস্বীকারকারী


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে, হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে জিজ্ঞাসা করলেন, ঐ সমস্ত মহিলাদের ইদ্দতের ব্যাপারে আপনার কি ফায়ছালা যারা এখনও মাজূর হননি অর্থাৎ নাবালেগা রয়ে



যালূমান জাহূলানদের জন্যেই জাহান্নাম অবধারিত


যালূমান ও জাহূলান শব্দ মবারক দুটি মহাপবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত হয়েছে। যালূমান অর্থ হচ্ছে চরম পর্যায়ের যালিম বা অত্যাচারী। আর জাহূলান অর্থ হচ্ছে চরম জাহিল বা মূর্খ। যালূমান ও জাহূলান প্রকৃতির লোকদের মহাপবিত্র কুরআন শরীফ সম্পর্কে ও মহাপবিত্র সুন্নাহ



পাঠ্যপুস্তকগুলোকে বিধর্মীদের ‘প্রশংসা-পুস্তক’ বানিয়ে ফেলা হয়েছে!


বেখবর বাংলার কোটি কোটি মুসলমান! মুশরিক ও নাস্তিক-মুরতাদদের প্লানগুলো একে একে বাস্তবায়িত হচ্ছে। প্রশাসনের প্রতিটি স্তরে স্তরে হিন্দুকরণ ও নাস্তিকদের পদায়নের পর এখন এ দেশের স্কুল, কলেজ, মাদরাসাসহ সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পাঠ্যপুস্তকগুলোকে সেই নীলনকশা বাস্তবায়নের আয়ত্তে আনা হয়েছে এবং হচ্ছে। ক্লাস ওয়ান



‘ছোঁয়াচে বা সংক্রামক রোগ’ বিষয়ে চূড়ান্ত ফায়ছালা


আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মুত্বহ্হার, মুত্বহহির, আছ ছমাদ, মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বেমেছাল তাজদীদ মুবারক ‘ছোঁয়াচে বা সংক্রামক রোগ’ বিষয়ে ছোঁয়াচে বা সংক্রামক



সুমহান বরকতময় পবিত্র রবীউছ ছানী শরীফ মাস উনার ৫ই শরীফ। সুবহানাল্লাহ! সিবতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদুনা হযরত


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘আমার সেই উম্মতের জন্য আমার শাফায়াত অবধারিত, যে আমার সম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করে।’ সুবহানাল্লাহ! আজ সুমহান বরকতময় পবিত্র রবীউছ ছানী শরীফ মাস



নারী সম্ভ্রমহানী কমাতে চান? আগে নাটক-সিনেমা নিষিদ্ধ করুন


আজকাল অনেকেই সমাজে নারী নির্যাতন বিশেষ করে নারী সম্ভ্রমহানি বেড়ে যাওয়ার কারণে উদ্বিগ্ন। কিন্তু এটা সত্য, বাংলাদেশে নারী সম্ভ্রমহানি বৃদ্ধি পাওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে, নাটক-সিনেমায় ছয়লাব হওয়া। এখন শুধু সিনেমা হল, কম্পিউটার-ল্যাপটপ নয়, হাতের মুঠোফোনগুলোতে ক্যান্সারের মতো ছড়িয়ে পড়েছে নাটক-সিনেমা। মোবাইলে



উত্তম আমল হলো সুন্নতী আমল, সর্বশ্রেষ্ঠ খাবার সুন্নতী খাবার, সর্বোত্তম পোশাক সুন্নতী পোশাক


পবিত্র সুন্নত মুবারক উনার ফযীলত সীমাহীন। কিন্তু কে না চায় এই সীমাহীন ফযীলত উনার পরিপূর্ণ ফায়দা হাছিল করতে? কে না চায় ফযীলত অর্জন করতে? কে চায় না যে সমস্ত নিয়ামত হাছিল হোক? সবাই চায়। সবাই ভালো জিনিস ও নিয়ামতরাজি চায়। কিন্তু



উনার বেমেছাল শান-মান, ফাযায়িল-ফযীলত সম্পর্কে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট সাইয়্যিদাতুনা হযরত আন


মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ رَضِيَ اللهُ عَنْهُمَا عَنْ حَضْرَتْ أُمِّ كُلْثُومٍ عليها السلام بِنْتِ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَنَّهَا قَالَتْ يَا رَسُولَ اللهِ صلى الله عليه وسلم زَوْجِي خَيْرٌ أَو زَوْجُ



সরকার পবিত্র ঈদে অসচ্ছল মুসলমানদেরকে সহযোগিতা করে না অথচ মাত্র ১.৫% বিধর্মীদের পূজায় ঠিকই সাহায্য করে।


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘তোমরা নেক কাজে ও পরহেযগারীতে পরস্পর পরস্পরকে সাহায্য করো। বদ কাজে অর্থাৎ পাপে ও শত্রুতায় (মুশরিকদের পূজায়) পরস্পর পরস্পরকে সাহায্য করো না।’ সরকার পবিত্র ঈদে অসচ্ছল মুসলমানদেরকে সহযোগিতা করে না অথচ মাত্র ১.৫% বিধর্মীদের