অনলাইন কুরবানীর হাটের মাধ্যমে পশু ক্রয়ে শরঈ শর্ত প্রতিপালিত হওয়া সম্ভব নয়, তাই ডিজিটাল কুরবানীর পশুর হাট শরীয়তসম্মত নয়


দ্বীন ইসলাম কখনোই উন্নত ও আধুনিক পদ্ধতিকে অস্বীকার করে না, তবে শর্ত হচ্ছে তা শরীয়তসম্মত হতে হবে। বর্তমান সময়ে বেচাকেনার একটি আধুনিক পদ্ধতি হচ্ছে ডিজিটাল বা অনলাইনে বেচাকেনা। তবে পবিত্র কুরবানীর পশু অনলাইনে বেচাকেনা করা কতটুকু শরীয়তসম্মত তা জানার জন্য কয়েকটি 

বিদয়াত ছেড়ে পবিত্র সুন্নত পালনে অভ্যস্ত করতে প্রতিষ্ঠা হয়েছে ‘আন্তর্জাতিক পবিত্র সুন্নত মুবারক প্রচার কেন্দ্র’


শুরুতেই তিনটি নছীহত মুবারক স্মরণ রাখা প্রয়োজন- (১) পবিত্র সুন্নত মুবারক পালন করা ফরয। (২) পবিত্র সুন্নত মুবারক তরক করা ফাসিকী আর (৩) পবিত্র সুন্নত মুবারক ইহানত করা কুফরী। উপরোক্ত বিষয় থেকে ১ম বিষয়ের উপর আমলে অভ্যস্ত করা এবং পরের ২টি 

‘বেপর্দা হয়ে পবিত্র হজ্জ করা নিষেধ’ এটা খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনারই ফতওয়া


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, যার উপর পবিত্র হজ্জ ফরয সে যেন পবিত্র হজ্জ করতে গিয়ে কোনো প্রকার অশ্লীল-অশালীন কাজ না করে এবং কোনো প্রকার ফাসিকী বা নাফরমানিমূলক কাজ না করে এবং ঝগড়া-বিবাদ না করে। আর 

পবিত্র কুরবানী এবং মুসলমানদের অধিকার


যিনি খলিক্ব, যিনি মালিক, যিনি রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- وَلَا تَنسَ نَصِيبَكَ مِنَ الدُّنْيَا অর্থ: দুনিয়াতে তুমি তোমার অধিকার ভুলে যেওনা। (পবিত্র সূরা ক্বছাছ শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ৭৭) দুনিয়াতে নিজেদের অধিকার গুলো ভুলে যাওয়া যাবেনা বরং 

সরকারের জন্য ফরয হচ্ছে- মুসলমানদের ওয়াজিব ইবাদত পবিত্র কুরবানী করার সুবিধার্থে সারাদেশে কমপক্ষে ১০ দিন পূর্ব থেকেই পবিত্র কুরবানীর


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইশরাদ মুবারক করেন, তোমরা পরস্পর পরস্পরকে নেকী ও পরহেযগারীর মধ্যে সাহায্য-সহযোগিতা করো, পাপ ও নাফরমানীর মধ্যে সাহায্য-সহযোগিতা করো না। তাই ৯৮ ভাগ মুসলমান ও রাষ্ট্রদ্বীন ইসলাম উনার দেশের সরকারের জন্য ফরয হচ্ছে- মুসলমানদের ওয়াজিব ইবাদত পবিত্র কুরবানী 

মহান আল্লাহ পাক তিনি সৃষ্টির শুরু থেকে দায়িমীভাবে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানার্থে


মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কুরআন শরীফ এবং মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের আলোকে সম্মানিত আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত উনার বিশুদ্ধ আক্বীদাহ মুবারক: মহান আল্লাহ পাক তিনি সৃষ্টির শুরু থেকে দায়িমীভাবে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানার্থে 

ক্বদমবুছী ও দস্তবুছী সম্পর্কে জানুন


ক্বদমবুছী যার অর্থ পা চুম্বন করা। ক্বদম ও বুছী এ দুটিকে একত্রে বলা হয় ক্বদমবুছী। ক্বদম অর্থ পা এটা আরবী শব্দ আর বুছী অর্থ চুম্বন করা এটা ফার্সী শব্দ। ক্বদমবুছী পুরো শব্দটির অর্থ হলো পা চুম্বন করা। দস্তবুছী যার অর্থ হাত 

সকল পরিচয়ের উপরে ‘আমি মুসলিম’, এরপর অন্যকিছু


অনেকেই নিজেদেরকে সুশীল ও অসাম্প্রদায়িক প্রমাণ করতে গিয়ে বলে- সে প্রথমে মানুষ, এরপর বাঙালি, এরপর সে মুসলমান।’ শুধু কেবল এই একজন দু’জনের কথা নয়, এ কথা এখন সারা বিশ্বের বহু মুসলিমরাই এরকম বলে থাকে। মূলত, এই তত্ত্বটি(!) তথাকথিত মানবতাবাদীদের জঘন্যতম একটি 

স্বয়ং মহান আল্লাহপাক তিনি জিহাদের বিষয়ে মুসলমানদের উৎসাহিত করেছেন


যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, يَاأَيُّهَا النَّبِيُّ حَرِّضِ الْمُؤْمِنِينَ عَلَى الْقِتَالِ إِنْ يَكُنْ مِنْكُمْ عِشْرُونَ صَابِرُونَ يَغْلِبُوا مِائَتَيْنِ وَإِنْ يَكُنْ مِنْكُمْ مِائَةٌ يَغْلِبُوا أَلْفًا مِنَ الَّذِينَ كَفَرُوا بِأَنَّهُمْ قَوْمٌ لَا يَفْقَهُونَ. অর্থ: “আমার মাহবূব হাবীব, 

ভিন্ন খাবারের মধ্যে রোগ থাকতে পারে কিন্তু পবিত্র সুন্নতী খাবারে কোন রোগ নেই বরং তা রহমত-বরকতে পরিপূর্ণ


অন্য যেকোন আমল বরকতহীন হতে পারে কিন্তু পবিত্র সুন্নতী আমলে সৌন্দর্য্য ও রহমত-বরকত ব্যতিত বিপরীত কিছু নেই। আবার হরেক রকম খাবার খেলে বিভিন্ন সমস্যা ও রোগ হতে পারে, কিন্তু পবিত্র সুন্নতী খাবারের মধ্যে কোন রোগ নেই। কোন সমস্যা নেই। সুবহানাল্লাহ! আহলু 

প্রত্যেক মুসলমানেরই উচিত- “আন্তর্জাতিক পবিত্র সুন্নত মুবারক প্রচারকেন্দ্র” উনার সাথে সংশ্লিষ্ট ও সম্পৃক্ত হওয়া


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “নিশ্চয়ই আমার মহাসম্মানিত হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মাঝে তোমাদের জন্য সর্বোত্তম আদর্শ মুবারক রয়েছে।” সুবহানাল্লাহ! মু’মিন-মুসলমানদেরকে জীবনের প্রতিটি পদে পদে পরিপূর্ণভাবে সুন্নত মুবারক উনার রঙ্গে রঞ্জিত করতে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে- “আন্তর্জাতিক পবিত্র 

যে কারণে মহাসম্মানিত সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত


মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র, হাবীব নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাপবিত্র ওজূদ পাক মুবারক এবং মহাপবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ উপলক্ষে খুশি মুবারক প্রকাশ করা তথা মহাসম্মানিত সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন করা সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত। এর প্রথম কারণ