Archive for the ‘ইসলামী খেলাফত’ Category

হাদীস শরিফে বর্নিত মালউন হিন্দুদের ধ্বংসকারী গাযওয়াতুল হিন্দ(হিন্দুদের সাথে জিহাদ) ।


  সারা পৃথিবীতে সবচে’ বড় জিহাদ হবে হিন্দুস্তান তথা ভারতের মুশরিকদের সাথে। এই জিহাদের গুরুত্ব হাদীছ শরীফে ইরশাদ হয়েছে,- ﻋَﻦْ ﺣَﻀْﺮَﺕْ ﺃَﺑِﻰْ ﻫُﺮَﻳْﺮَﺓَ ﺭَﺿِﻰَ ﺍﻟﻠﻪُ ﺗَﻌَﺎﻟٰﯽ ﻋَﻨْﻪُ ﻗَﺎﻝَ ﻭَﻋَﺪَﻧَﺎ ﺭَﺳُﻮْﻝُ ﺍﻟﻠﻪِ ﺻَﻠَّﻰ ﺍﻟﻠﻪُ ﻋَﻠَﻴْﻪِ ﻭَﺳَﻠَّﻢَ ﻏَﺰْﻭَﺓَ ﺍﻟْﻬِﻨْﺪِ ﻓَﺈِﻥِ ﺍﺳْﺘُﺸْﻬِﺪْﺕُ ﻛُﻨْﺖُ ﻣِﻦْ

পরবর্তী বিশ্ব সম্মানিত মুসলমানদের; মুসলমানগন যত তাড়াতাড়ি তওবা করে মহান আল্লাহ পাক উনার দিকে রুজু হবে; তত তাড়াতাড়িই সম্মানিত খিলাফত ফিরে পাবে;


পরবর্তী বিশ্ব সম্মানিত মুসলমানদের; মুসলমানগন যত তাড়াতাড়ি তওবা করে মহান আল্লাহ পাক উনার দিকে রুজু হবে; তত তাড়াতাড়িই সম্মানিত খিলাফত ফিরে পাবে;

শাষকদের ইমানী দায়বদ্ধতার অভাবেই শোষন হচ্ছি আমরা


এই দেশে সবচেয়ে অভাব এখন একটি বিষয়ের –ইমানী ‘জবাবদিহিতা ও দায়বদ্ধতা’। সামাজিক পর্যায় থেকে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ের প্রতিটি ক্ষেত্রে এই জবাবদিহিতার অভাব খুব প্রকট। . এই কারণেই ভবন ধ্বসে, গার্মেন্টসে আগুন লেগে, লঞ্চ ডুবে, বাস এক্সিডেন্টে মানুষের পরে মানুষ মারা যাচ্ছে। তবুও

মুসলমানগন তওবা করে মহান আল্লাহ পাক উনার দিকে রুজু হলে; কাফিরদের ধ্বংস হতে ১ দিনও সময় লাগবে না;


মুসলমানগন তওবা করে মহান আল্লাহ পাক উনার দিকে রুজু হলে; কাফিরদের ধ্বংস হতে ১ দিনও সময় লাগবে না;

## শিক্ষা ব্যবস্তায় ইসলাম উনার শিক্ষা সর্বোস্তরে চালু করা হউক।


## শিক্ষা ব্যবস্তায় ইসলাম উনার শিক্ষা সর্বোস্তরে চালু করা হউক। এবং যারা ইসলাম অবমাননা করে মুসলমান উনাদের অন্তরে নিদারুন কষ্ট দিয়ে যাচ্ছে তাদেরকে বিচারের আওতায় আনা হউক।৯৮% মুসলমানের শিক্ষা ব্যবস্থা থেকে ব্রাহ্মন্যবাদ ও অশালীন কল্প কাহীনি সরিয়ে ফেলা হউক।শিক্ষা ব্যবস্থা আখেরি

#‪#‎ইসলাম‬ পরিপন্থি পাশ্চাত্য ভাব ধারায় পালিত বিভিন্ন দিবস এক সময় বাংলা দেশের মুসলমান সমাজ পালন করাটাকে গুনাহের কাজ মনে করত।


  ইসলাম পরিপন্থি পাশ্চাত্য ভাব ধারায় পালিত বিভিন্ন দিবস এক সময় বাংলা দেশের মুসলমান সমাজ পালন করাটাকে গুনাহের কাজ মনে করত। ইসলাম উনার মধ্যেই তো আছে বরকত ময় কত শত দিবস যেগুলো স্মরণ করলে, গুনাহ মাফ হয়ে যায়, দারিদ্রতা দূর হয়ে

সুলতানুল হিন্দ হযরত গরীবে নেওয়াজ রহমুতাল্লাহি আলাইহি উনার উসীলায় এক কোটির ও অধিক মানুষ পবিত্র ঈমান লাভ করে৤


৬ই রজব ৭ম হিজরী শতকের মুজা্দ্দিদ সুনলত্বানুল হিন্দ, গরীবে নেওয়াজ, হাবীবুল্লাহ হযরত খাজা ছাহিব রহমুতাল্লাহি আলাইহি উনার পবিত্র বিছালী শান তথা উনার দুনিয়া থেকে বিধায় নেওয়ার দিন মুবারক৤ কাজেই এই দিনটি আমাদের জন্য অত্যান্ত রহমত পুর্ন, বরকত পুর্ন ছাকিনা পুর্ন ৤

প্রতিবাদের দাবানল জ্বালিয়ে তুলুন।


আজকের এইচ এস সি পরীক্ষায় বাংলা ১ম পত্র প্রশ্নপত্রের ৮নং প্রশ্নে নাস্তিক্যবাদীদের আসকারা, ইসলামী খেলাফত আন্দোলনকে বিতর্কিত ও পীর মুরিদিকে নিয়ে বিষদগাড় করায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। . প্রতিবাদের দাবানল জ্বালিয়ে তুলুন।

বাংলাদেশে সংখ্যালঘুরা নির্যাতিত হচ্ছে বলে যাদের মায়াকান্না, তাদের জন্য….


বাংলাদেশে সংখ্যালঘুরা নির্যাতিত হচ্ছে বলে যাদের মায়াকান্না, তাদের জন্য….   কিছু লোক প্রচার করে বেড়ায়, বাংলাদেশে সংখ্যালঘুরা নাকি অনেক নির্যাতিত হয়ে থাকে, কিন্তু ভারতের মুসলমানরা অনেক সুখে-শান্তিতে বসবাস করে। যারা এ ধরনের ডাহা মিথ্যা প্রচারনা করে থাকে- তাদের উত্তরে বলতে হয়,

সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা সাইয়্যিদাতুনা হযরত ফাতিমাতুয যাহরা আলাইহাস সালাম উনার কতিপয় অমূল্য নছীহত মুবারক


উম্মু আবীহা সাইয়্যিদাতুনা হযরত ফাতিমাতুয যাহরা আলাইহাস সালাম উনার অমূল্য নছীহত মুবারক শুনার জন্য উনার কাছে প্রতিদিন অনেক মহিলারা আসতেন। তিনি উনাদেরকে সাধারণত যেসব নছীহত মুবারক করতেন তার কতিপয় অত্যন্ত জরুরী নছীহত মুবারক নিম্নে পেশ করা হলো। উল্লেখ্য, যে মহিলা এই

আউয়ালিয়াতে সাইয়্যিদুনা হযরত ফারূক্বে আ’যম আলাইহিস সালাম


আমীরুল মু’মিনীন, সাইয়্যিদুনা হযরত ফারূক্বে আ’যম আলাইহিস সালাম তিনি যে সকল কাজ ও বিভাগের সর্বপ্রথম সূচনাকারী হিসেবে চিরস্মরণীয়, যেগুলো উনার পূর্বে আর কেউ করেনি সেগুলোকে আউয়ালিয়াতে সাইয়্যিদুনা হযরত ফারূক্বে আ’যম আলাইহিস সালাম বলা হয়। নি¤েœ সংক্ষিপ্তভাবে সেগুলোর তালিকা দেওয়া হলো। ১.

সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা সাইয়্যিদাতুনা হযরত ঊলা আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত জীবনী মুবারক


  সম্মানিত পরিচিতি মুবারক: সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত আবনা তথা ছেলে আওলাদ আলাইহিমুস সালাম এবং মহাসম্মানিতা বানাত তথা মেয়ে আওলাদ আলাইহিন্নাস সালাম উনারা ছিলেন মোট আট (৮) জন। সুবহানাল্লাহ! মহাসম্মানিত