Posts Tagged ‘মুশরিক’

সম্মানিত মুসলমান উনাদের জীবন বিধানে কাফির-মুশরিকদের সাথে বন্ধুত্বের কোনোই সুযোগ নেই


অনেক মুসলমান আজকাল কথায় কথায় বলে থাকে- ‘আরে বিধর্মীদের সাথে আত্মিক বন্ধুত্ব করলে ক্ষতি কি? কোনো দোষ তো দেখি না। তারা তো আমাদের কোনো ক্ষতি করে না।’ নাউযুবিল্লাহ! এমন কথা যেসব মুসলমান বলে থাকে, দেখা যায়- তারা কেউ সম্মানিত দ্বীন ইসলাম

যেভাবে মাইনাস টু ফর্মুলার বাস্তবায়ন


মুসলমান উনাদের জান, মাল, দ্বীন, ঈমান-আমল ইত্যাদীর শত্রু ইহুদী, মুশরিক ও নাছারারা। এই শত্রুরা সবসময় চায় এবং ষড়যন্ত্র ও চক্রান্ত করে কি করে, মুসলমান উনাদের ক্ষতি করা যায়, ধন-সম্পদ লুণ্ঠন করা যায়, যুলুম-নির্যাতন করা যায়, শহীদ করা যায়, সর্বোপরি মুসলমান উনাদের

মুসলমানগণ কখনো এক ভুল বারবার করে না


পবিত্র বদরের জিহাদে আব্দুল উজ্জা নামক এক মুনাফিক ধরা পড়লো। এ মুনাফিকের কাজ ছিলো সারা দিন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক শান উনার মানহানী করে কুৎসা রটনা করা এবং সেগুলো দিয়ে গান-বাজনা বানিয়ে প্রচার করা।

বিধর্মীরা মুসলমানদের খাদিম…


বিধর্মীদের আবিষ্কৃত তৈরিকৃত যন্ত্রপাতি, আসবাব ইত্যাদি ব্যবহার নিয়ে অনেকেই মুসলমানদের মাঝে বিভ্রান্তি ছড়িয়ে থাকে। মহান আল্লাহ পাক তিনি ও নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনারা যেহেতু মুসলমানদের জন্য কাফির-মুশরিক তথা তাবৎ বিধর্মী অমুসলিমদের সাথে কোনো প্রকার মিল-মুহব্বত

এখনও সংবিধানে রাষ্টধর্ম ইসলাম রয়েছে তাই এই অবস্থা আর যদি সংবিধান থেকে রাষ্টধর্ম ইসলাম তুলে দেয় তখন কি হবে ?


কাফের-মুশরিকরা অজান্তেই সুক্ষ্মভাবে মুসলমানদের ঈমানটা নষ্ট করে দিচ্ছে। মুসলমানরা সেটা ফিকির করে না।  মহান আল্লাহ পাক তিনি  পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেছেন- لتجدن اشد الناس عداوة للذين امنوا اليهود والذين اشركوا মহান আল্লাহ পাক তিনি বলেন, হে আমার

কাফের-মুশরিককে বন্ধু মনে করে……………


কাফের-মুশরিকরা  বলে  বেড়ায়  মুসলমানরা  তাদের  শত্রু। আর  মুসলমানদের মধ্যে  অধিকাংশ  লোক রয়েছে যারা  নিজেদের  মুসলমান  বলে অথচ কাফের-মুশরিককে  বন্ধু মনে করে। যার  কারণে  কাফেররা নীরহ  মুসলমানদর  উপর  যুলুম করার  সর্তেও  তাদেরকে  কিছু বলেনা। বরং  তাদেরকে তেল দিয়ে চলে। তাদেরকে অনুসরণ করে।(

মহান আল্লাহ পাক উনার ভয়াবহ গযব থেকে বাঁচুন : বৈশাখী ভাতা গ্রহণ থেকে বিরত থাকুন


দেশের খনিজ সম্পদ আহরণ করবে দেশের কোম্পানী, বিদেশীরা নয়।


দেশের খনিজ সম্পদ অনুসন্ধান ও উত্তোলনে দেশী কোম্পানি বা রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানকে কাজে লাগাতে হবে। বিদেশী কোম্পানীকে দেশের খনিজ সম্পদ আহরণের দায়িত্ব দেয়া হবে দেশের সম্পদ বিদেশীদের হাতে তুলে দেয়ার আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত বাংলাদেশ একটি সোনার দেশ। কৃষিজ, বনজ সম্পদের সাথে সাথে এদেশে

মুসলমানদের ক্ষতিসাধন করাই বিধর্মীদের মূল ধর্ম


ফিলিস্তিনে মুসলমানদের নৃশংস্য ভাবে হত্যা করছে কারা? উত্তরঃ ইহুদীরা ভারতের আসাম-গুজরাটের দাঙ্গায় মুসলমানদের নির্মমভাবে শহীদ করছে কারা? উত্তরঃ হিন্দুরা চীনের উইঘুরে মুসলমানদের নির্যাতন করছে কারা? উত্তরঃ কমিউনিষ্টরা মায়েনমারে হাজার হাজার মুসলমানদেরকে হত্যা করছে কারা? উত্তরঃ বৌদ্ধরা আফগানিস্তান, ইরাক, সিরিয়া ইত্যাদি দেশে

মহান আল্লাহ পাক তিনি নিজেই সাক্ষ্য দিচ্ছেন- মুসলমানদের সবচেয়ে বড় শত্রু হচ্ছে ইহুদী ও মুশরিক গোষ্ঠী


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, لتجدن اشد الناس عدواة للذين امنوا اليهود و الذين اشركوا অর্থ: (আয় আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!) “আপনি মু’মিন উনাদের জন্য মানুষদের মধ্যে সবচেয়ে বড় শত্রু হিসেবে পাবেন ইহুদীদেরকে। অতঃপর যারা মুশরিক তাদেরকে।”

কথিত ভালোবাসা দিবসে মিডিয়ায় আন্তঃধর্ম বিবাহের প্রচার প্রসার এবং সম্মানিত ইসলাম উনাকে অবমাননা !!!!


হারাম থেকে হারামই জন্ম নেয়। যখন হারাম মিডিয়া আর হারাম বিশ্ব বেহায়া দিবস একসাথে, তখন গভীর চিন্তার বিষয় অবশ্যই। কাফির-মুশরিকদের প্রবর্তিত হারাম দিবস যখন আসে, তখন এদেশের কুফরীতে ভরা মিডিয়া অত্যন্ত সূক্ষ্মভাবে পবিত্র দ্বীন ইসলাম অবমাননা করে। মূলত, কাফির-মুশরিকদের টাকা খেয়ে

যুলুমবাজ কাফিরদের সময় শেষ, তাদের সামনে এখন মাত্র দুইটি রাস্তা খোলা আছে- হয় মুসলমান হতে হবে, নয়তো মুসলমানদের গোলাম হতে হবে


মুসলমানগণ উনাদের উপর যুলুম নির্যাতন করার কারণে মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার সুমহান দোয়া মুবারক উনার কারণে যুলুমবাজ কাফিরদের উপর নজিরবিহীন খোদায়ী গযব নাযিল হচ্ছে। অর্থমন্দা, খাদ্যমন্দা, বন্যা, ঘূর্ণিঝড়, সাইক্লোন, টর্নেডো, বন্যা, সুনামী, সিঙ্কহোল, ধূলিঝড়, দাবানলসহ নানান ধরনের খোদায়ী গযবে প্রতিনিয়ত